Search Results
bangla-sydney.com
News and views of Bangladesh community in Sydney



bangla-sydney.com has six pages. Please look at the flashing red lights on the bar above. Links to Australian, Bangladeshi, West Bengal and World newspapers are on the respective pages. - Webmaster


Concert for Bangladesh


Organized by George Harrison and Ravi Shankar, The Concert For Bangladesh was held on this day (1-Aug-1971) at Madison Square Garden, New York.

Other famous performers were Ringo Starr, Eric Clapton and Leon Russell.



Presidents of Bangladesh
Ziaur Rahman
From 21-Apr-1977 to 30-May 1981
Prime Minister:
Shah Azizur Rahman - (15-Apr-1979 to 24-Mar- 1982)

Presidents of Bangladesh
Abdus Sattar
From 30-May-1981 to 24-Mar-1982
Prime Minister:
Shah Azizur Rahman - (15-Apr-1979 to 24-Mar- 1982)

Presidents of Bangladesh
Prof. Iajuddin Ahmed
From 21-June-2002
Prime Minister: Khaleda Zia



Dear Visitors,
There are some missing photos. If you have any one of those photos
would you be kind enough to send me a copy. It will help me
complete the list.
Thank you - webmaster

Presidents of Bangladesh
Prof. Badruddoza Chowdhury
From 14-Nov-2001 to 21-Jun-2002
Prime Minister: Khaleda Zia

Presidents of Bangladesh
Justice Shahabuddin (Acting)
From 6-Dec-1990 to 8-Oct-1991
Presidents of Bangladesh
Sayeed Nazrul Islam (Acting)
From 17-Apr-1971 to 10-Jan-1972
Prime Minister:
Tajuddin Ahmed - (25-Apr-1971 to 13-Jan-1972)

Presidents of Bangladesh
Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman
From From 17-Apr-1971 to 12-Jan-1972
Presidents of Bangladesh
Abu Sayeed Chowdhury
From 12-Jan-1972 to 24-Dec-1973
Presidents of Bangladesh
Mohammad Mohammadullah (Acting)
From 26-Dec-1973 to 25-Jan-1975
Presidents of Bangladesh
Sheikh Mujibur Rahman
From 25-Jan-1975 to 15-Aug-1975
Presidents of Bangladesh
Khandakar Mushtaq Ahmed
From 15-Aug-1975 to 6-Nov-1975
Presidents of Bangladesh
Abu Sadat Mohammad Sayem
From 6-Nov-1975 to 21-Apr-1977
Presidents of Bangladesh
Hossain Mohammad Ershad
From 24-Mar-1982 to 27-Mar-1982
Presidents of Bangladesh
Abul Fazal Ahsanuddin Chowdhury
From 27-Mar-1982 to 11-Dec-1983
Chief Martial Law Administrator:
Hossain Mohammad Ershad (24-Mar-1982 to 11-Dec-1983)

Presidents of Bangladesh
Hossain Mohammad Ershad
From 11-Dec-1983 to 6-Dec-1990
From 11-Dec-1983 to 30-Mar-1984 he was also the Chief Martial Law Administrator.
Prime Ministers:
Ataur Rahman Khan - (30-Mar-1984 to 9-Jul-1986)
Mizanur Rahman Chowdhury - (9-Jul-1986 to 27-Mar- 1988)
Moudud Ahmed - (27-Mar-1988 to 12-Aug-1989)
Kazi Zafar Ahmed - (12-Aug-1989 to 6-Dec- 1990)
Presidents of Bangladesh
Abdur Rahman Biswas
From 8-Oct-1991 to 9-Oct-1996
Prime Minister: Khaleda Zia

Presidents of Bangladesh
Shahabuddin Ahmed
From 9-Oct-1996 to 14-Nov-2001
Prime Minister: Sheikh Hasina

Presidents of Bangladesh
Jamiruddin Sircar (Acting)
From 21-Jun-2002 to 6-Sep-2002
Prime Minister: Khaleda Zia



স্বাধীনতা দিবস




Voice of BD - 99.9 FM now

Listen to Voice of Bangladesh every Monday from 9pm.
Tune your Radio to 99.9 FM or Listen Online


আজ বিজয় দিবস




How to Search bangla-sydney.com

Contents of bangla-sydney.com is made up of

- Texts
- PDF Files (Bangla & English)
- Photos
- Posters
- Captions etc

Any words you enter in the Search box are matched against the Texts, Captions, File names (for PDF, Photos & Posters) and hidden comments.

If you enter more than one word, Search will performs a logical AND operation. That is, all the words must be found in an item for it to be selected. Order of the words do not matter. For example [Bangladesh Gold Cup] and [Gold Cup Bangladesh] will produce the same result.

Search works in both capital and small letters.


IMPORTANT!
Search does a logical AND operation with the search words you enter. One drawback of this is, if one of the words is not found in an item it will not be selected.

BEST PRACTICE
Search for one word first. Then narrow it down by additional words.

For example: If you are looking for `Bangladesh Gold Cup`

1st search for [Bangladesh]
then try [Bangladesh Gold]
then try [Bangladesh Gold Cup]
and so on.




Cricket:
Bangladesh Vs Australia

1st Test: Australia won by 3wkts
2nd Test: Australia won by an innings and 80 runs
1st ODI - Aus won by 4 wkts
2nd ODI - Aus won by 67 runs
3rd ODI - Live











First Bangladeshi Jewellery shop in Sydney...



GREAT PROMOTIONAL FARE FOR BANGLADESH AND INDIA, PLEASE CLICK HERE OR CONTACT US IMMIDIATELY...









Anywhere in Bangladesh (incl Mobile)







Non Resident Bangladeshis` Petition to get included in the voter list




Please click the Stop button on the tool bar to turn the music off.....
Published on: 27-Sep-2099


Open Forum -
Current Topic: Flood in Bangladesh - Relief effort in Sydney


Published on: 9-Sep-2099


Open Forum    Topic: Political Crisis in Bangladesh

Top leaders of both major political parties are in jail. What does it say about the care taker govt? What does it mean for the nation?

Published on: 9-Sep-2099


.....From the Bangladeshi Communities in other cities in Australia.....


Published on: 7-Jul-2009


Open Forum - Current Topic:
Umbrella Organisation for Bangladeshi Community


Published on: 8-Apr-2099




Bangladesh Association of NSW.
Bangladesh Society Sydney
Bangla Proshar Committee
Ekushe Boi-Mela Parishad
Macarthur Diversity Services Inc.
Parramatta Migrant Resource Centre
Sydney Peace Foundation



Published on: 1-Apr-2099






Blacktown Dental Surgery
Campsie Healthcare Medical Practice
Fintax Accountants
Grafton Street Medical Centre
IT: NybSys Australia
IT: RBIT Solutions
Loan Market
Loan: Mortgage Broker
Meat: Blacktown Halal Meat
Music: Bangladesh Music School
Music School: Sirajus Salekin
OzePac Solutions Group
Phoenix World Travel
Phone Card: ABT Connect
Phone Card: Kring Kring
Prestige Auto Smash Repair
VIP Decorating Services


Published on: 8-Jan-2099


Radio/TV

Betar Bangla
Sunday at 12.00 PM on 98.5 FM

Ekushe Betar
Friday at 4 PM on 100.9 FM

Radio Bangla Australia
Sunday at 4:00 PM on 89.7 FM

Ruposhi Bangla Betar, Sydney
Saturday at 1:00 PM on 89.7 FM

SBS Radio Bangla Program.
Monday at 4:00 PM on 97.7 FM

Voice of Bangladesh
Sunday at 2:00 PM on 99.9 FM


Published on: 1-Jan-2099




Bangla Radio Canberra
Brisbane Bangla Radio
BB Tv on Channel 31
Betar Bangla
SBS Radio Bangla Program
Voice of Bangladesh

ATN News
Bangla Vision
BTV
Channel i
Diganta Television
Ekattor tv
Ekushey TV
NTV
RTV
Star Jalsha
Somoy Television

2099-1-1
Published on: 1-Jan-2099




Aust Bangladesh Business Council
Bangabandhu Council Australia
Bangladesh High Commission
Bangladesh Association Darwin
BD Awami League, Aust Branch
BD Diaspora
BNP Australia
Bangladesh Consulate, Sydney
Bangla Chhobi
Bangla Prosar Committee
Banglapost.com.au
Banglasociety.com
Bangla AU
Bangla Media Dot Net
Bangla Academy Australia
BD Welfare Society,Campbelltown
Bangla Natok
Grameen Bank
Grameen Support Group
Hothat Random
IFTWCB
ixpat.com
Live Gaan
Melbourne Bangla Theatre
Oz Bangla
Ouderland
POBD.NET
PriyoAustralia.com.au
Probasy
Quakers Hill Masjid
Sabbir Chowdhury
Shurolok
Sonar Bangla
Suprovat Sydney
Sydneybashi Bangla
Sydney Bengalis
Sydney Utshab



Published on: 4-Jan-2095




The Legacy of Bangabandhu
Sk. Mujibar Rahman

Faruk Kader



The assassination of Bangabandhu and his family, and his removal from political power by brutal and undemocratic means is a traumatic event in the history of Bangladesh. Amid the outpouring of tributes for Bangabandhu from all walks of life, it is worthwhile to look back at the scenarios that led to this traumatic event.

The assassination of Bangabandhu and his family on the morning of 15 August 1975 stunned the whole nation. It was the outcome of a conspiracy, hatched by a group of disgruntled army officers with the blessings of Nixon administration. A small pro-Pakistani anti-Indian politicians hiding within the ranks of Awami League party also joined in. The conspirators took advantage of the people’s rising frustration about the ruling party Awami League’s inability to combat the corruption and the declining law order situation, brought about by the militancy of Gono Bahini and the Sarbahara Party led by Late Siraz Sikdar. The heavy handed and often ruthless policing adopted by Rakhi Bahini also became very unpopular among the massess. However, we have to remember that Bangabandhu was in power for about three years, while he faced the uphill task of rebuilding the country from the ruins of war of liberation. Bangabandhu himself was deeply frustrated as he saw the situation getting out of his control. Headstrong as he was, he continued to believe in his people’s mass support base, which in reality was declining fast once he established the one party rule of BAKSAL to put away any opposition to his political and administrative reforms. The decision to appoint Governor from BAKSAL at district level did not go down well with the civil administration, which they viewed as a potential threat to the administrative power vested upon them. It was when the appointment of the District Governor was announced, that the conspirators struck. The reverberation from the shock and the disbelief that such tragedy could happen to the founder of the nation put to rest any possibility of opposition from the people and Awami League. Except few sporadic protests from the Communist Party and its student wing Chatra Union, unfortunately, there was no organised protest and opposition from the ranks and files of Awami League.

We can debate what went wrong with Bangabandhu’s politics during his tenure, but his patriotism remains unquestionable. Bangabandhu swore that he would, if needed, lay down his last drop of blood for his country, which he did. The tide of adulation for Bangabandhu we are experiencing now is a clear sign that the legacy of Bangabandhu lives on. We have to ensure that it continues to do so without any political affiliation.



Faruk Kader, Sydney



Published on: 30-Aug-2016




এনেছিলে সাথে করে মৃত্যুহীন প্রাণ -
আব্দুল্লাহ আল মামুন



সিডনী থেকে বন্ধু সামদানি ভাইবারে জানালো, "আব্দুল হক ভাই আর নেই"। খবর শুনে চমকে উঠলাম। এইতো গত ঈদুল ফিতরের ক’দিন আগের কথা। কাতার থেকে সিডনী এসেছি সপ্তাহ দু’য়েক হল। সিডনী ছেড়েছি সেই ২০০৮ সালে। এর মধ্যে বেশ ক’বার সিডনী আসলেও ব্যস্ততার জন্য হক ভাইয়ের সাথে দেখা করা হয়ে ওঠেনি। কিন্তু কেনো জানিনা এবার ঠিক করলাম, যেভাবেই হোক হক ভাইয়ের সাথে দেখা করেই তবে ফিরবো। এখন মনে হচ্ছে, হক ভাই না ফেরার দেশে চলে যাবেন বলেই কি শেষ দেখার সুযোগ করে দিলেন সৃষ্টিকর্তা? তবে একথা নিশ্চিত, সেদিন হক ভাইয়ের সাথে দেখা না হলে নিজেকে কখনোই ক্ষমা করতে পারতাম না।



হক ভাইকে টেলিফোন করে জানতে চাইলাম কখন তার সাথে দেখা হবে। ইথারে আমার কণ্ঠ শুনেই তিনি উৎফুল্ল হয়ে উঠলেন। এক নাগাড়ে একে একে অনেক প্রশ্ন করে গেলেন - কোথায় আছি, কেনো যোগাযোগ রাখিনি ইত্যাদি। বললেন, "কোয়েকার্স মসজিদে চলে আসুন, তারাবীহ নামাজের পরই কথা হবে।" তাঁর কণ্ঠে আমার জন্য যে ভালোবাসা ও আন্তরিকতার কোমল ছোঁয়া পেলাম তাতে মনটা ভরে গেলো। দুরে চলে গেলেও তাঁর এক সময়কার সহযোদ্ধাকে ভোলেননি হক ভাই। নিজেকে খুবই ভাগ্যবান মনে হচ্ছিল।

রাত ৯টা পেরিয়ে গেছে । কোয়েকার্স হিল মসজিদে পা রাখলাম। তখনও তারাবীর নামাজ চলছে। সেন্ট ম্যারিস মসজিদে তারাবী পড়ে ফেলেছি তাই মূল মসজিদ ভবনের পাশে নির্মিত তাবুতে যেয়ে বসলাম। অপেক্ষা করছি কখন নামাজ শেষে হক ভাইয়ের সাথে দেখা হবে। কোয়েকার্স হিল মসজিদ চালু হবার পর আমার এই প্রথম আসা। তাবুর নির্জনতায় মনটা হচ্ছিল এলোমেলো। হাতড়ে বেড়াচ্ছিল ফেলে আসা ধূসর স্মৃতির ডায়রির পাতাগুলো।
............
............

৯০ দশকের প্রথম দিকের কথা। সিডনী শহরের সেফটন এ বাংলাদেশ কম্যুনিটির প্রচেষ্টায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে মসজিদ। হক ভাই বললেন, "ব্ল্যাকটাউন-হিলস এলাকায় যে হারে বাংলাদেশীদের জনসংখ্যা বাড়ছে, তাতে এই এলাকায় একটা মসজিদের প্রজেক্ট আমাদের হাতে নেয়া উচিত।" তবে তার মতে সেটা কেবল মসজিদ নয়, হবে একটা বহুমুখী সেন্টার। যেখানে থাকবে কম্যুনিটি হল, লাইব্রেরী, প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ইত্যাদি। আমাকে বললেন, "আপনি এ নিয়ে একটা লেখা তৈরি করুন যা জনমত তৈরিতে সাহায্য করবে"। "ব্ল্যাকটাউন হিলস ইসলামিক সেন্টার" নামে একটি লেখা তৈরি করলাম। উত্তর আমেরিকার একটি বহুমুখী ইসলামিক সেন্টারের আদলে ব্ল্যাকটান এলাকায় ইসলামিক সেন্টার নির্মাণের রূপরেখা দেয়া হলো ওই লেখাতে। আমার লেখাটি হক ভাই যে অসাধারণ দক্ষতার সাথে সম্পাদনা করলেন তাতে লেখাটা তাঁর নামেই গেলেই হয়তো সঙ্গত হত। এর সাথে তহবিল সংগ্রহের জন্য নীতিমালা তৈরি করে হক ভাই মাঠে নেমে পড়লেন।
এর পরেরটুকু আমাদের সবারই জানা। কোয়েকার্স মসজিদ এখন আর ড্রিম প্রজেক্ট নয়, একটি বাস্তব সত্য।

এই ব্ল্যাকটাউনেই শুরু হয়েছিল অস্ট্রেলিয়ার ক্যান্সার কাউন্সিলের জন্য তহবিল সংগ্রহের কর্মসূচী Good Morning Bangladesh. হক ভাই বললেন, "অস্ট্রেলিয়ার মূলধারার সাথে সম্পৃক্ত হবার জন্য আমাদের কিছু কর্মসূচী হাতে নিতে হবে।" সেই ভাবনা থেকেই Good Morning Bangladesh কর্মসূচীর শুরু। যা এখন সিডনীর অন্যান্য সাবার্বেও ছড়িয়ে পড়েছে। হক ভাইয়ের জনকল্যাণে মূলক প্রজেক্টের তালিকা অনেক দীর্ঘ। যে দুটো উদ্যোগের সাথে আমার সম্পৃক্ত হবার সৌভাগ্য হয়েছিলে কেবল তারই উল্লেখ করলাম। সমাজের জন্য, অন্যের কল্যাণের জন্য, একজন মানুষ নিজেকে কিভাবে নিজেকে বিলিয়ে দিতে পারে তা হক ভাইকে কাছ থেকে না দেখলে উপলব্ধি করা সম্ভব নয়।

আমার মাঝে মাঝে মনে হতো, একি করছেন হক ভাই? তিনি এতো কিছু সামলাতে পারবেন তো? প্রতিবন্ধকতার কথা ভেবে অনেক কর্মকাণ্ড থেকে কখনো গুটিয়ে নিতাম নিজেকে, ঢুকে গড়তাম নিজস্ব খোলসে। কিন্তু হক ভাই ছিলেন অন্য ধাতুতে গড়া। কোনো প্রজেক্ট হাতে নিলে তাঁর লক্ষ্য থাকতো স্থির এবং অবিচল। মনে হতো তিনি যেন ভবিষ্যৎ দেখতে পাচ্ছেন। আমার অস্থিরতা দেখে তিনি বলতেন, "ধৈর্য ধরুন, আমরা সফল হবোই ইনশাল্লাহ"। চরম প্রতিকূলতাকে হক ভাই জয় করেছেন হাসি মুখে। এই বিরল গুণই তাঁকে নিয়ে গেছে এক অসাধারণ উচ্চতায়।

............
............
নামাজ শেষে মুসল্লিদের কোলাহলে সম্বিত ফিরে পেলাম। মসজিদে ঢুকেই দেখতে পেলাম হক ভাইকে। আমাকে দেখেই বুকে জড়িয়ে ধরে জিজ্ঞাসা করলেন কোথায় ছিলাম এতদিন। কোলাকুলি শেষে মসজিদের ইমামকে তার একজন পুরনো সহযোদ্ধা হিসাবে আমাকে পরিচয় করিয়ে দিলেন। মসজিদ থেকে বের হয়েই ইফতার মাহফিলের জন্য বাইরে বিছানো মাদুর গুটিয়ে নিতে ব্যস্ত হয়ে পড়লেন তিনি। এই ছিলেন আমাদের সবার প্রিয় হক ভাই।

চির বিদায় নেয়াটা অপ্রত্যাশিত নয়। এটা অমোঘ সত্য। তবে আমাদের মধ্যে এমন কেউ কেউ আছেন যারা নিজের কর্ম ও ভালোবাসা দিয়ে মানুষের হৃদয়কে এমন করে ছুঁয়ে যান যে, তাদের চলে যাওয়াটা মেনে নিতে কষ্ট হয়। মনে হয়, আহা! যদি আরো কিছুটা দিন উনি বেঁচে থাকতেন আমাদের মাঝে? হক ভাই হলেন তেমনই একজন মানুষ যার মৃত্যু হলেও কর্মের মধ্য দিয়ে তিনি সবার মাঝে বেঁচে থাকবেন চিরদিন। তাঁর স্মৃতির প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে বার বার মনে পড়ছে কবি রুদ্র মুহাম্মদ শহীদুল্লার লেখা আমার খুব প্রিয় ক’টি পংক্তিমালাঃ

চলে যাওয়া মানে প্রস্থান নয় - বিচ্ছেদ নয় -
চলে যাওয়া মানে নয় বন্ধন ছিন্ন-করা আর্দ্র রজনী
চলে গেলে আমারও অধিক কিছু থেকে যাবে
আমার না-থাকা জুড়ে।





আব্দুল্লাহ আল মামুন, কাতার



Published on: 29-Aug-2016




Published on: 11-Aug-2016





Published on: 11-Aug-2016


Bangladesh Society for Puja and Culture
New Committee Formed


Published on: 8-Aug-2016


Do you remember Engr Zakiuddin Hossain?

Engr Zakiuddin Hossain, PHD, Manager/Team Lead for Chevron Intl. is a specialist measurement engineer for oil and gas industry for last 28 years. For last few years he is involved with precision instruments of Gorgon LPNG Project. A joint venture of Commonwealth of Australia and Chevron.

Dr Zaki has passed his SSC & HSC from Faujdarhat Cadet College with distinction in 1964.

He graduated from BUET Mechanical Department in 1968 and joined as a lecturer in the Mechanical Department in 1969 and was a teacher till 1975 when he left for USA for higher studies.

Dr Zaki has traveled the world where ever there is gas and oil to be drilled or being drilled to measure and calibrate the flow of gas and oil to the the rigs (this includes Bangladesh and the neighboring countries)

He has decided to retire as long hours of travel has become more arduous for him than his work which will limit his visit to Australia.

Dr Zaki will be arriving in Sydney on 16 August 2016 (Tuesday) and leaving on 19 August 2016 (Friday). He is interested to meet batch mates, (of any faculty), colleagues from BUET or students so he can go back to the memory lane reminiscing those golden years.

Even if you were not his student, batch mate or not a teacher in those years you still can meet him.

Please call to arrange an appointment.


Nasim Samad
Mob: 0433795968






Published on: 8-Aug-2016


এই লিংক থেকে SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন



আমাদের গৃহপ্রবেশ
বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়া বুদ্ধিস্ট সোসাইটি



সুতপা বড়ুয়া: গত ২৫শে জুন মিন্টো'র এক সবুজে ঘেরা রাস্তায় ( 23 Haultain Street) বাংলাদেশী বৌদ্ধদের অনেক দিনের স্বপ্ন, তাদের একটি নিজস্ব ঠিকানা হল। ঐদিন আমাদের ধর্মীয় গুরু পূজ্য আদিচ্চা ভান্তের আশীর্বাদ নিয়ে, প্রার্থনা ও ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠানের মাধ্যমে Bangladesh Australia Buddhist Society (BABS) এর সদস্যদের অনেক উদ্দীপনার ভিতর দিয়ে হয়ে গেলো আমাদের 'গৃহপ্রবেশ'। ইতিমধ্যেই BABS এর সমস্ত সদস্য সদস্যা এবং শুভানুধ্যায়ীদের প্রচুর উৎসাহে ঘরটাকে সাজিয়ে গুছিয়ে নেওয়ার জন্যে শ্রম দান ও শ্রদ্ধা দান দিয়েছেন অনেকে, তারপরও আরো অনেকটা পথ বাকি, যেতে হবে আরো বহুদূর। আগামী ১০ই জুলাই থেকে পূজনীয় ভান্তে সার্বক্ষণিক ভাবে ওখানে থাকবেন এবং বর্ষাবাস পালন করবেন। পরবর্তীতে মহামানব বুদ্ধের ধর্ম ও দর্শন এবং meditation ক্লাস ছাড়াও আরো অনেক রকম পরিকল্পনা রয়েছে BABS এর।অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী সকল শুভানুধ্যায়ী দের আমাদের আমন্ত্রণ রইলো।

যোগাযোগ -
সভাপতি: উদয় শঙ্কর বড়ুয়া মহোদয় - 0414 600 519 এবং
সাধারণ সম্পাদক: স্বদেশ বড়ুয়া মহোদয় - 0425 000 131





Published on: 10-Jul-2016


গুলশানে জঙ্গি হামলা
দুই পুলিশ কর্মকর্তা নিহত


Published on: 2-Jul-2016




AUSTRALIA BANGLADESH SPORTS &
CULTURAL ASSOCIATION INC.



Media Report: The general meeting of the ABSCA Inc. was held on 19 June 2016 at Haji Biriyani, 158 Haldon Road, Lakemba. The meeting was attended by 12 team Captains, Vice Captains and Managers. 4 teams has sent their apologies but confirmed their participation in forthcoming cricket season competition.

It was for the first time in community cricket that teams were invited to express their opinion while ABSCA Board members noted their wish list. The team expressed their confidence that the current team of ABSCA members are the right persons to run the community cricket and they are the most capable persons to arrange this prestigious tournament.

The President Nasim Samad introduced the Board members, MJ Alam, Monirul Mitul, Masud Khan, Shamim Mostafa, Shoaib Rony and Masrur Ahsan Siam to all the teams present. The teams present introduced themselves. The meeting was informed that ABSCA Board has decided to invite Mr Morris Iemma, former PM of NSW, Deputy Chair of St George District Cricket Association and currently the Commissioner of Greater Sydney Development Authority to be the Honorary Chairman of the Board. Cricket NSW and Sydney Thunder will be invited to join ABSCA Board as observers. The Board also approved the appointment of Harry Solomon as MD of Kingsgrove Sports to the Advisory Board. There will be more appointment in coming days of prominent businessman, reputed journalist, professionals and high profile identity of Sydney.

The President informed the meeting of the appointment of UBS Accounting as the Accountant of ABSCA and Batallion Solicitors for all legal matters.

Attending teams’ wish list included better fields, umpires, prize money and standalone trophy. The GS Mitul informed that the Champion team will get $3000, Runners Up $2000 and third position $1000. Man of the Match (MOM) in final will be awarded $500. Best Batsman - $500 + Kit Bag, Best Bowler - $500 + Kit Bag, MOM Knock-Out level- $250, MOM Group level - Medal

Treasurer Masud informed that a poll will be arranged to name the tournament. Teams will need to send the EOI (expression of interest) of participation by 2nd week of July 2016. The Treasurer informed the fee will not be more than the current rate.

ABSCA will arrange to celebrate Victory Day 2016 in a befitting manner which will be a first such memorable event for the Bangladeshi community. Mr Babul Chowdhury, Chairman of Advisory Committee of ABSCA will plan and manage the event and the Board will provide all logistic support for the event.

The forward planner includes a grand dinner to be arranged to launch the cricket season, ABSCA will arrange a musical concert with local and overseas artist, arrange net practices at coaching centre with coaches from SCG. Dates will be advised soon.

Teams present highly praised and thanked the Board for first time in community cricket they were given a chance to speak their mind and was happy to cooperate with ABSCA to launch a successful cricket season.



Masrur Ahsan Siam, Executive Board member led the munajat prior breaking of fast. Siam sought the blessing of Almighty Allah and pleaded for his forgiveness for all during the holy month of Ramadan. The meeting ended with a nicely arranged big Iftar, Magrib prayer and sumptuous dinner.

Sd/-
Nasim Samad
President
ABSCA Inc.
Mob: 0433 79 59 68





Published on: 30-Jun-2016


BRAND NEW DHANMONDI APARTMENT FOR SALE
Located near Dhanmondi lake north west facing 6th floor 2200 sq. feet approx. 3 Beds 2 car space lift servants generator security community hall etc. Will suit non resident Bangladeshis living in USA UK Australia New Zealand South East Asia & the Middle East. Full payment will have to be made in Australia.
Please contact E: jr0007@bigpond.com M: 0425 335 064



Published on: 30-Jun-2016


Special announcement about:
"ANZ Properties Bangladesh Night 2016" presented by Listen for will be held on 1st October 2016, Saturday, at the Science theatre, UNSW instead of 2nd of October - Mahmud Emon


Published on: 27-Jun-2016



Open Letter to the High Commissioner




10 June 2016



His Excellency Kazi Imtiaz Hossain
The High Commissioner to Australia for the People’s Republic of Bangladesh




Re: Community Consultation in Sydney on the 1st of June 2016


Dear High Commissioner,

I’d like to join Mr Anisur Rahman from bangla-sydney.com and others in thanking you for the first-time ever community consultation organised by the HC. You might not be remembering me individually but I was present at the meeting and very briefly I proposed for considering a visit to Sydney by the Hon Prime Minister of Bangladesh. In fact, I feel that now that Sydney hosts the largest gathering of the Bangladeshi people in any community event outside Bangladesh and one such gathering is reaching its 25th year in the coming Boisakh, it’d be a genuine expectation that the Prime Minister spends a bit of time with us here in Sydney at that time.

At the meeting I was rather keen to learn the very purpose of the gathering and the facts and figures that you shared with us. I must say, it was quite informative and most importantly, your frank, open and assertive disposition touched my heart. Thanks once again and you deserve personal congratulations.

I commend most of the proposals and suggestions made by distinguished community leaders present at the meeting. Also, I did not want to take-up a lengthy time in raising some items that I’d in my mind. I thought that’d deprive others from sharing their views. I don’t want to repeat those important points here. Instead, I take this opportunity to write this open letter to you. Hope this is ok with you.

Being so closely involved with the Bangladeshi community and also looking at other communities from our neighbouring nations from the sub-continent for the past 20+ years, I feel that time has come for us to consider a few things a bit more seriously; perhaps more strategically. I’ve pointed these out below in no particular order of importance. Some of these items may be already in the minds of the HC but I am not aware of any definitive developments.

I beg your pardon for writing this letter in English. I’m especially keeping in mind Gen-Y and people from non-Bangla background political and alike, who have been already closely associated with or would be interested to get involved with our community here in Australia. I’d be happy to elaborate these points at length and/or discuss at the right forum, should this be needed.

1. Federation of Registered Associations of Bangladesh background
By now there are in excess of 100 registered Incorporated Associations and groups that operate in Australia. Most of whom are naturally in Sydney and Melbourne. Apart from quite a large proportion of these groups engaged primarily in religious or political activities, many have been involved in true socio-cultural and humanitarian services. Whilst I admit that an initiative of a ‘Federation’ or similar has to be taken by the Bangladeshi community itself, nevertheless, the HC can act as a catalyst and encourage making a one-voice that officially and democratically represents the Bangladeshi Community is Australia. This initiative is far too overdue. Most other communities do have this type of body and it acts as a Spokes Agency for that community; at the same time maintains the much needed identity distinction between the community and the HC.

2. Bangladesh House for the community
For a 50-plus thousands of Bangladeshi people living in Australia, a permanent address other than the HC in Canberra, is a logical demand of the time. Again, such an initiative must come from the community but the HC can do its part in inspiring the community as well as seeking avenues of funding potentials for such an address. Though the Boisakhi Mela at the Sydney Olympic Park serves as a ‘destination’ and the International Mother Language Day Monument at Ashfield Park (Shahid Minar) serves as a ‘political address’, don’t we need a ‘home address’ of our own? The community, with assistance from the Australian governments, should be able to fund this.

3. National Monument in Canberra
Sydney has the Shahid Minar at Ashfield Park, which represents all linguistic people in the world, however, most certainly signifying the sacrifices made for Bangla. Canberra can have a National Monument built instead of building another Shahid Minar. I believe it could be inside the HC’s territory and let all Bangladeshis make contributions to build this!

4. Introduction of Bangla as a HSC subject
Amongst four remarkable meaningful achievements that the Bangladeshi community has made in Australia, introduction of Bangla in government education system has been one, along with the Boisakhi Mela, the International Mother Language Day Monument (Shahid Minar) and Good Morning Australia Fund-raising. Despite the community’s last 20 years’ struggle to introduce Bangla as a HSC subject (ATAR or similar), it would be of immense long-term value if the HC can also play its part in running soft diplomacy - where and when possible.

5. E-Visa
E-visa is now an obvious means for many diplomatic missions in Australia and I strongly suggest the HC introduces this as a matter of priority. This can dramatically increase tourism in Bangladesh and help the nation’s economy. The modern Bangladesh being the ‘digital Bangladesh’, e-Visa should be a logical outcome. Digitisation can be a great weapon against any corrupt or undue conducts.

6. Climate Change Adaptation Fund
Bangladesh has been one of the worst affected nations due to consequences of Global Warming, hence Climate Change-induced impacts. I trust, within its diplomatic bindings, the HC can facilitate a (transparent) fund-collection campaign, both from the community at large and the Government of Australia, for this Fund. Billions of dollars would be needed to stop mobilisation of ‘Climate Refugee’ from fleeing the nation. On the contrary, by taking pragmatic mitigation and adaptation measures, this emerging human catastrophe can be avoided.

7. Water and Environmental Management
It’s a pity that a nation that goes under so much of water during monsoon, hardly any of this water is conserved for utilisation during non-monsoon needs. Australia being a ‘dry continent’, have has evolved wonderful tools and techniques in water and environmental management. Could not the HC harness opportunities for borrowing some of the wisdom and knowledge from Australia?

The HC might also examine how might it inspire Australia to take a bolder role in ensuring Bangladesh gets its fair-share of the Ganges flow through Farraka Barrage at the dire times of her needs. Bangladesh’s agriculture, forestry and the culture as a whole, including the very existence of the mighty Sundarbans Mangroves have much to suffer from these unilateral and inhumane water withdrawals. Certainly, international pressures and persistent trans-boundary water dialogues can help alleviate this situation.

8. Solar Technology and Renewable Energy
Australia being the first country that has phased out commercialisation of solar technology; how might Bangladesh borrow some of its knowledge in empowering the rural Bangladesh through a solar revolution! Might the rooves of the country boats, the rickshaws, bullock carts and similar small-scale but numerous outlets harness solar benefits? Along with this, should all educational facilities and government establishments have solar systems on the rooves? I believe, Australia has much to offer in this area.

9. Scholarships and Exchanges
The existing sports scholarship has huge potential to expand in new horizons. The nation that gifted the first Bangalee swimming legend from Asia, Brojen Das (70), to cross the English Channel in 1958; could not it again gift more Brojen? Australia being such a successful swimming nation and Bangladesh having this heritage, I believe there is more to benefit from each other’s’ accomplishments.

Similarly, the uniqueness of the nation’s sacrifice for language and the deep-rooted connection with the first ever Nobel Laureate from Asia Kobi Guru Rabindranath Tagore, literature is a natural ground of huge potential for exchange.

Poverty alleviation prescriptions that are developed in Bangladesh by another Nobel Laureate Prof Mohammad Yonus can be barters for diplomatic exchanges!

Other areas such as agriculture, veterinary, offshore science, supply chain and logistics, judiciary and parliamentary democracy, events management, systems management, health and medicine, forensic detection, electoral processes, women empowerment, domestic violence, tourism, etc are few of many areas where several-times more scholarships that present could be demanded from Australia.

10. Identity Crisis
My personal observation has been that many of the second generation migrant Bangladeshi youth in Australia find it hard to relate themselves to Bangladesh. I believe it’s mainly an image issue. They see Bangladesh as a nation of unrest, unruly, anarchy, corruption, inequality, chaos, environmentally degraded, economically backward and, above all, a corridor for natural calamities. Unfortunately, added to these have been some poor choices that some Bangladeshis happen to make here in Australia in displaying their national and cultural identities, which have made this image situation even worse. Perhaps, only Cricket saves us at the moment!

Actually, a willingness to relate with Bangladesh by especially religiously minor second generation migrant Bangladeshi youth is alarmingly low. It’s a shame.

My claim is, neither the community nor the HC has been doing anything fruitful to improve this situation. This is frustrating! We need to construct new bridges between these generations and I believe the HC can help changing these images.

11. Fifty-50 Milestone
Finally, I believe, Bangladesh has been given a wonderful cause to try to turn around and change its fortune and image, by utilising the year 2021 as a milestone, when she will celebrate her 50th Birthday. Could the nation take just 50 achievable targets that can truly change the nation and at the same time improve the world’s view about Bangladesh. One way could be by making sure that through all her HCs and other spokes-avenues, she invites rest of the world to celebrate with her this remarkable day. Another way could be by inviting the world to visit Bangladesh and part-take in her progress and prosperity in any way they can.

However, before inviting others, Bangladesh needs to demonstrate that it has the institutional, political and genuine commitments as well as mechanisms in place towards the Turn Around. It has five years to do this. Not only that, let it draw down a roadmap for the coming 50 years, with specific targets for each five-year block!

I believe, all expatriate Bangladeshis, including those in Australia, would be willing to do their bits in attaining this remarkable milestone.

Thank you Mr High Commissioner.


Yours sincerely,


Dr Swapan Paul
Sydney, Australia
swapanil@yahoo.com
Ex-President, Bangla Prosar Committee Inc
Ex-President, Bangladesh Society for Puja & Culture Inc
Ex-Advisor, Migrant Resource Centre Parramatta
Vice-President, Ekushe Academy Australia Inc
Convenor, Bangladesh Environment Network (BEN) Sydney




Related article by Mostafa Abdullah



Published on: 19-Jun-2016


Cricketer Recruitment
OZNSU Cricket, One of the leading Sydney based Bangladeshi cricket team is looking for talented players...Details......


Published on: 16-Jun-2016


Good Morning Bangladesh Raised $23800

Bangladesh community held their annual fund raising program, Good Morning Bangladesh, in Blacktown, Ingleburn, Lakemba and Mascot on 1st, 8th, 15th and 22nd of May 2016. This is part of Australia’s Biggest Morning Tea to raise funds for the Cancer Council of New South Wales. A total of $23800.00 was raised.
- Dr Abdul Haq

Money raised by year... Graph

Published on: 5-Jun-2016


BRAND NEW DHANMONDI APARTMENT FOR SALE
Located near Dhanmondi lake north west facing 6th floor 2200 sq. feet approx. 3 Beds 2 car space lift servants generator security community hall etc. Will suit non resident Bangladeshis living in USA UK Australia New Zealand South East Asia & the Middle East. Full payment will have to be made in Australia. Please contact E: jr0007@bigpond.com M: 0425 335 064


Published on: 30-May-2016



Mascot


Published on: 20-Apr-2016


''Listen For'' Announces
Bangladesh Night 2016


Published on: 16-May-2016




Just 1 year old Bangladeshi community organisation in Sydney, ''Listen For'', announces a grand show....Bangladesh Night 2016 !





Published on: 16-May-2016


Syeda Nazneen Hyder Passed Away
Mrs Syeda Nazneen Hyder,wife of Mr F.Q.M.Farooq (Former Chairman, T&T Board, Bangladesh) of Blacktown passed away yesterday, 13th May, 2016 at 10:45am at the palliative care unit of Mount Druitt Hospital (Inna Lillahi Wa Inna Ilaihi Rajiun). She has been suffering from Cancer for last 6 years. She was 62. She left her husband, one son and a daughter. She was involved in different community activities. She was Principal of the Bangla School, Blacktown run by Bangla Academy, Australia. We pray for her departed soul and express our heartfelt condolences to all the members of her bereaved family. Her Namaj-e-Janaza will be held tomorrow, Sunday at Rooty Hill Mosque after Zuhr Prayer. Zuhr prayer is at 12:45pm. Following Janaza, her body will be taken to Riverstone Cemetery (Garfield Road West) for burial. - Amit Farooq (Son)


Published on: 14-May-2016



Lakemba Mascot


Published on: 12-Apr-2016


সিডনিতে মর্মান্তিক দুর্ঘটনায়
বাংলাদেশী ডাক্তার নিহত


Published on: 13-May-2016


এই লিংক থেকে SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন



সিডনিতে মর্মান্তিক দুর্ঘটনায়
বাংলাদেশী ডাক্তার নিহত



কাজী সুলতানা শিমিঃ ওয়েস্টার্ন সিডনির রুটি হিলস-এ নিজ গাড়ীতে চাপা পরে গত ১২ই মে বাংলাদেশী ডাক্তার ডঃ গোলাম তৌফিক মর্মান্তিকভাবে মৃত্যুবরণ করেন (ইন্না লিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজিউন)। ঘটনার বিবরণে প্রকাশ ডঃ তৌফিক তার স্ত্রী ও দুই সন্তানকে নিয়ে তার বন্ধুর বাসায় বেড়াতে যান এবং বন্ধুর বাসার সামনের ড্রাইভওয়েতে তার টয়োটা কেমরি গাড়ীটি পার্ক করেন। গাড়ীর পেছনের সিটে ছিলেন তার স্ত্রী ও দুই সন্তান। গাড়ী থেকে বের হবার পর তিনি লক্ষ্য করেন হ্যান্ডব্রেক না তোলার কারণে গাড়ীটি ঢালুতে নামতে শুরু করে। এমতাবস্থায় তিনি গাড়ীটিকে থামানোর চেষ্টা করেন কিন্তু ড্রাইভওয়ে ঢালু থাকার কারণে থামাতে ব্যর্থ হন এবং তিনি নিজেই নিজ গাড়ীর নিচে চাপা পড়েন।

প্রতিবেশীরা তৎক্ষণাৎ গাড়ী চাপা পরা অবস্থা থেকে তাকে উদ্ধার করার চেষ্টা করেন। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত: পুলিশ ও এ্যাম্বুলেন্স পৌঁছানোর আগেই তিনি মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৪০ বৎসর। তিনি মেলবোর্নে জেনারেল প্র্যাকটিসনার (GP) হিসেবে কর্মরত ছিলেন। সিডনীতে তার পরিবার বসবাস করায় প্রায়ই তাকে মেলবোর্ন-সিডনি আসা যাওয়া করতে হতো। প্রবাসী বাংলাদেশী চিকিৎসক সংগঠন ও বাংলাদেশী স্থানীয় কমিউনিটির সকলে তার এই অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেন।





Published on: 13-May-2016



Ingleburn Lakemba Mascot


Published on: 12-Apr-2016



Australia Bangladesh Business Council (ABBC)
Press Release


The 11th Annual General Meeting of the Australia Bangladesh Business Council (ABBC) was held on 10 April 2016.


The newly elected members of the Executive Committee for 2016-18 are as follows:

Chairperson: Mr. Monirul Islam
Vice Chairperson: Mr. Foez Dewan
Secretary: Mr. Asif Kawnine
Assistant Secretary: Mr. Javed Hoque
Treasurer: Mr. Kamrul Islam
Executive Members:
Mr. Areef Sheikh
Mrs. Nipa Dewan
Mr. Abdul Hoque
Mr. Ashrafi Mian
Mr. Mohammad Zaman
Mr. Nirmalya Talukder

The members who attended the annual general meeting unanimously appointed the Hon John Dowd AO QC as the Patron of ABBC. John Dowd is a former Justice of the Supreme Court of New South Wales, and former Attorney-General and Leader of the New South Wales Opposition. He holds a number of appointments within Australia and internationally.

The Australia Bangladesh Business Council thanks all its members for their continuing support, and looks forward to working even more closely with all businesses, corporate and trade bodies in both Australia and Bangladesh.

For more information, please visit www.abbc.org.au.

Asif Kawnine
Secretary
Email: info@abbc.org.au




Published on: 4-May-2016



Blacktown Ingleburn Lakemba
Mascot


Published on: 18-Mar-2016






Published on: 20-Apr-2016






Published on: 12-Apr-2016


Australia Bangladesh Business Council
NOTICE OF ANNUAL GENERAL MEETING


Published on: 28-Mar-2016


Bangladesh Gold Cup
Cricket Final 2016

Nasim Samad


Published on: 6-Apr-2016






Published on: 6-Apr-2016



Bangladesh Gold Cup
Cricket Final 2016



Bangladesh Gold Cup Cricket grand final was played between Sydney Burner and Western All Stars at Blacktown International Sports Park (Oval 2), Rooty Hill on 13 March 2016.

This year final was a celebration of 20th year of the tournament which started in 1996 as a family gathering in a park, where the newly arrived shared their stories about settling in Australia, the ladies brought cooked food and the boys in their early teens played cricket.

20 years on it has grown in a GRADE A competition being played in the best fields, qualified umpires, electronic scoring, full coloured dress. The tournament can boast of its presence in Facebook, Twitter and webpage keeping pace with the modern digital platforms.

A spectacular opening ceremony was held with fanfare. Crew members from Cricket Australia (CA) and CNSW covered the opening. The tournament manager Craig, both the captains, organiser and our wonder boy U12 Rahid Alam was interviewed included the pioneers of the tournament was recorded by the crew. A large crowd was present to reminiscence how this tournament has grown in last few years which is now considered the only cricketing event in the community calendar.


Congratulations to this year champion Sydney Burners as they convincingly beat Western All Stars to win the champion trophy. Both teams deserves our appreciation.

The presentation ceremony and trophies were handed over by Mr Morris Iemma, former Premier of NSW and deputy chair of St George Cricket Association, Mr Shahadat Chowdhury, Councillor, Parramatta Council. Mr Raj Datta, Councillor, Strathfield Council, Mr Criag McLean, Manager Western Division, CNSW, Mr Hans de Konning, Fan and Community Engagement Manager, Sydney Thunder who are this year double KFC T20 BBL champions. The award ceremony was presided by AK Fazlul Haque Shafique, President BANSW Inc. along with EC members and Past Presidents of the Association. Others present were Rahmatullah of Bidesh Bangla, Srabon of RTV and Dr Nargis Banu of Voice of Bangla, we are happy to note there was a good presence of other community members to watch the cricket match.


Ash Ahmed, Ash Haque, Rony Haq, Pushkin Rahman and Bablu Chowdhury has been awarded for their active participation till date as players. Others awarded were Ayesha Mira for the web design, Mitul Haque for organizing the umpires an updating the scoring apps, Masrur Ahsan Siam as the Admin for Facebook page and Shamim Mostafa for the webpage and constantly keeping it updated.

All present and the guests were full of praise for the organising committee for arranging such a well organised final in one of the elite ground in Sydney which proved that our cricketing effort is gathering pace and we are moving forward and hoped that our boys will find a place in NSW teams.


Nasim Samad
Bangladesh Gold Cup Organising Committee











Photo: Courtesy of ADIZ PHOTOGRAPHY






Published on: 6-Apr-2016


এই লিংক থেকে SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন



পচ্চা
নুসরাত সুলতানা


মন ভাল নেই আজকে আবার জ্বলছি থেকে থেকে।
কারন সে তো বোঝাই বোঝাই বলবো ক’টা ডেকে?
বাংলা হলো ইংরেজি আর হিন্দি মিশে কালো,
হাঙ্গামাতেও বলছে মানুষ “বেশ করেছো ভালো”।
নেইকো আদব,নেইকো কানুন হোক সে ছোট বড়,
চোর সাধুরে উল্টো বলে,“হিসেবটা ঠিক কর”।
রাজনীতিতে টাকার পাহাড় গড়ছে সবাই পাপে,
শৈশবে আর নেইতো সে সুখ কোচিং স্কুলের চাপে ।
যানজটেতে কাটছে সময় অধিকটা রাজপথে,
গাড়ির ভাড়া আকাশ ছোঁয়া স্বল্প হলে রথে।
আবর্জনা হয়না তোলা রাস্তায় তার স্তূপ,
দিন-রাত্রি এই শহরে জ্বলছে ধূলার ধূপ।
ফেসবুকেতে চলছে লেখা নয়তো অবসরে,
বিদেশী সব পণ্যে বাজার যাচ্ছে ভরে ভরে।
হারিয়ে গেছে ভালবাসা,হারিয়ে গেছে মায়া,
শোনার কারও ধৈর্যটা নেই, ভদ্রতারও ছায়া।
বাড়ছে অসুখ, কমছে কামাই, যাচ্ছে টাকা গচ্চা,
দিন শেষে তাই বলছি রোজই দিনটাই গেলো পচ্চা।



নুসরাত সুলতানা, ঢাকা



Published on: 5-Apr-2016




Dear Imran,

Tomar sundor lekhar jonno onek dhonnobad!

I feel encouraged by your notes on the bangla-sydney.com. Your notes are timely because they come at a crucial juncture when the percentage of uptake of institutional learning of Bangla by kids in Sydney (or Australia for that matter) is lower than before at the same time the number of formal institutions for teaching Bangla in Sydney has been the highest. You may wonder why I had to make the above remark! Well, in case you are not aware, alongside quite a few community schools that run on Sundays and partly supported by the NSW Government, the Government itself runs Saturday schools for Bangla. Such classes have been running for the last 10 years but with very minimum number of students. Will you believe, Imran, that just because of a shortage of two students, one of the two centres (the Dulwich Hill centre) will most likely be closed soon. Further, between both the centres, we need only 20 regular students of yr 7-10 to learn Bangla for 2.5 hours only on Saturdays.

My sincere hope is your writing should inspire kids to learn Bangla in both formal and informal ways. Perhaps, it’s the parents to be inspired more than their kids. I seriously wish that the community schools, such as those on Sundays, run well and are well attended, and also we see recruits from these schools to the Saturday School centres. Then, we, I imply Bangla Prosar Committee Inc, the community group that has been liaising with the NSW Government regarding Saturday School, can request the Government to introduce Bangla as an elective subject at HSC. When added, the grace marks could acutely help one’s ATAR for better admissions at higher degree studies.

See Imran, out of more than 40,000 Bangladeshis now living in Australia and additional 20,000 Bangla-speaking people from West Bengal, we have been struggling to manage just 20 students! I hope this picture changes due to your notes and also hope that when you reach that stage, you will continue your learning Bangla and go to Saturday School.

You may wonder why parents are not inspiring their kids to learn Bangla! Well, some of them do learn at home. But most don’t. Their parents think that their kids must only learn English and need not communicating in Bangla, as it might be an extra pressure on their kids. Such parents try to communicate primarily in English (I mean the English of their standard; often sub-standard) and in effect, end up confusing such kids. Rather, at home they should only communicate in Bangla from the very childhood and that would help them learning the language as well as building a desire to continue formal learning at schools. In addition to just learning the language at formal institutions, a formal learning gives them the certificates that they may need one day for employment and other purposes.

Perhaps one of the main reasons of such an inertia has been a lack of awareness of the likely benefits of learning Bangla in Australia. Apart from the cognitive, cultural and other benefits, there are real potential for the Australian graduates to enter in to Australian/Bangladeshi businesses. I can share my wife’s frustrations with you in that since she does not understand Hindi at all she dearly misses watching Bollywood films! Her agony is heart-breaking!

Guess who will Australian businesses, such as Woolworths, First State Super, Australian banks, Australian companies that import garments from Bangladesh, Australian Ambassador to Dhaka, an Australian university opening a campus in Bangladesh, and so on, will prefer to employ as the head of their business in Bangladesh? Definitely look for him/her who is an Australian graduate and trained in Australia but can communicate in Bangla.

Imran, if you are not aware, the first Bangladeshi-British who was appointed as the British High Commissioner to Bangladesh was Mr Anwar Choudhury during 2004-2008. The irony is, when he was bomb attacked in Sylhet, he was able to save his life only because he could speak Bangla, and most probably Sylheti dialect as well.

As recently as last month the newest Australian Ambassador to India is an Indian-Australian – Ms Harinder Sidhu. Mr Peter Varghese was her predecessor and also of the same origin. And, both of them communicate well in their respective mother languages. Another Australian-Indian Ambassador is currently posted in Israel. These are merely a handful of examples.

Then, how about Bangladeshi-owned and rapidly growing businesses in Australia? Who would be their preference if there are two candidates for a top job and both are equally capable except that one can communicate in Bangla? Likewise, recently in many Medical Centres in Sydney, there has been a serious hunt for Doctors (GPs) from their ethnic backgrounds and those who can communicate in their mother languages.
Then comes literature. Bangladesh although such a small nation, the second largest volume of literatures in the world are in Bangla. Many Bangla-speaking writers have been prolifically writing world-class literature, purely because of their ability to communicate in Bangla.

Trust me, when you become a graduate, your employment prospect will be much higher than your Bangladeshi peers who do not speak Bangla. As simple as that. Further, because you can communicate in at least Bangla and English, if you wanted to learn another language you will pick it much quicker than others!

If I may join with your urge to the Bangla-speaking Australian parents, who have school-going kids, please consider formal learning of Bangla by your kid. You will not regret; rather the contrary is a strong possibility.

Thanks once again Imran, for your courage in freely sharing your inspiring views.

Bhalo theko!

Dr Swapan Paul (swapanil@yahoo.com)
Ex-President of Bangla Prosar Committee Inc.




Published on: 2-Apr-2016




Dr. Mohammad Selim Appeal
Your Contribution can save a life



Dear All,

I am Dr. Shajeda Akhter graduated from BAU as a Veterinary graduate in 1981. I got married to Dr. Mohammad Selim, who is also a veterinary graduate in 1980. At the moment my husband is in death bed fighting to thrive for life. I need your generous help to save his life. By this time many of my fellow colleagues and well wishers helped me but the amount is not sufficient to cover his medical expanses.

On 17/09/2015 my husband encountered a serious road accident and was admitted to Lab Aid hospital at Dhaka. During his treatment he got a massive heart attack and was taken to the ICU. All follow up tests including angiogram has been performed and intensive treatment measures were taken. But unfortunately his condition was deteriorating day by day and hence immediately transferred to Square hospital on 27/09/2015 for improved treatment. After thorough investigation at Square hospital it was confirmed that he acquired another fatal disease named Guillain-Barre syndrome(GBS) and put into life support once again. On 01/11/2015 he was again shifted to Bangabandhu Sheikh Mujib Medical University Hospital (Formar PG Hospital) at Sahabag, Dhaka, ward: HDU, Bed No. 1 (Cabin block)

I have spent all the money I had in savings, contributions form friends and relatives, ornaments and lands to save his life. I already spent about 40 lacs taka and as per doctors predictions I would need another 40-45 lacs taka to pursue for further treatment In this circumstance I don’t have any other alternate way other than seeking help from the fellow agriculturist living abroad. I heard that you have contributed a lot for this type of humanitarian acts before. I would, in this circumstance request your good self to help me with money and dua to save my husband from this acute condition.



Thanking you

Kiund regards

Dr. Shajeda Akhter
Assistant Director
Directorate of Livestock Services
Krishi Khamar Sarak, Dhaka
Bangladesh
Phone: +8801917607916
E-mail: shajedaakhter@gmail.com

Bank Details

A/C No. 0200002574401
Agrani Bank
Agamoshi Lane
Dhaka
Bangladesh

In Australia please make your contribution to the following accounts:

Dr. Ratan Kundu
CBA Cheque A/C
Pagewood Branch
BSB No. 062439
A/C No. 10283130

Contact No. 0438 215 020
rlkundu@yahoo.com

(Please type your name followed by Dr. Selim appeal if you make an electronic transaction.)








Published on: 29-Mar-2016


এই লিংক থেকে SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন



আবেগ নয় আত্মশুদ্ধিতে
শাণিত হোক স্বাধীনতার চেতনা

কাজী সুলতানা শিমি


আমরা জানি যে, ১৯৭১ সালের ২৫শে মার্চের কালো রাত্রিতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী নিরীহ ও নিরস্ত্র বাঙ্গালির উপর অতর্কিত আক্রমণ করেছিলো। তাই ২৬শে মার্চ থেকে বাংলাদেশ একটি স্বাধীন রাষ্ট্র বলে ঘোষণা হয়। ২৬শে মার্চ বাংলাদেশের ইতিহাসে শ্রেষ্ঠতম দিন। পৃথিবীর মানচিত্রে আমাদের স্বাধীনতার ও স্বকীয়তার আত্মপ্রকাশের দিন। বাঙালির অর্জনের দীর্ঘ পথ-পরিক্রমার প্রথম উদ্দেশ্য ছিল ভৌগোলিক স্বাধীনতা, যা আমরা একাত্তরের ২৬শে মার্চ নিজেদের স্বাধীন বলে ঘোষণা লাভের মাধ্যমে অর্জন করেছিলাম। এ ছিল অর্জনের শুরু। অর্জনের দীর্ঘ পথ-পরিক্রমার এখনো অনেক বাকি। সত্যিকার অর্থে ভৌগোলিক স্বাধীনতাই একমাত্র স্বাধীনতা নয়। স্বাধীনতা মানে অর্থনৈতিক ও সামাজিক মুক্তি যা আমরা এখনো পাইনি। আর প্রকৃত অর্থে সে গন্তব্য এখনো বহুদূর।

দেশে দেশে যুদ্ধ হয়, জয় পরাজয় ও হয়। সেই জয়ের গৌরব মহিমান্বিত হয় পরবর্তী সাফল্যর মাপকাঠিতে। সামাজিক ও অর্থনৈতিক মুক্তিতে। শুধু কটাক্ষ ও উস্কানিমূলক বাক্যবাণে নয়। একটি সভ্য জাতি রূপে বিশ্ববাসীর কাছে নিজেদের তুলে ধরতে প্রয়োজন স্থিরতা ও অধ্যবসায়। নৈতিক ও মানসিক সমৃদ্ধি। মূল্যবোধ ও সামাজিক সচেতনতা। ঘৃণা দিয়ে ঘৃণা মোছা যায়না বরং ক্ষমা করে মহানুভবতার পরিচয় পাওয়া যায়। তাই ঘৃণা ও শোক যেন শক্তি ও সাফল্যর প্রতীক হয় আমাদের সে চেষ্টা করা দরকার। স্বাধীনতা দিবস মানে কেবল সভা, সেমিনার ও অনুষ্ঠান করেই ক্ষান্ত দেয়া নয়, বরং প্রতি স্বাধীনতা দিবসে আমাদের প্রয়োজন নতুন করে নিজেকে উজ্জীবিত করা। চিন্তা ও মানসিকতায় দেশাত্মবোধকে নতুন করে শাণিত করা। কেবল আবেগ নয় দায়িত্ব ও বাস্তবতা থেকে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার সংকল্প করা। চলে যাওয়া সময় গুলোতে কেবল সরকার ও রাজনৈতিক দলগুলোকে পরস্পর দোষারোপ, ঘৃণা আর কটাক্ষ করার কারণে দেশের উন্নতিতে আসলে দুই পা এগিয়েছি তো এক পা পিছিয়েছি। এখন আমাদের প্রয়োজন আত্মশুদ্ধির অনুশীলন। শোককে শক্তিতে পরিণত করতে হবে। ঘৃণাকে সাফল্যে রূপান্তরের ইতিবাচক পদক্ষেপেই সম্ভব নিজেকে শুদ্ধ করা। আমাদের প্রয়োজন নতুন প্রজন্মের কাছে আগামীর ভাবনাগুলো তুলে ধরা। বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। একই ভূখণ্ড ও একই ভাষাভাষীর মানুষ আমরা; এই চেতনা নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার সময় এসেছে। সময় এসেছে বিভাজন মুক্ত বাংলাদেশ গড়ার। আমরাই পারি ছোট ছোট চেষ্টা দিয়ে বড় বড় সাফল্য অর্জন করতে। আর এজন্য প্রয়োজন সম্মেলিত উদ্যোগ।

একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের অর্জন এ জাতির শ্রেষ্ঠতম অর্জন। কিছুসংখ্যক বিভ্রান্ত মানুষ ছাড়া সবাই এজন্য সংগ্রাম করেছেন, সহ্য করেছেন সীমাহীন যন্ত্রণা। কিন্তু লক্ষ্য অর্জনে দৃঢ়-সংকল্প ছিলেন সবাই। সেজন্যই অতি অল্প সময়ের মধ্যে এত বড় অর্জন সম্ভব হয়েছে। বৃহৎ অর্জনের জন্যে ঐক্যবদ্ধ জাতীয় উদ্যোগের কোনো বিকল্প নেই। এমন বৃহৎ অর্জনের পর একটি নতুন জাতি হিসেবে আমাদের দায়িত্ব অনেক। সময়ের আবর্তে বিভিন্ন পরিস্থিতিতে জাতীয় ঐক্য খণ্ড-বিখণ্ড হয়েছে, বিভক্তি এসেছে চেতনায়। জাতীয় লক্ষ্যও অনেক সময় ম্রিয়মাণ হয়েছে। তারপর ও আমরা থেমে নেই। অনেক ক্রান্তিকাল আমরা উৎরে এসেছি আমাদের দৃঢ়তায়। এখন সময় এসেছে নিজেদের স্খলন, পতন ও ত্রুটি উপলব্ধি করা এবং শোধরানোর সঠিক পথে অগ্রসর হওয়া। পারস্পরিক দোষারোপ নয়, এ জন্য প্রয়োজন আত্ম-সমালোচনা। মুক্তমন নিয়ে আত্ম-সমালোচনার মাধ্যমেই আত্ম-সংশোধন সম্ভব। আত্মতুষ্টি নয় বরঞ্চ আত্ম-সমালোচনার মাধ্যমেই কেবল দেশের সার্বিক অগ্রগতি সম্ভব। দেশের বৃহত্তর স্বার্থে আমাদের সকলের এ আত্মত্যাগ এখন ভীষণ প্রয়োজন।

আমরা যারা দেশের বাইরে থাকি নানা উদ্দীপনা, উৎসব ও আয়োজনের মাধ্যমে বিজয়ের আনন্দে উদ্ভাসিত হই। এ আয়োজন ও উদ্যোগ দেখে এখানে জন্ম নেয়া নতুন প্রজন্ম ও ধীরে ধীরে এর চেতনা ও ইতিহাস সম্পর্কে অবহিত হচ্ছে। তাদের কাছে এই বার্তা প্রকাশের দায়িত্ব আমাদের সকলের। আর এ দায়িত্বের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো যথাসম্ভব দেশীয় সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য পালন। আর সে লক্ষেই আমাদের নতুন প্রজন্মের কাছে ১৯৭১ এর বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার ইতিহাস, দেশীয় সংস্কৃতি, মুক্তিযোদ্ধাদের বীর-গাঁথা ও দেশীয় কৃষ্টি তুলে ধরা দরকার। কিন্তু তা শুধু আবেগ দিয়ে নয় আত্মশুদ্ধি দিয়ে নতুন করে পথ চলার ক্ষেত্র তৈরি করা। শোক যেন শক্তিতে পরিণত হয়, ক্ষুব্ধতা যেন ইতিবাচক উত্তরণের প্রদর্শক হয় স্বাধীনতা দিবসে সেটাই হোক আমাদের নতুন অঙ্গীকার।

মার্চের এই স্বাধীনতার উৎসব বাংলাদেশ তো বটেই সারা বিশ্বে ছড়িয়ে থাকা বাংলাদেশি তথা সমগ্র জনসমষ্টির সার্থকতা ও গৌরবের উৎসব। আমাদের জাতীয় জীবনের সবচেয়ে গৌরবদীপ্ত অধ্যায় রচিত হয়েছে বলেই মার্চ এলে আমরা প্রত্যেকেই অনুভব করি দেশের জন্য এক অন্যরকম অনুভূতি। পুলকিত হই এক অনির্বচনীয় আত্মবিশ্বাসে। এক অভূতপূর্ব অনুভবে। এ মাসটি বাংলাদেশের জনগণকে উদ্দীপ্ত করেছিল মানবিক মর্যাদা এবং সামাজিক ন্যায়পরায়ণতার নিশ্চয়তা বিধান ও একটি স্বাধীন সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্র প্রতিষ্ঠায়। একটি স্বাধীন ভূখণ্ড, একটি নিজস্ব পতাকা একটি স্বতন্ত্র আত্মপরিচয় অর্জনের জন্য দেশের সর্বস্তরের জনগণ জীবন বাজী রেখে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল মরণপণ যুদ্ধে। তাই দেশাত্মবোধের তাগিদে পারস্পরিক নিন্দা ও সমালোচনা ভুলে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র প্রচেষ্টায় ও ব্যক্তিগত উদ্যোগে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে বহুদূর। আর এভাবেই যদি আমরা এগিয়ে যাই, তবেই পৃথিবীর যে কোন ভূখণ্ডে বাংলা সংস্কৃতির পত্তন সম্ভব। কিছু ব্যক্তিগত উদ্যোগে হলেও আমদের সমৃদ্ধ ইতিহাস আর অনেক তিতিক্ষায় পাওয়া স্বাধীনতার আনন্দটা অন্তত নতুন প্রজন্মের চিন্তা চেতনা ও মননে জাগ্রত করা দরকার। স্বাধীনতা দিবসে বিশ্ববাসীর কাছে বাংলাদেশকে নতুন ভাবে পরিচয় করিয়ে দেয়ার প্রয়াসই হোক আমাদের আগামীর পথচলা। তাই বৃহত্তর স্বার্থে শুধু আবেগ নয় আত্মশুদ্ধি দিয়েই শাণিত হোক স্বাধীনতার চেতনা।



কাজী সুলতানা শিমি, সিডনী



Published on: 25-Mar-2016


আবেগ নয় আত্মশুদ্ধিতে
শাণিত হোক স্বাধীনতার চেতনা

কাজী সুলতানা শিমি


Published on: 25-Mar-2016






Published on: 18-Mar-2016




Protitee presents:
Enchanting Sarod: Celebrating 46th Independence Day of Bangladesh


Protitee invites all to the first ever concert of Ustad Shahadat Hossain Khan in Sydney. He will be accompanied by Ustad Yousuf Ali Khan (UK)

Ustad Shahadat Hossain Khan belongs to world famous Seniya Maihar Gharana and is the son of Legendary Musician Ustad Abed Hossain Khan. Shahadat Hossain Khan is the Nephew of great Sarodia Ustad Bahadur Khan and grand son of Ustad Ayet Ali Khan (Younger brother of Ustad Baba Allauddin Khan).

Ustad Yousuf Ali Khan is the proud disciple of Pandit Shankar Ghosh.

This concert has been organised by Protitee in memory of great Sarodia Late Pandit Ashok Roy.



Published on: 18-Jan-2016




You Tube Innovation
Md Masudul Huq


In 2005 Three young friends launched you tube in California. It became a popular site; founders are Steve Chen, Chad Hurly and Jawed Karim. They developed you tube to share videos quickly and easily. The site started growing quickly when Heinz and Peterson uploaded their weeding videos. The videos started spreading through Facebook, Twitter, print media and Television news. It went viral, spreading like a virus. More and more people using it everyday.

Steven Chen born in Taipei, Taiwan in 1978 and his father was a successful businessman in Taiwan who expanded his business in Chicago, USA. Steve was 8 years old only at that time. Chad Hurley was born in Pennsylvania USA in 1977. Jawed Karim was born in 1979 in East Germany. His father is of Bangladeshi origin. Both father and mothers were scientists. His father Naimul Karim was a Bangladeshi chemist employed in 3M Company in USA. His mother Christine was German professor of Bio Chemistry. Karim was interested in science from his childhood. As a boy he spent many hours in her mother’s laboratory while she used to take classes.

Steve , Chad and Jawed came up with an idea for a web site that would make sharing home videos easier. They needed one office to work and decided to start in Chad's garage. They established a company called You Tube LLC and registered a domain. Within a short time youtube .com was up and started running with a test version of the site. The site’s first video ``ME at the zoo’’ was posted on April 23, 2005 which was only for 18 seconds. It featured Karim in front of the elephants' enclosure. The trio then started working to improve their creation. They added different features to the site. Users now able to add their videos by a simple copy and paste and share it with any one they want.

By December 2005 users worldwide would quickly made it an internet phenomenon. Karim did not want any title, salary or benefit from the company. He rather acted as an adviser. Karim began his studies at the University of Illinois at Urbana-Champaign but postponed completing his bachelor’s degree. He was offered a job at PayPal Company in California where he together with Chad Hurley and Steve Chen developed an idea that affects countless computer users around the world. In January 2006 about 5 million visitors accessed the site, in May 20 million, in July more than 30 million visitors.
When it started expansion like a virus Google wanted to buy it. On October 9, 2006, Google purchased You Tube for $1.65 billion in stocks. Both Chen and Hurly received $300 million worth of Google stocks in the deal. Karim received $66 million in Google stocks. You tube was used in USA and UK for mobilizing opinion of people during election, for advertisement, music, videos etc.

After leaving You tube, Karim became a student at Stanford University in northern California. He completed his Masters in Computer science there and now working towards a doctoral degree. In 2009, Karim cofounded youniversity ventures with Kevin Hartz and Keith Rabois.

Stev Chen, Chad Hurly and Jawed Karim’s creation continues to touch the lives of countless people worldwide. A good environment, Positive attitude, guidance and dedication to the purpose led them to their goal.



Ref: you Tube, Technology pioneers


Md Masudul Huq, Woodcroft, Sydney



Published on: 16-Mar-2016




New poster added


Published on: 19-Feb-2016





Published on: 19-Feb-2016


এই লিংক থেকে SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন



Ageing
Atiq Rahman


Australia has one of the highest ageing populations in the world. The population aged between 65 and over has gradually increased from 10.5% in 1986 to 14% in 2011. This figure will gradually increase to nearly 22% by 2030 with the substantial contribution by the ‘Baby Boomers’ generation. Who are baby boomers? The people who were born between 1941 and 1961 are called baby boomers. Among this aging population, around 200,000 people are retiring every year. According to Dept Human Services, it paid $41.6 billion aged pension in 2014/2015 financial year compare to 39.5 billion in 2013/2014. Around 77% of Australian aged over 65 receives aged pension or some kind of income support from the government after retirements.

This creates a huge burden on Australian taxpayers; therefore, the government is gradually increasing the qualifying age for aged pension. In current arrangement, the retirement age to qualify for aged pension is 65 if you were born before 1st of July 1952. This figure gradually increases to 67 years if you were born on or after 1 January 1957. However, there is no fixed retirement age in Australia; you can retire whenever you like; only catch is you cannot touch your super fund or claim aged pension until you reach to retirement age. The qualifying age for retirement is also based on year of birth.

Generally, qualifying age to retire is between 55 and 59 years. If you choose to retire between 55 and 59, you cannot get full pension or superannuation benefits until you reach 60. Also you cannot work more than 10 hour per week if you decided to come back to work force after retirement. On the contrary, if you retire on or after 60, you will be eligible to get full pension and super benefits as well as you are eligible to work full time if you decided to come back to work force. This is a policy paradox; it demonstrates that the government is pushing ageing population to remain in the work force more years at later stage of their life.

It is commendable to see that the Bangladesh community in Sydney have been active lately with their ageing populations. They formed senior citizen forum 50+ and working together to buy land to build nursing homes or aged care facilities in Sydney; these are all good news. This paper aims to shed some light, in line with the community initiatives, on how the ageing population of the community can achieve better outcomes.

Retirement can be a daunting prospect as we head to later stages of our life. We are needed to make some life changing decisions; such as where to live, how to manage our assets, how to get access to government benefits, who to ask to look-after us when we are too frail to look after ourselves and so on. Therefore, we need to think through these issues carefully and diligently at our retirement. We might need to make some necessary arrangements to live peacefully in our old age.

Accommodation:
Accommodation can be a big issue in our very old age. Most elders want to live in their own homes without moving in to nursing homes, retirement village or aged care facilities. The reasons behind as no one want to live suddenly to an unfamiliar environment or lose the comfort of living surrounded by their loved ones. However, these wishes are not always easy to achieve. The home they have been living in their whole life can be too cumbersome in old age. For examples, homes can be too big or have stairs, be too far from doctors, pharmacists, and day-to-day services. The garden can be too big to manage; the house may need significant modifications to suit the personal needs in old age and that modification can be too expensive. So, moving into nursing homes or an aged care facility can be viable alternatives. We need to think carefully and thoroughly about where we want to spend most of your retirement as well as the later stage of our life. Going back to native country Bangladesh is an option, however, there is no reciprocal Medicare or Social Security arrangement between Australia and Bangladesh. So, this can be an issue in our old age. Good news, there is community movement underway to form a bilateral agreement for reciprocal social security arrangement between these two countries similar to some European countries like UK and Ireland. Until such time and we succeed it is not a viable alternative.

Aged Pension:
We need to bear in mind that to qualify for aged pension is means tested. Any assets except your primary residence can be means tested for receiving government benefits. So, if you have substantial assets such as investment property, boats, luxury cars, and liquid assets such as cash, bonds and shares; you are better off divesting these assets five years prior to your retirement. You can divest or distribute your assets among your heirs, this way you can preclude yourself from these assets from being means tested and be eligible to get government assistance as a retiree. However, if you are desperate to live in your own home in your old age without divesting and you are asset rich and cash poor, you can put your house on “Reverse Mortgage” with bank. Reverse Mortgage is a large topic and outside of the scope of this paper. I shall endeavour to write about it at a later date. It is always advisable to seek financial advice from a qualified financial planner before making any financial decision. Most super funds provide free financial advice for their members through qualified financial planners.

Will:
Will is a legal document that sets out how you want your assets distributed according to your wishes when you die. It is advisable for every adult to have a will and anyone above the age of 18 can have a will. There are a lot of DIY will kits available in market to make a will. However, it is advisable for a qualified legal professional to construct your will if you have significant assets and a large family with possibility of contesting will. Please be advised that family provisions under the Succession Act 2006 NSW allow former spouse, de facto-partner, children from extra marital affairs and even anyone close and financially dependent can make claim to the deceased estate at the court.

A will must be in writing and it needs to be rewritten if you get divorced, remarried, or if you have outlived the executor and trustee of the will. A will can provide your family with security and reassurance that they will not need to be arranging your affairs during a very emotionally distressing time. You can get information how to form a will from the NSW Trustee & Guardianship website http://www.tag.nsw.gov.au.

Health:
Health in particular dementia is the most important issue in old age. With aging we get impaired mental capacity that makes complex decision making of our distinctive needs such as accommodations, healthcare, financial and legal services untenable. According to 2008 Census, there were 227300 people diagnosed with Dementia in Australia and projection is that this figure may increase to three quarter of a million by 2050.

Dementia is a major issue to address for the governments of all levels in Australia. Aged care assessment team (ACAT) can assist with assessment of dementia who requires formal diagnosis. Once diagnosed that will ultimately impact on the sufferer legal rights. In this case, an Enduring Power of Attorney is assigned to someone to make decisions on their behalf when they are no longer on sound mind. The Enduring Power of Attorney can be a close relative or a friend who is intelligible and willing to take the role to make important decisions about the person’s health and general well being.

Power of Attorney & Enduring Power of Attorney:
The Power of attorney” and the Enduring Power of Attorney” sound similar, but they are two different tools. Both are used to make decisions on someone’s behalf; but there is a significant difference between these two. The former is a power given to someone who you trust to manage your financial affairs on your behalf when you are unable to do so; but this power does not give authority make decisions on your health or well being and life style on your behalf. Generally, the power of attorney is given to collect rent, deal with banks or property matters. It has also time stipulation with end date. In contrast Enduring Power of Attorney gives legal power to someone to make decision on health and well being on your behalf. You should consult with a legal professional before executing power of attorney or enduring power of attorney, because these tools can be used on your detriment if legal representative does not understand your wishes or acts deceitfully.

An “Advance Care Directive” is another tool that allows you to outline your wishes when it comes to your end of life care. It is a very important document that is referred to by the doctors who will be involved in your end of life care when the time comes. You should discuss your Advance Care Directives with your loved ones to make sure it is adhered to when you are no longer cognisant. However, if someone has no one to take advance care directive, the most senior health professional present will make the medical decisions regarding your care at that time.



Disclaimer: this is not a personalised financial or taxation advice whilst the writer has endeavoured to ensure that the information on this paper is correct; however, he does not claim its completeness or accuracy. You should always verify information with the relevant organisation, eg. Centrelink, ATO or other regulatory bodies. Atiq Rahman – writer & lawyer, Sydney.



Published on: 22-Feb-2016




Peace Keeping in Europe
Md. Masudul Huq


I was a Peace keeper in former Yugoslavia in 1994 where 50 police officers were with me from Bangladesh .I was posted in sector south Knin from where I used to visit different sectors on CTO to see them as I was Contingent commander. Knin was a nice place not very far away from Adriatic Sea. Police officers of different Continents were with me. I worked with Canadians, Scandinavians, Africans and Asians. It was a very good experience to work in such multicultural environments. I was accommodated in the 1st floor of Maria’s house which was a 4 story building where other monitors also stayed. My office was only 1 km away from my residence.

Before my posting to Knin I was at Daruvar in sector west for a month. In day time we used to visit different areas to see the law and order of the area along with other monitors, sometimes with polish or sometimes with Scandinavians. It was very interesting to me to see a different topography and different people. Every morning we used to sit in a meeting to discuss different issues and distribution of areas for visiting, patrolling etc. One day I was asked for an enquiry into a death threat Complain which was submitted by a local man from Daruvar. I along with Captain Tadius of Poland visited the house of complainant but could not ascertain the person who threatened the complainant. No evidence collection was possible at that time as it was conflicting time and war zone. Just after a few days I was transferred to Knin as Chief of Administration, sector south.

Here all monitors were from Canada, Scandinavia, Russia, Portugal, Egypt and Bangladesh who were very friendly and cooperative to each other. Knin was a small town having a railway station with a big compound. But the rail line was out of order due to war, so no rail communication was possible at that time. One night there was a serious firing over the area . All monitors left the house and took shelter in our Head Quarters. In the mean time there were negotiations to stop firing and subsequently when firing stopped we came back to our residence.

One morning I found Maria was crying, I went to her room and asked why she was crying. Maria told me last night her brother’s house was looted and everything was taken away. I told her, “if you like you can record this information in police station but she said, I would not record this to police station”. Later on I came to know she has ethnic problems. She is from one community and her husband is from another community. So she does not like to get involved in it. It is a good decision due to prevailing situation at that time.

Everybody in the mission is for one year. One day sector chief asked me if I was willing to serve in Macedonian sector. Since I have almost completed ten months of my tenure and rotation time was very near I was hesitant although I was a bit thrilled to go to Macedonia. Alexander the Great was born in Macedon in 356 B.C.E. who conquered almost half of the known world at that time. His Father Philip also conquered vast areas of Greece and adjoining areas. Alexander was trained by his father and he was very courageous. He defeated Persian king and reached up to today’s India-Pakistan areas. He fell ill in Babylon and died at the age of 32. Alexander could not select his next commander and because of that there were clash of opinion amongst his generals who returned to Macedonia.

At the end of the mission all monitors remain very eager to go back home and busy in different works, visiting friends, shopping and arranging farewell. I participated a farewell party in North sector which was organized by Bangladeshi monitors. All sector officers participated including Europeans and Asians. Irish officers and Bangladeshi officers spoke in the function. It was a very successful get-together and farewell function. One lady interpreter was in the function who interpreted my speech from English to Yugoslavian language. After a few days we returned to our country. It was a very successful mission.




Md. Masudul Huq, Sydney



Published on: 20-Feb-2016



Australian Bengali Hindu Association
Bangladesh Society for Puja and Culture

Published on: 22-Jan-2016


BD Diaspora
The voice of Bangladeshis abroad
A new website launched by Dr Tanveer Ahmed
and Wahid Siddique


Published on: 8-Feb-2016






Clean-up Bangladesh Day – Congratulations!


It is so inspiring and exciting to learn about the initiative in the 6th of February, the Clean-up Bangladesh Day. This is a tremendous beginning for a nation that has so much to clean-up; why not at least start with rubbish clean-up?

The concept of Clean-up Australia Day is quite old now and has been a very successful initiative. Last year more than half a million people (out of only 23millions) have participated the Day, which has been the first Sunday of March every year. I trust the Bangladeshi initiative will also see successes. Since an initiative of this magnitude requires planning, logistics, support and participation, to be continuing and sustainable, I’d like to offer a few suggestions:

- Secure corporate sponsorship and corporate involvement;

- Involve educational institutions as the key driving force; children are great in educating their parents;

- Collaborate with Clean-up Australia Day organisation (http://www.cleanupaustraliaday.org.au/), who have a lot of experience and might be able to offer support, suggestions and funding;

- Establish partnerships with rubbish recycling industry as a potential ‘buy-back’ or ‘purchase’ of the rubbish collected; and

- In case the 6th of February each year is not found suitable for the Day then it could be the first Saturday of February each year, as a weekend might suit everybody better?

If I can, I’d also love to join this on at least one occasion in Bangladesh, as I do each and every year here in Australia since 1996.

Thank you.

Swapan Paul, Sydney (swapanil@yahoo.com)
[A volunteer Convenor of Bangladesh Environment Network, Sydney]





Published on: 31-Jan-2016


৬ ফেব্রুয়ারী সারাদেশে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা দিবস পালন করুন

Swapan Paul, Sydney


Published on: 28-Jan-2016




আমি একজন পাগল বলছি -
প্রতি বছর ৬ ফেব্রুয়ারী সারা দেশে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা দিবস পালন করুণ!





Published on: 28-Jan-2016



একটি জীনসের আত্মকাহিনী
ড. শামস্‌ রহমান

দ্বিতীয় পর্বঃ জীনস্‌ নিয়ে ঘরে ছিনিমিনি



আগের অংশ


এক।
পাকিস্তান আমলে দয়ালের কলেজের নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে ছিল সামরিক মন্ত্রণালয়। তখন লেঃ কর্নেল, উইং কমান্ডার আর ক্যাপ্টেনদেরই দাপট। তারাই সর্বেসর্বা। আর যারা কোর বিজনেস, মানে শিক্ষা প্রদানের দায়িত্বে ছিল, তারা নেহায়েত শিক্ষক। দাপট-দাররা শিক্ষকদের কখনো জুনিয়ার পার্টনার, কখনো বা দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক ভাবতো দ্বিধাহীন চিত্তে। স্বাধীনতার পর প্রতিষ্ঠানগুলি সামরিক মন্ত্রণালয়ের তত্বাবধানে থাকবে, না শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে আসবে, তা নিয়ে নীতি নির্ধারকদের মাঝে জোর আলোচনা চলে। ‘উপনিবেশিক চিন্তা-চেতনায় সৃষ্টি’ এই ধারণার ভিত্তিতে নীতি নির্ধারকদের অনেকে সুপারিশ করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তত্বাবধানে আনতে। অনেকে আবার স্ট্যাটাস-কু’তে বিশ্বাসী ছিল। তবে তাদের প্রভাব ছিল অত্যন্ত সীমিত। কলেজের অনেক ছাত্ররাই ছিল স্ট্যাটাস-কু্’র পক্ষে। সিদ্ধান্ত অন্যরকম হতে পারে ভেবে ছাত্ররাও লবিং করে এবং এক পর্যায়ে জেনারেল ওসমানীর শরণাপন্ন হয়। শেষ পর্যন্ত ছাত্ররাই জয়ী হয়। দয়ালের কলেজসহ অন্য কলেজগুলি সামরিক মন্ত্রণালয়ের তত্বাবধানেই থেকে যায়। তবে টানাপোড়ন চলে বেশ কিছু দিন। আর এই টানাপোড়নের মাঝে দারুণভাবে নাজুক হয়ে পড়ে প্রতিষ্ঠানগুলির প্রশাসনিক ব্যবস্থাপনা। বিশেষ করে দয়ালের কলেজ। সেই সময় প্রিন্সিপাল হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন কলেজের একজন অভিজ্ঞ শিক্ষক। বিজ্ঞানের শিক্ষক হলেও, একবার প্রশিক্ষণের জন্য জার্মানিতে গিয়ে উনবিংশ শতাব্দীর দার্শনিক যেমন, মার্ক্স, এঙ্গেলস, হেগেলের সমাজনীতি ও রাজনৈতিক রচনাবলী নিয়ে প্রচুর পড়াশোনা করেন। ব্যাপক অভিজ্ঞতা সম্পন্ন হওয়া সত্যেও তার পক্ষে সুষ্ঠুভাবে সবদিক পরিচালনা করা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে। ছাত্র রাজনীতির অনুপ্রবেশ; ছাত্র প্রতিনিধি নিয়োগে ভোটা-ভোটি; সভা-সমাবেশ; মিটিং-মিছিল এবং যখন তখন বহিরাগতদের আগমন। এসব মিলিয়ে এক বিশৃঙ্খল পরিবেশ। এরই মাঝে উনিশশো-তেহাত্তর সনের শুরুতে আত্মপ্রকাশ করে এক নতুন দল। নাম কাঞ্চন পার্টি। দলের নেতারা কলেজের প্রিন্সিপালের ছেলের নামে নামকরণ করে এদলের। পর পর সাত সাতটি কন্যা সন্তানের পর জন্ম হয় এই পুত্র সন্তানের। প্রিন্সিপাল নাম রাখেন কাঞ্চন। এ যেন ‘সাত ভাই চম্পা’র ঠিক উল্টো চিত্র; সাত বোন কাঞ্চন জাগো রে জাগো। বাবা আদর করে সুরেলা কণ্ঠে ডাকে – ‘কাঁন্‌ননচন’। আর কাঞ্চন দৌড়ে চলে বাবার কোলে। এই ছিল অফিসে যাওয়া আর ফেরার সময়ের বাপ-ছেলের ছেলেমানুষি খেলা।

দুই।
আদর যতই থাক, হিসেবের বেলায় ছেলে-মেয়ে সমান। ছুটির দিনে কে কয়টা চকলেট পাবে; ঈদের নতুন জামা পাবে; জন্মদিনে উপহার পাবে, তা সব সমান-সমান। প্রিন্সিপালের মাথায় সমান-সমান ব্যাপারটি এত বেশী কাজ করে যে অনেক সময় সমান-সমান করতে গিয়ে ছেলেকেও কানের দুল আর হাতের চুড়ি উপহার দেয়। একবার বড় ঈদের উপহার হিসেবে সব মেয়েদের কপালের টিকলি দেয়। ছেলেকে আবার কেন আলাদা করে দেখা? ছেলেকেও তাই। তখনো প্রিন্সিপাল ও তার স্ত্রীর বোধোদয় হয়নি ‘বুকিশ্‌’ সমান-সমানের বাস্তবতা। কাঞ্চন পার্টির নেতারা প্রিন্সিপালের সমান-সমান ধারাটা আত্মস্থ করলেও তাদের কাছে প্রিন্সিপালের সমান-সমান প্রিন্সিপ্যলগুলি তত বেশী বৈজ্ঞানিক মনে হয়নি। তাই তারা দলের সমান-সমান আদর্শকে আরও বৈজ্ঞানিক করার জোড় প্রচার চালায়। কার্ল বেঁচে থাকলে কোন এঙ্গেল বা কোন কোন ‘এঙ্গেলস’এ দেখতো তা বলা কঠিন। তবে কাঞ্চন পার্টির নেতাদের সে ব্যাপারে কোন মাথা ব্যথা নেই। তারা বৈজ্ঞানিক সমান-সমানের ঝাণ্ডা উড়িয়েই চলে। এ ধারা সাধারণ ছাত্রদের দারুণভাবে আকৃষ্ট করে এবং তারা হাজারে হাজারে দলে ভিড়ে। যারা ভিড়ে, তারা কতটুকু বুঝে ভিড়ে, তা বোঝা না গেলেও, দলের উদ্দেশ্য কি ছিল তা অল্প সময়ের মধ্যেই পরিষ্কার হয়ে যায়। ফলে দলে দলে উত্তেজনা ও দলাদলি বাড়ে এবং কলেজের পরিবেশে নেমে আসে চরম অবক্ষয়।

তিন।
সদ্য তৈরি জীনস্‌- মানে আমার জন্মের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই দয়াল প্রিন্সিপালের অফিসে বন্দি অবস্থা থেকে মুক্তি পায়। মুক্তির খবর দ্রুত পৌঁছে যায় কলেজ এবং আশে পাশের গ্রামে। খবর পেয়ে আনন্দে কলেজ মুখরিত। সবার মুখে মুখে এই একই প্রশ্ন - কবে ফিরবে দয়াল? তখন জীনসের জন্য হিথ আর হিথ্‌রোর জয় জয়কার। দয়াল মুক্তি পেয়ে হিথ্‌রো-হিথ হয়ে সোজা চলে আসে কলেজে। আমাকে পেয়েই সমস্ত অস্তিত্ব দিয়ে জড়িয়ে ধরে। আমি যেন জীবনের ছবি। আমি যেন পূর্ব বাংলার আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতীক। আমি যেন উনশত্তুরের রাহমানের ‘রক্তাক্ত সার্ট’ থেকে রূপান্তরিত হয়েছি একাত্তরের দয়ালের ‘রক্তাক্ত জীনস্‌’এ। নবজাত ‘কুন্টাকিন্টেকে’ হাতের মুঠোয় নিয়ে পাহাড়ের চুড়ায় দাঁড়িয়ে তার পিতা যেভাবে ঊর্ধ্ব আকাশের পানে তুলে ধরে; তেমনি, দয়াল আমাকে তুলে ধরে বিশ্ব দুয়ারে। কলেজের ছাত্রদের একতা ও মনের দৃঢ়তা, ত্যাগ আর নেতৃত্বের উৎকর্ষতার ফসল আমি। পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ জীনস্‌ না হলেও, আমি এক স্বতন্ত্র জীনস্‌। নিজের স্বকীয়তা নিয়ে এখন শুধুই সামনে চলার সময়। এখন শুধুই ভবিষ্যতের ভাবনা। নিশ্চয়ই আমার গায়ে একদিন প্লাস্টিকের বোতামের স্থলে সংযুক্ত হবে তামার বোতাম। নিশ্চয়ই একদিন হিমালয় থেকে ভেসে আসা পাথরের ঘষায় ঘষায় রূপান্তরিত হবো stone-washed জীনসে‌। একদিন নিশ্চয়ই পিছনের তালি পকেটের ঠিক উপরে এক অভিনব কায়দায় সংযুক্ত হবে নকশিকাঁথার নক্সায় এক টুকরো লেদার; আর যার গায়ে উজ্জ্বল অক্ষরে লেখা হবে - Made in Bangladesh.

চার।
ইতিমধ্যে কলেজে গ্রীষ্মের ছুটি। বাড়ি আসে দয়াল। পৃথিবীতে যে মাত্র তিনটি টাউন আছে তা হয়তো অনেকেই অজানা। জর্জ টাউন, কেপ টাউন ও গোলাপপুর টাউন। দয়াল গোলাপপুর টাউনের বাসিন্দা। ধলেশ্বরী নদী যেখানে বাঁ দিকে বেঁকে উত্তরে ধাবিত হয়েছে, ঠিক তার পুবের পাড় ঘেঁষে যে টাউন, তার নামই গোলাপপুর টাউন। বাড়ী পৌঁছাতে দয়ালকে প্রথমে কলেজ থেকে বাসে এবং শেষে যেতে হয় নৌকায়। যখন ধলেশ্বরীর উপর দিয়ে ব্রিজ হবে তখন হয়তো রেললাইন বসবে, বাস চলাচল করবে; তবে আজ নৌকাই একমাত্র ভরসা। বাড়ী আসার সময় দয়াল সঙ্গে করে সযত্নে সুটকেসের তলায় আমাকেও নিয়ে আসে। আমাকে পড়লে যে বাবা মা বোন ও আঁটনিয়-স্বজনরা সহজভাবে নিতে নাও পারে, সে চিন্তা যে দয়ালের ছিল না, তা নয়। এরা সবাই দয়ালের আপনজন। এদের আপত্তি উপেক্ষা করা সহজ নয়। তাই প্রথম প্রথম বেশ কিছুদিন আমি পড়ে ছিলাম দয়ালের সুটকেসের তলায়। তখন বঞ্চিত ছিলাম সূর্যের মুখ আর বিশুদ্ধ হাওয়া থেকে।

একদিন বিকেলে দয়াল এক গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা সভায় যাবে। সেখানে অনিক সহ যোগ দেবে আরও প্রায় তিনশ বন্ধু। আর এই সভাটি অনুষ্ঠিত হবে স্তোনিয়ার ‘কানে’র কারুকাজে তৈরি বিশাল এবং অত্যাধুনিক এক ভবনে। চারদিকে যার বিস্তীর্ণ মাঠ, যা ঘন সবুজ আর মনোরম ঘাসে ঢাকা। সবুজের এক প্রান্ত থেকে ভবনের দোরগোড়ায় বেয়ে উঠেছে থাক থাক সিঁড়ি। মাঠের বুক চিড়ে আর ভবনের গা ঘেঁষে বহে আঁকা বাঁকা হ্রদ। শীতের বিকেলে হ্রদের জল স্নিগ্ধ হাওয়ার বেগে মৃদু মৃদু ঢেউ তুলে ভবনের হ্রদয় ছুঁয়ে যায়। পূর্ব বাংলার মাঠ ও মাটি, জল আর ভবনের এ যেন এক সহজাত মিলন।

সভাটি আনুষ্ঠানিক। তাই অনেক চিন্তা ভাবনা করেই আমাকে মানে জীনস্‌ পড়ে। দয়ালের দীঘল দেহে মানায় ভালই। আর গায়ে জড়ায় মুজিব কোট। মুজিব কোটের সাথে পশ্চিমা কায়দার জীনস্‌! এ এক অভিনব সমন্বয়। আয়নায় আপাদমস্তক দেখে। এ পাশ ও পাশ করে নিজেকে পরীক্ষা করে। দয়ালের অঙ্গে তখন Clint Eastwood আর John Wayne’এর ভাব ও ভঙ্গিমা। দেহের শিরায় শিরায় বিচিত্র এক অনুভূতি আর উত্তেজনা। Cowboy’এর কায়দায় waterman কলম ঘুরায় তর্জনীতে। নিশানা ঠিক করে গুজে রাখে মুজিব কোটের ‘হ্রদয় পকেটে’। দয়ালের মাথায় তখন অন্তহীন কল্পনা। ভাবে, চারিদিকে যেন চোদ্দ নদীর অথৈ জল। পাশেই আদিবাসীদের বাস। অদূরেই ঘাপটি মেরে বসে আছে দূর্বিত্বের দল। সুযোগ বুঝে ঝাঁপিয়ে পড়বে আদিবাসীদের গুহায় শত-সহস্র বছরের হিমালয় থেকে ভেসে আসা গচ্ছিত সম্পদের উপর। দয়াল যেন এদের উদ্ধারকর্তা। অবতীর্ণ হয়েছে clean Clint Eastwood’এর ভূমিকায়।

বাসা থেকে বেড় হওয়ার জন্য দোতালা থেকে নীচে নামার সময় মায়ের নজরে পরে দয়াল।
- বাবা, এ তুমি কি পরেছ? তালি দেওয়া পকেট, নীলের মাঝে লাল সূতার সেলাই, প্লাস্টিকের বোতাম! কেমন যেন বিশ্রি লাগছে। অন্য একটা প্যান্ট পরে যাও বাবা।

কোনটা ভাল, কোনটা মন্দ সে বিবেচনার দায়িত্ব সর্বদাই যেন মা বাবা’র; সমাজের তথাকথিত সিভিল শ্রেণীর! তাদের ভাবনাগুলো কেন যেন প্রজন্মের উপর চাপিয়ে দিতে চায়। দয়াল ভাবে – নতুন প্রজন্মেরও যে থাকতে পারে নিজস্ব চিন্তা চেতনা, নতুন ভাবনা তা যেন বাবা-মা বা সিভিল শ্রেণীর চিন্তার বাইরে। সবই যেন হতে হবে সনাতনী, তাদের মত করে। দীর্ঘ দিন আগে কলেজ লাইব্রেরীতে পড়া খলিল গিবরানের কয়েকটি চরণ মনে পরে দয়ালের। চরণগুলি মনে ধরেছিল সেদিন, যা একজন মাকে উদ্দেশ্য করে লিখা -

‘(Children) come through you but not from you,
And they are with you yet they belong not to you.
You may give them your love, but not your thoughts,
For they have their own thoughts’.

বাবা-মা ধনুকের মত। আর সন্তানেরা জীবন্ত তীর। মা-বাবার ভালবাসায় সন্তানেরা তীরের বেগে চেনা পথের বাইরে চলে নিজস্ব চিন্তা চেতনায়। পুরাতনকে পিছনে ফেলে, চলে তারা নতুনের সন্ধানে। বাহান্নের মিনার তার এক জীবন্ত সাক্ষর।

কে শুনে কার কথা!
দয়াল বলে – মা, পৃথিবী বদলে গেছে। আজ এটাই মানানসই; এটাই সুন্দর। প্লিজ, আমাকে এখন যেতে দাও, বলেই যাবার চেষ্টা করে।
মায়ের কথা শুনে দোতালা থেকে দৌড়ে আসে বড় বোন -
– তোকে একটা গুণ্ডা গুণ্ডা লাগছে। শিঘ্রি খুলে ফেল বলছি।
বয়সে বড় বোন অনেক বড়। ছোটবেলা মায়ের পরই এই বোন ছোট্ট ভাইকে আদর দিয়ে আগলে রেখেছে। যদিও সে রুচি ও চিন্তা–চেতনায় সনাতনী, তবু তাকে সরাসরি উপেক্ষা করা কঠিন।
দয়ালদের বাড়ীর পাশে এক মস্ত বাড়ী। সে বাড়ীর ইন্দিরা মাসিমা এসেও যোগ দেয় মা বোনের সাথে। কালিয়াকৈর ও ধান-মন্দির সড়কে তাদের বড় বড় ব্যবসা। টাঙ্গাইল, মিরপুর কাতান, ঢাকাই জামদানী, বেনারসি, সাউথ ইন্ডিয়ান থেকে শুরু করে সবই মেলে সেখানে। নতুন নতুন ক্রেতা খোঁজ করা এবং ব্যবসা প্রসারের জন্য তাদের আছে গবিশা (গবেষণা ও বিশ্লেষণ শাখা) নামে এক গবেষণা সেল। যে কোন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের মত গবিশাও কাজ করে গোপনে। গবিশার সাফল্যে মাসিমাদের ব্যবসাও জমজমাট। কাঞ্চন পার্টির গঠনের বেশ কয়েক বছর আগে, যুদ্ধের সময় এ দলের দুজন শীর্ষ নেতাদের সাথে গবিশার যোগাযোগ হয় এবং সেই থেকে তাদের সাথে একটা ওয়ার্কিং রিলেশনশিপ গড়ে উঠে।

ইন্দিরা মাসিমা মা-বোনের সাথে শুধু যোগই দেয় না, কথাও বলে একই সুরে। বলে –
- দয়াল বাপ, অন্য একটা প্যান্ট পর তুমি। অন্য প্যান্টে তোমায় মানায় ভাল।

দয়াল শুনেও না শুনার ভান করে। তাই নিরুত্তরে তাকিয়ে থাকে অন্য দিকে। মাসিমার ভয়টা অন্য জায়গায়। ঘরে তার দু দুটা বাড়ন্ত বয়সের ছেলে। যদি তাদের গায়ে লাগে দয়ালের বাতাস? যদি তারাও আমেরিকান cowboyদের মত জীনস্‌ পরা শুরু করে? উপায় হবে কি তবে?

পাঁচ।
এদিকে কাঞ্চন পার্টি তাদের বৈজ্ঞানিক সমান-সমানের ঝাণ্ডা উড়িয়েই চলে। তারা জীনসের চেয়ে সমান-সমানের ‘ঝাণ্ডায়’ বেশী বিশ্বাসী বলে প্রচার করে। ফলে কেউ বুঝে, কেউ বা না বুঝে এ দলে ভিড়ে। তারা সদলবলে কলেজে অন্য দলের সাথে লিপ্ত হয় সংঘর্ষে। স্বাধীনতার পর পর লুকিয়ে রাখা গলফ্‌ স্টিক ব্যাবহারেও পিছপা হয়নি তারা। ছাত্রদের রুম ভাঙ্গা, কলেজের দারোয়ান আর সিকিউরিটি গার্ডদের থেকে লাঠি-শোটা ছিনিয়ে নেওয়া এবং তা নিরীহ ছাত্র ও আশে পাশের গায়ের মাতব্বর শ্রেণীর মানুষের উপর ব্যবহার করা ছিল তাদের এক নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার। সব মিলিয়ে কলেজে অরাজকতা সৃষ্টিই ছিল তাদের মূল উদ্দেশ্য। চারিদিকে তখন ব্যাপক রব – শিকদার-বাড়ীর শিকদার আর সিরাজগঞ্জের সিরাজ এখন একই কাতারে। এরা মিলে কলেজে ধ্বংস আর সন্ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টির জোর প্রচেষ্টা চালায়। এক পর্যায়ে অরাজকতা রূপ নেয় মহা তাণ্ডবে যা কালিয়াকৈরের অদূরে অবস্থিত নক্সা-বাড়ীর তাণ্ডবকে হার মানায়। এমনকি কাঞ্চন পার্টি একবার ইন্দিরা মাসিমাদের ধান-মন্দির সড়কের ব্যবসা কেন্দ্রেও আঘাত হানে। গবিশার সাথে সুসম্পর্ক থাকা সত্যেও তারা কেন এমন কাজ করে, তা যোগবিয়োগে মেলে না। পরবর্তীতে শিকদার, সিরাজদের কৌশল নিয়ে এগিয়ে আসে হাতে গোনা কিছু সংখ্যক ছাত্র যারা মাক্ষন জীনস্‌ ছিনিয়ে নিয়ে দয়ালের জীনস্‌ তৈরির শুরুতেই বিরোধিতা করে।

তাত্ত্বিকভাবে মা, বোন আর মাসি; কাঞ্চন পার্টি এবং জীনস্‌ তৈরির বিরোধিতাকারীরা ভিন্ন ভিন্ন আদর্শে আর মূল্যবোধে বিশ্বাসী হলেও, একটা জায়গায় তাদের ছিল গভীর মিল। তারা সবাই দয়ালের জীনসে্‌ অবিশ্বাসী। একদিকে দয়াল, অনিক - অন্যদিকে মা, বোন, মাসি; কাঞ্চন পার্টি, এবং জীনস্‌ তৈরির বিরোধিতাকারীরা। দয়ালের জীনস্‌(মানে আমাকে) নিয়ে চলে তুমুল টানাটানি। শেষে দয়ালের হ্যাচকা টানে ফসকে যায় অবিশ্বাসীদের হাত। যদিও দয়াল তার নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে, কিন্তু এই টানাটানিতে জীনসে্‌র কোটি কোটি সুতার শক্ত বাঁধনে আঘাত লাগে এবং কিছুটা শিথিল হয়ে পড়ে। সামনের দু একটি প্লাস্টিক বোতাম সেলাই করা সূতা থেকে ঝুলে পড়ে আর লাল হলুদের মাঝা মাঝি রং এর সূতায়, ডবল স্টিচে পিছনের তালি আটা এঁটে থাকা বা পকেটটি প্রায় খসে পড়ে পড়ে। তখন গাড় নীলের জীনস্‌টা মানে আমাকে কেমন যেন আত্মবিশ্বাসহীন ফ্যাকাসে দেখায়। (চলবে)



আগের অংশ


ড. শামস্‌ রহমান, মেলবোর্ন



Published on: 20-Jan-2016


Bangladesh High Commission
Sydney Consular Camp 2016
(February to June)


Published on: 8-Jan-2016




Bangladesh Christian Fellowship of Australia

বাংলাদেশ খ্রীষ্টান ফেলোশিপ অব আস্ট্রেলিয়া


প্রতিবাদ লিপি


বিষয়: বাংলাদেশে খৃষ্টান সম্প্রদায়, অন্যান্য ধর্মীয় মতাবলম্বী ও প্রগতিশীল ব্যক্তিদের উপর সন্ত্রাসী হামলা ও হুমকির প্রতিবাদ।

প্রেরক: বাংলাদেশ খৃষ্টান ফেলোশিপ অব অস্ট্রেলিয়া।

বাংলাদেশ খৃষ্টান ফেলোশিপ অব অস্ট্রেলিয়া সিডনীতে বসবাসকারী বাংলাদেশী অস্ট্রেলিয়ানদের নিয়ে গঠিত একটি অরাজনৈতিক সামাজিক সংগঠন। জন্মলগ্ন থেকেই এই প্রতিষ্ঠানটি স্থানীয় বাংলাদেশী সমাজের সর্বস্তরের সদস্যদের সাথে মিলেমিশে সামাজিক, ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে আসছে। এ সংগঠন বাংলাদেশে সংগঠিত বিভিন্ন ঘটনাবলীর প্রতিও অনুভূতিশীল।

বাংলাদেশের সাম্প্রতিক খৃষ্টান ধর্মীয় নেতাদের উপর সন্ত্রাসী হামলার পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ খৃষ্টান ফেলোশিপ অব অস্ট্রেলিয়া এর সদস্যবৃন্দ গভীর উদ্বেগ ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে। উগ্র সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসীরা সম্প্রতি পাবনা, রংপুর, দিনাজপুর ও ঢাকা সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে খৃষ্টান ধর্মীয় যাজক, নেতা ও সাধারণ ধর্মাবলম্বীদের হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা করে চলছে। এছাড়াও বিভিন্ন স্থানের খৃষ্টান সম্প্রদায়ের অনেক নেতৃস্থানীয় সদস্যদের হুমকি প্রদান সহ ভয়-ভীতি প্রদর্শন করছে।

খৃষ্টান সম্প্রদায় ব্যতীত সন্ত্রাসীরা অন্যান্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তি এবং মুক্তমনা প্রগতিশীল বুদ্ধিজীবীদের হত্যা ও জীবনের হুমকি প্রদানের পরিপ্রেক্ষিতে এ সংগঠনের সদস্যরা তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাচ্ছে।
আমরা এ সমস্ত ঘটনাবলীর তীব্র নিন্দা জানিয়ে, দেশের সকল নাগরিকের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য সরকারকে আহবান জানাচ্ছি।

বাংলাদেশ খৃষ্টান ফেলোশিপ এর সদস্যরা মনে করে যে যারা বাংলাদেশের স্থিতিশীলতা বিনষ্ট করার জন্য এসমস্ত কর্মকাণ্ডের সহিত জড়িত তারা কখনই বাংলাদেশের ও জনগণের উন্নতি ও স্থিতিশীলতা কামনা করে না।
এ সংগঠনের সদস্যরা আশা করে যে সরকারের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষার স্বদিচ্ছা বাস্তবায়নে সক্রিয় ভূমিকা রেখে অবিলম্বে সন্ত্রাসীদের চিহ্নিত করে তাদের বিচার করা।


স্বাক্ষর
রোনাল্ড পাত্র
সভাপতি
স্বাক্ষর
ডেইজী মিঠু বিশ্বাস
সাধারণ সম্পাদক





Published on: 5-Jan-2016


৬.৭ মাত্রার ভূমিকম্পে
কেঁপে উঠেছে বাংলাদেশ


Published on: 4-Jan-2016



স্টারস - বাংলাদেশের ব্যান্ড মিউজিকে বিপ্লব সৃষ্টি করে ধ্বংসের পথে নিয়ে গিয়েছিল যে অ্যালবামটি

20 নভেম্বর 2011, 09:32 AM-এ



ষাটের দশকে আলমগীর (সত্তর দশকে পাকিস্তান চলে যান এবং ওখানেই গায়ক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হন), জাফর ইকবাল (পরবর্তীতে নায়ক) এবং আরও কিছু মিউজিকপ্রেমীদের হাতে ব্যান্ড সঙ্গীত শুরু হলেও আমজনতার মধ্যে প্রতিষ্ঠিত হয়নি। কারন এই ব্যান্ডগুলি ছিল ক্লাব, হোটেল কেন্দ্রিক। মুলত তারা হোটেল ইন্টার কন্টিনেন্টালের উইন্টার গার্ডেনে, ঢাকা ক্লাবে পারফর্ম করতেন। সাধারন মানুষের মধ্যে ব্যান্ড জনপ্রিয় হয় সাতের দশকের প্রথম ভাগে আজম খান, ফেরদৌস ওয়াহিদদের মাধ্যমে। এদের দেখানো পথে আস্তে আস্তে গড়ে উঠে সোলস, ফিডব্যাক, ফিলিংস, মাইলস এসব ব্যান্ডগুলো।

তবে ব্যান্ড মিউজিকের স্বর্নযুগ আমি বলব আশির দশক। এসময়ে অডিও ইন্ডাস্ট্রি প্রতিষ্ঠার কারনে ব্যান্ড দেশের আনাচে-কানাচে পৌঁছাতে সক্ষম হয়। এছাড়া আজম-ওয়াহিদ পরবর্তী নতুন ব্যান্ডগুলিও তাদের প্রাথমিক প্র্যাকটিস এবং গান কম্পোজিশন শেষে এই সময়ে তাদের অ্যালবাম প্রকাশ করে।

নব্বই দশকের শুরুর দিকে ব্যান্ড মিউজিকের এত রমরমা অবস্থা ছিল যে ক্যাসেট কোম্পানীরা ব্যান্ড ছাড়া সলো আধুনিক শিল্পীদের অ্যালবাম ছাড়তেই চাইত না। অনেক একক শিল্পী এসময়টাতে শুধুমাত্র ব্যান্ডের মার্কেট ধরার জন্য নামকাওয়াস্তে একটা ব্যান্ড গঠন করত এবং সেই ব্যান্ডের লেবেল ব্যবহার করে তাদের সলো অ্যালবাম বাজারে ছাড়ত। একটা উদাহরনও দেই। রবি চৌধুরী যখন একদম নতুন, তিনি এরকম এক সাইনবোর্ড সর্বস্ব ব্যান্ড সানডে (নামটা খেয়াল করুন) তৈরী করে অ্যালবাম ছেড়েছিলেন।

ব্যান্ডের এই জৌলুসপূর্ন সময়ে '৯৩ সালের মাঝামাঝি বিশাল আলোড়ন তুলে বাজারে আসে বাংলাদেশের প্রথম মিক্সড অ্যালবাম স্টারস। সে সময়কার অতি জনপ্রিয় কয়েকটি ব্যান্ডের ভোকালরা আশিকুজ্জামান টুলুর সুর ও সঙ্গীতে একটা করে গান গেয়েছিলেন এই অ্যালবামে। স্মৃতি থেকে কয়েকটা নাম তুলে দিচ্ছি। মাকসুদ, আজম খান, বিপ্লব, টিপু, নিলয় দাস, পঞ্চম, সামিনা চৌধুরী (উনি কখনো কোন ব্যান্ডে ছিলেন না, কিন্তু এই অ্যালবামে চমৎকার একটি গান গেয়েছিলেন)। এই শিল্পীদের একটা বড় অংশই এর আগে কখনো নিজেদের ব্যান্ড ছাড়া অন্য কোথাও পারফর্ম করেননি, এতগুলি শিল্পীও আগে একসাথে পাওয়া যায়নি। ফলে অসম্ভব জনপ্রিয়তা পায় এই অ্যালবামটি, যদিও মানের বিচারে এর গানগুলি খুব আহামরি ছিল না। কোন গানই দীর্ঘ সময় টিকে থাকেনি।

কিন্তু এই আপাত জনপ্রিয়তার সাথে সাথে সবার অলক্ষ্যে মোটামুটি মানের এই অ্যালবামটিই বাংলা ব্যান্ড মিউজিকের গতিপথ পালটে দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু করে। এর সাফল্যের ফলে হঠাৎই জনপ্রিয় ব্যান্ডগুলির ভোকালরা বুঝতে পারে যে একটা ব্যান্ডের অ্যালবাম বাজারে আনতে সময় লাগে ৩-৪ বছর যেহেতু সব শ্রেনীর শ্রোতাদের জন্যই কিছু না কিছু রাখতে হয়, সব সদস্য মিলে বসে কম্পোজ করতে হয়, শ' শ' ঘন্টা কাটাতে হয় প্র্যাকটিস প্যাডে। এইসব কিছুর পর যে টাকা পাওয়া যায়, তা ভাগ হয় ব্যান্ডের সবার মধ্যে। সে তুলনায় একটা মিক্সড অ্যালবামে শুধু একটা গান নিজে তৈরী করতে লাগে ৩-৪ দিন, আর যদি অন্য কারও সুরে হয় তাহলে তো কথাই নেই, রেকর্ডিংয়ে হয়ত একদিন, একটা বড় অংকের টাকা সাথে সাথেই হাতে পাওয়া যায়। অডিও কোম্পানীগুলিও লুফে নিল এই মিক্সড অ্যালবাম ব্যবসা।

টুলু শুরু করলেও উনি খুব একটা এই মাধ্যমে কাজ করেননি। স্টারসের পরে উনি আরেকটি মিক্সড অ্যালবাম করেছিলেন যা ছিল মুলত আধুনিক সলো শিল্পীদের নিয়ে এবং প্রতিটা গান ছিল দ্বৈত কন্ঠে। এরপর টুলু ফিরে যান তার ব্যান্ড আর্কের অ্যালবামের কাজে। মিক্সড অ্যালবাম কালচারকে প্রাতিষ্ঠানিক রুপ দেয়ার কৃতিত্ব দিতে হবে প্রিন্স মাহমুদকে। টুলুর একটু পরে নব্বইয়ের মাঝামাঝির দিকে এই ভদ্রলোক শুরু করেন এবং পরবর্তী দশ বছর একের পর এক হিট মিক্সড অ্যালবাম উপহার দেন। একা উনি যত কালজয়ী গান সুর করেছেন, বাংলাদেশের ব্যান্ড জগতে আর কেউ মনে হয় না তার কাছাকাছিও যেতে পারবেন। শুধুমাত্র মা আর বাংলাদেশ (দুটোর গায়কই জেমস) গান দুটোই তাকে অনেক বছর বাঁচিয়ে রাখবে। তাঁর সাফল্যে অনুপ্রানিত হয়ে আরও অনেকেই মিক্সড অ্যালবাম তৈরীকে তাদের পেশা হিসেবে নেন।

প্রতিষ্ঠিত ব্যান্ডের ভোকালরা (যারা বেশিরভাগ সময় ব্যান্ডের মুখ্য কম্পোজার) এভাবে মিক্সড অ্যালবামে ব্যস্ত হয়ে পড়ায় গোটা ব্যান্ড কালচার চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হতে শুরু করে। পুরোনো ব্যান্ডগুলি অ্যালবাম প্রকাশ কমিয়ে দেয়, নতুন শিল্পীরাও বছরের পর বছর কষ্ট করে গান কম্পোজ করার চাইতে কোন মিক্সড অ্যালবামে কোনভাবে একটা গান ঢুকিয়ে রাতারাতি সাফল্য পেতে চায়। সবচেয়ে বাজে প্রভাব যেটা পড়ে, শিল্পীরা তাদের স্বকীয়তা হারায়। যেকোন ব্যান্ডের একটা নিজস্ব স্টাইল থাকে এবং সচরাচর তারা সেই স্টাইলের বাইরে যায় না। মিক্সড অ্যালবামে নানান শ্রেনীর শ্রোতার মনোরঞ্জনের জন্য শিল্পীরা তাদের নিজস্ব ব্যান্ডের স্টাইলের বাইরেও গাইতে শুরু করেন। এছাড়া বেশি প্রডাকশনের ফলে কথা-সুরের কোয়ালিটিও হতে থাকে যাচ্ছে তাই। নতুন শতাব্দীতে শুরু হতে হতে ব্যান্ড মিউজিক প্রায় ধ্বংসের কাছে চলে যায়। সেই খাদের কিনারা থেকে আবার ব্যান্ডকে টেনে তুলে আন্ডারগ্রাউন্ড ব্যান্ড কালচার তৈরী এবং ব্ল্যাক, আর্টসেল ইত্যাদি নতুন প্রজন্মের ব্যান্ডকে প্রতিষ্ঠিত করার কৃতিত্ব বেসবাবা সুমনের। সেই গল্প আরেকদিন।



সংগৃহীত-সামহ্যয়ার ব্লগ থেকে



Published on: 1-Jan-2016



একটি জীনসের আত্মকাহিনী
ড. শামস্‌ রহমান

পর্ব একঃ জীনসে্‌র জন্ম কথা



পরের অংশ


১।
সদ্য স্বাধীন হয়েছে দেশ। যুদ্ধের ক্ষত তখনো স্পষ্ট। নিঃশ্বাসে তখনো গোলাবারুদের গন্ধ। জনপথ প্রায় বিচ্ছিন্ন। এর মাঝেই দূর দূরান্ত থেকে মানুষ ছুটছে আপনজনের কাছে। অস্ত্র কাঁধে মুক্তিযোদ্ধারা ফিরছে বাড়ি। চারিদিকে সবুজের মাঝে লাল সূর্য খোঁচা পতাকা হাতে বিজয়ের ধ্বনিতে মানুষের উল্লাস। ‘জয় বাংলা’ আর ‘আমার সোনার বাংলা’ কোটি কোটি মানুষের কণ্ঠে।

নতুন দেশ। নতুন সরকার দায়িত্বে। ধ্বংসাবশেষ থেকে দেশকে গড়ে তোলার জোর প্রচেষ্টা তখন। স্কুল, কলেজ খুলেছে ইতিমধ্যে। এবার আবার অনেকের মত দয়ালেরও স্কুলে যাবার পালা। দয়ালের স্কুল এক বিশেষ ধরণের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এটা একদিকে যেমন স্কুল, অন্যদিকে কলেজ। তবে প্রতিষ্ঠানটি শুধুই কলেজ নামে পরিচিত। স্কুলে পড়েও কলেজে পড়ে, এটা ভাবতেই ভিন্ন এক অনুভূতিতে ভরে উঠতো দয়ালের মন-প্রাণ। এক ধরণের নস্টালজিয়া চেপে বসতো – বাহ্‌, আমি তো বেশ বড়! কেউ জিজ্ঞেস করলে একটু পাকামোর ভাব ধরে জোরের সাথেই বলতো – আমি কলেজে পড়ি।

দেশে তখন এ ধরণের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছিল মোট চারটি । গ্রামের মাঝে বিস্তীর্ণ এক সমতল জমির উপর দয়ালের কলেজ। চারিদিকে প্রাচীর দিয়ে ঘেরা। ভিতরে অসংখ্য কাঁঠালের গাছ; খেলার মাঠ এবং বিভিন্ন অবকাঠামো দিয়ে ভরা। বাইরে থেকে বোঝার কোন উপায়ই নেই, কি আছে ভিতরে! আর কিই বা হয় সেখানে! বাইরের মানুষের ভিতরে ঢোকা যেমন মানা, তেমনি ভিতরের ছাত্রদেরও বাইরে যাওয়া নিষেধ। কলেজের ব্যবস্থাপনা নিয়মতান্ত্রিক এবং ভীষণ কড়া। সময়মত খাওয়া-পড়া আর সকাল বিকাল বাম-ডান করা। বাম-ডান করে করে, এক সময় বাম-ডানের ব্যাপারটা একটা যান্ত্রিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। ঘন ঘন বাম-ডানে দয়াল টোটালি কনফিউসড্‌। বিশেষ করে যখন বলে বামে কিংবা ডানে, তবে চলে লক্ষ-হীন সামনে। আর যদি কখনো লক্ষ নিবিষ্ট করে, তাহলে আইস্‌-রাইট বলে দৃষ্টি মেলে ডানে।

২।
যুদ্ধের ঠিক আগে আগে। মার্চ মাসের শুরু তখন। দেশ নিয়ে মানুষের মনে নানা ভাবনা। পার্লামেন্টের অধিবেশন বসবে কি? কি হবে? কোন দিকে যাবে? নির্বাচিত প্রতিনিধিদের কাছে কি ক্ষমতা হস্তান্তরিত হবে শেষ পর্যন্ত? ঘরে বাইরে তখন এসবই আলোচনার প্রধান বিষয়। স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলি আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধ না থাকলেও, ক্লাস বন্ধ। অফিস-আদালত চলছিল, তবে ঢিলেঢালা ভাবে। শহরে শহরে মিটিং মিছিল। ‘জয় বাংলা’ আর ‘আমার সোনার বাংলা’ মিছিলে মিছিলে। শ্লোগান আর গানই হয়ে উঠে বিজয়ের শক্তি আর দেশাত্মবোধের প্রেরণা। তখন, যখন-তখন অনিকের কলেজে ঢুকে যেত বাইরের কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের মিছিল। শ্লোগানে ভারি হয়ে উঠতো চারিদিকে প্রাচীর দিয়ে ঘেরা কলেজের বাতাস। কলেজের প্রশাসক বাঁধা দেওয়ার চেষ্টা থেকে বিরত থেকেছে, যা অনিককে অবাক করতো। এও সম্ভব? কোথায় গেল কলেজের সেই কড়া প্রশাসনিক ব্যবস্থাপনা?

দেশের ঠিক এই রকম এক পরিস্থিতির মাঝে দয়াল, অনিক সহ আরও বেশ কয়েকজন বন্ধু এক বিকেলে গল্পে মশগুল। হঠাৎ দয়াল বলেঃ
- এখনই মোক্ষম সময়। কলেজের অডিটরিয়ামের স্টেজের পিছনে দেয়ালে ঝুলানো কাপড়টা নিয়ে নিলে কেমন হয়?
দয়াল নামটা দেয়া হয় সেই ঐতিহাসিক ছাত্র আন্দোলনের সময়। কোন না কোন ভাবে কাউকে সাহায্য করতেই হবে তাকে। না পারলে ওর পেটের ভাত যেন হজমই হয় না। তাই সবাই মিলে নাম দেয় দয়ালু। তা থেকে দয়াল।

- অনেকটা আশ্চর্যের স্বরেই অন্য এক বন্ধু জিজ্ঞাস করে - নিয়ে নেব মানে?
- হ্যাঁ, নিয়ে নেব! – উত্তরে দৃঢ়তার সাথেই দয়াল বলে।
ও অনেকটা এই ধরনেরই। ভেবে চিন্তে যা সিদ্ধান্ত নেয় তা করেই ছাড়ে। নেতৃত্ব প্রদানে এক কাঠি সরস।
- মাঝখান থেকে আর এক বন্ধু মন্তব্য করে – দৌর্ঘে-প্রস্থে এত বড় কাপড় নিয়ে নেওয়া কি চাট্টিখানি কথা!
- অনিক বলেঃ ধরা পরলে কি হবে আমাদের?
- অনিকের সাথে স্বায় দেয় আরও দু’এক জন - তাইতো, দোস্ত, ধরা পরলে কি হবে?

এ সব প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার প্রয়োজন বোধ করে না দয়াল। কিছুক্ষণ নীরব থেকে, হঠাৎ বলেঃ
– চল! এক্ষণই চল। নিজেদের দখলে নিয়ে নেব।

বলেই সে উঠে দাঁড়ায়। তার সাথে সাথে উঠে দাঁড়ায় আরও কয়েকজন। সেই মূহুর্তে অনিক কি করবে তা ঠিক বুঝে উঠতে পারে না। ভয় ও দুর্বলতা, সতর্কতা ও তথাকথিত নৈতিকতা সবই কাজ করে তার মধ্যে। একদিকে ভয় ও নৈতিকতার প্রশ্ন; অন্যদিকে বন্ধুদের অলিখিত দলীয় চাপ কিংবা তাদের সাথে সলিডারিটি। কোনটা ওজনে ভারী? সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময়ের জানালাও খুব প্রশস্থ নয়। এটাও সত্য, সমদূরত্ব বজায় রাখার সময় এটা নয়। যাবে কি যাবে না, সেটাই প্রশ্ন! যাওয়ার সিদ্ধান্তে ঝুঁকি আছে সত্য, তবে এর উপর নির্ভর করছে জীবনের অনেক কিছু। শেষে বন্ধুদের সাথে সলিডারিটির মাঝে লক্ষ অর্জনই উত্তীর্ণ করে ভয়, সতর্কতা ও তথাকথিত নৈতিকতাকে।

অনিক নীরবে যোগ দেয় অন্য বন্ধুদের সাথে। আড্ডার জায়গা থেকে অডিটরিয়াম বেশি দূরে নয়। মূহুর্তেই সবাই পৌঁছে যায় অডিটরিয়ামের দোরগোড়ায়। বিশাল আকৃতির অডিটরিয়ামকে তখন কেমন যেন ভাবলেশহীন দেখায়। ছাত্র শিক্ষক শূন্য শত শত চেয়ারগুলোই শুধু লাইন ধরে সাজানো। দেয়ালের বিমূর্ত নক্সাগুলি দয়ালের কাছে সেই সময় আরও বিমূর্ত হয়ে উঠে। এক সময় নক্সাগুলির মাঝে একধরণের মানে খুঁজে পেলেও আজ ওর কাছে শুধুই অর্থহীন আঁকা-ঝোঁকা। শত শত সৌর জগতের মাঝে একটি চাঁদ তারা যেন অতিশয় ক্ষুদ্র ও তাৎপর্য হীন। দয়াল আজ মিল্কিওয়েতে ভেসে মিলে যেতে চায় শত শত সূর্যের সাথে। আর স্টেজের দুপাশে দাঁড়ানো সাদা ও সবুজ রঙ্গের সাইড-উইংস গুলি? কতদিন দয়াল শেক্সপিয়ার আর সমারসেট মমের নাটকের ডায়লগ প্রমট্‌ করেছে এই সাইড-উইংসের ছায়ায় দাঁড়িয়ে। এদের উপর পূর্ণ আস্থা রেখেছে। ভরসা করেছে। অবশ্য, উনিশশো পয়সট্টির সেপ্টেম্বরের সাতদিনের নাট্য উৎসব সব উলট-পালট করে দেয়। উৎসবে দয়ালদের ক্লাস মঞ্চস্থ করে লিও টলস্টয়ের War and Peace থেকে বিশেষ কয়েকটি অংশ। যথারীতি ডায়লগ প্রমট্‌ এর দায়িত্ব পড়ে দয়ালের উপর। তবে, নাটক শেষে অনেকে বলে, প্রমট্‌ করার সময় নাকি দয়ালকে অডিটোরিয়ামের দর্শকরা সাইড-উইংসের ভিতর দিয়ে স্পষ্ট দেখতে পায় এবং প্রায়ই তার প্রমট্‌ করা ডায়লগও শোনা যায়।

শুনে, দয়ালতো হতভম্ব। বলিস কি রে! তবে তো উইংসগুলি আমাদের নিরাপত্তা দিতে পারেনি। মনে হচ্ছে, আমাদের নিরাপত্তা দেওয়ার চেষ্টাও করেনি। এদের উপর আমাদের আস্থা ছিল। অনেক ভরসা ছিল। ভেবেছিলাম, এদের ছায়ায় দাঁড়ালে ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল। নির্ভাবনায় যাওয়া যাবে সামনে। দেখছি সে ধারণা ভুল। ভাগ্যিস, যুদ্ধটা সীমাবদ্ধ ছিল মূলতঃ পশ্চিম ফ্রন্টে। তবে, শান্তির জন্য দৌড়াতে হয় পূর্ব ফ্রন্ট তাস্‌খন্দ পর্যন্ত।

আজ অবশ্য ভিন্ন কথা। সাইড-উইংসগুলি এখনো যদিও দাঁড়িয়ে, তবে অনেকটাই নিস্তেজ। অন্যকে নিরাপত্তা দেওয়া দূরের কথা, নিজের অস্তিত্ব নিয়েই আজ টানাটানি; সারশূন্য দ্বিজাতীয় তত্বের অস্তিত্বই বিলীন হওয়ার পথে।

৩।
চারিদিক নিস্তব্ধ। আমাদের মধ্যে দয়ালই ছিল খানিকটা লম্বা এবং মাসেলধারী। তাই ওই দায়িত্ব নিল সবার নীচে ‘থাকবার’। অনিক হ্যংলা পাতলা বলে, ওকে বলা হলো সবার ওপরে ‘যাবার’। এভাবেই একজনের কাঁধে অন্যজন ভর করে স্টেজের পেছন দেয়াল ঘেঁসে ঝুলানো বিশাল থান কাপড়টি টেনে নামায়। গাড় নীল, মোটা এবং একটু ঘস্‌ঘসে এ কাপড়ের নাম ‘মাক্ষন জীনস্‌’। পাট আর তুলার সংমিশ্রণে তৈরি সূতায় পশ্চিম পাকিস্তানের কারখানায় এ কাপড় তৈরি। সময়ে হাজার হাজার মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয় এই কারখানায়। তৈরি হয় পাট-তুলা ও বস্ত্র আনা-নেওয়ার জন্য নতুন নতুন রাস্তাঘাট আর বন্দর। তৈরি হয় কর্মচারী ও তাদের পরিবারদের থাকার ব্যবস্থা। সেই সাথে ছেলেমেয়েদের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। অন্যদিকে, বিশ্ব বাজার না পেলেও, ইতিমধ্যে পূর্ব বাংলা হয়ে উঠে মাক্ষন জীনস্‌’এর এক মস্তবড় বাজার। যেহেতু অনিকের ছাত্রাবাস ছিল অডিটোরিয়ামের সবচেয়ে কাছে, তাই সিদ্ধান্ত হলো ‘মাক্ষন জীনসের’ অংশটুকু অনিকের কাছেই থাকবে। এত বড় কাপড় দুএক জনের পক্ষে বয়ে নেওয়া ছিল অত্যন্ত কঠিন ও জটিল ব্যাপার। তাই সবাই মিলে সর্ব উচ্চ গোপনীয়তার সাথে ধরাধরি করে নিয়ে যায় অনিকের কামরায়।

এত সতর্কতার পরেও নেওয়ার সময় সিকিউরিটি গার্ড যে দেখে ফ্যালে তা ওরা টেরই পায়নি। কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই জানাজানি হয়ে যায় মাক্ষন জীনস্‌ ছিনিয়ে নেওয়ার খবর। ছাত্রাবাস ও ডাইনিং হলে হৈ হৈ রৈ রৈ পরে যায়। কেউ বলে দয়াল, অনিক ও অন্যরা জড়িত। কেউ বলে ওরা রাতের অন্ধকারে কলেজ থেকে প্রাচীর ডিংগিয়ে পালিয়ে গ্যাছে। কেউ কেউ আবার শঙ্কিত, ওদের কি হবে? তা ভেবে।

বাকি সবাই বেঁচে গেলেও, দয়াল ফেঁসে যায়। সন্ধ্যারাতেই সিকিউরিটি গার্ড দিয়ে প্রিন্সিপ্যাল দয়ালকে ডেকে পাঠায়। দয়াল অফিসে পৌঁছালে প্রিন্সিপ্যাল মারমুখো ভাব দেখায়। বলে – শুনলাম, কলেজের কাঁঠালতলায় বসে আড্ডা দাও আর ষড়যন্ত্র পাকাও? আর কারা কারা ছিল সেখানে? মারমুখো ভাব দেখালেও দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে তেমন কিছু করতে সাহস করেনি। কিছুক্ষণ আটকে রাখে অফিসে। তারপর ছেড়ে দেয়। ছেড়ে দেওয়ার সময়, সাময়িকের জন্য হলেও ‘মাক্ষন জীনসের’ অংশটুকু ফেরত দিলে খুশী হব, এই ধরনের একটা মন্তব্য করেন প্রিন্সিপ্যাল।

দয়ালের মনে পরে কলেজে আসার প্রথম বছরের কথা। অডিটোরিয়ামের এই স্টেজেই এক সময় ইংরেজি শিক্ষক টিম ওয়েবস্টানের পরিচালনায় আর ছাত্রদের অভিনয়ে প্রদর্শিত হয়েছে শেক্সপেয়ারের নাটক। দেখানো হয়েছে ব্রিটিশ কাউন্সিল থেকে নিয়ে আসা ৮-মিলি মিটারে Charles Dickens’এর সিনেমা Great Expectations। পরিবেশিত হয়েছে আলমগীরের কণ্ঠে Cliff Richard’এর গান – Summer holiday, Bachelor boy, কিংবা Falling in love with you । তখন নাটক, সিনেমা, গান, সেই সাথে চিন্তা-চেতনায় বেশ একটা বিলেতি বিলেতি ভাব ছিল। সময়ে সব বদলে গ্যাছে। পূর্ব বাংলায় মাক্ষন জীনসে্‌র বাজার যত বেড়েছে, এই স্টেজের সুর ও ভাষা তত বদলে গ্যাছে। এখন গানের সুর ও ভাষা ভিন্ন। ‘কারার ঐ লৌহ কপাট’ আর ‘এমন দেশটি কোথাও খুঁজে পাবে ….’ দিয়েই আজকের ছাত্রদের Rock & Roll।

৪।
‘নাম যেহেতু মাক্ষন জীনস্‌, আর দেখতে নীল, মোটা এবং কিছুটা খসখসে; চল, কাপড়টা দিয়ে আমরা জীনস্‌ বানাই’ – দয়াল প্রস্তাব করে। সবার যে তখন জীনস্‌ সম্পর্কে সঠিক ধারণা ছিল, ঠিক তা নয়। তবে, এই প্রথমবারের মত নিজে কিছু তৈরি করার মধ্যে যে সুখ সুখ গন্ধ এবং আনন্দ তাতেই সবাই উত্তেজিত। তখন কোন বাধাই বাধা নয়। তখন কোন সীমাবদ্ধতাই সীমাবদ্ধতা নয়। তখন এমন একটা সময় যখন মনের জোড়ে যে কোন বাধা ও অসমর্থকে উৎরানো সম্ভব।

প্রস্তাবে সবাই রাজি হয়ে যায়। সক্রিয় সহযোগিতা আর টিম সলিডারিটির এ এক চূড়ান্ত রূপ। কলেজের পঁচিশ বছরের ইতিহাসে এমনটি ঘটেনি কখনো। এটা নেতৃত্বের উৎকর্ষতার সাক্ষর। সিদ্ধান্ত হল, আমেরিকার cowboy স্টাইলে জীনস্‌ বানানোর। কলেজের প্রাচীরের বাইরে কালিয়াকুর বাজারে চার চারটি খলিফার দোকান। কালিয়াকুর ঢাকা থেকে বেশি দূরেও নয়। মাত্র কয়েক ঘণ্টার পথ। এটা একটি বন্দর নগরী। দেশ বিদেশ থেকে বাণিজ্যের নৌকা ভিড়তো দিন-রাত। বাণিজ্য হত। অবশ্য, আজ আর নেই তার সে জৌলুস। তবে এখনও বস্ত্র শিল্পের জন্য প্রসিদ্ধ। পরদিন গোপনে সবাই মিলে যায় খলিফাদের দোকানে। প্যান্টের ডিজাইন কেমন হবে এবং কেন হবে, তা খলিফাদের বোঝানোই ছিল এক ধরণের চ্যালেঞ্জ। তারা অতীতে অনেককিছু বানালেও জীনস্‌ কখনো বানায়নি। দীর্ঘদিন আমেরিকায় বসবাসরত মামাতো ভাই শহিদ হোসেনের বদৌলতে আমেরিকান জীনস্‌ সম্পর্কে দয়ালের মোটামুটি একটা ধারণা ছিল বিধায় দায়িত্বটা ওর উপর বর্তায়। গোপনীয়তা আর সতর্কতা রক্ষার্থে প্রথম প্রথম দয়াল একাই খলিফাদের দোকানে যায়। প্যান্টের ডিজাইন বুঝিয়ে আবার ফিরে আসে কলেজে। এভাবে দফায়-দফায় ছয় দফা কলেজ আর কালিয়াকুর করার পর, একদিন সিকিউরিটি গার্ডের নজরে পরে। পরদিন নাস্তার ঠিক আগে আগে প্রিন্সিপ্যালের অফিসে দয়ালের ডাক পরে। হাজির হতে না হতেই প্রিন্সিপ্যাল গর্জে উঠে – ‘তোমাকে বললাম মাক্ষন জীনস্‌টা আপাতত ফেরত দাও, পরে আমি দেখবো তোমার জন্য আমি কি করতে পারি। এখন শুনছি তুমি আমার কলেজের ঐতিহ্যবাহী মাক্ষন জীনস্‌ দিয়ে জীনস্‌ বানাচ্ছো কলেজের সীমানার বাইরের খলিফাদের দিয়ে? এসব কি সত্য?’ যদিও প্রশ্ন করে, তবে প্রিন্সিপ্যাল দয়ালের উত্তরের অপেক্ষা করে না। কি হচ্ছে, প্রিন্সিপ্যাল তো তার সবই জানা। সিকিউরিটি গার্ডকে ইশারায় বলে পাশের ঘরে আটকে রাখতে। আর বলে – আপাতত নো খানা পিনা। কত গমে কত রুটি হয়, আর কোথায় হয় তার ঠিকানা টের পাবে ব্যাটা শিঘ্রি। শুধু অনিয়মিত খাওয়া-দাওয়াই নয়, লেখা পড়া ছিল একদম বন্ধ। বাইরের জগতের সাথে যোগাযোগ ছিল সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন।

দয়ালের অবর্তমানে জীনসের কাজ চালিয়ে যাওয়ার দায়িত্ব পরে অনিকের উপর। অনিক কালিয়াকুর যায়। যাবার পথে আশ্রয় নেয় কোন এক আম্রকুঞ্জে। খবর পেয়ে বাকি বন্ধুরাও ছুটে আসে আম্রকুঞ্জে। এতদিন জীনসের কাজ গোপনে হলেও, আজই প্রথম এই আম্রকুঞ্জে আনুষ্ঠানিকভাবে অনিক জানিয়ে দেয় জীনস্‌ তৈরির ব্যাপারটা। তারপর কালিয়াকুর পৌঁছায়। খুঁজে পায় খলিফাদের। নিরাপত্তা আর জীনস্‌ তৈরির সুষ্ঠু তদারকির জন্য সে তখন থেকে কালিয়াকুরেই থেকে যায়। প্রত্যেক দিন খলিফাদের সাথে দয়াল কি কি নির্দেশ দিয়েছে তা নিয়ে আলোচনা হয়। লক্ষ ঠিক রেখে অনিক খলিফাদের বুঝায় এবং আজ তালি পকেট, কাল…… এভাবেই ধীরে ধীরে জীনস্‌ তৈরির কাজ এগুতে থাকে। একটানা নয় দিন নয় রাতের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল এই জীনস্‌। পেছনে দুই তালি পকেট, সামনে গোল পকেট, আর এক পকেটে ছোট্ট ইনার পকেট। সেই সাথে নীচে চাপা এবং বুট কাট্‌। লাল হলুদের মাঝা মাঝি রং এর সূতায়, ডবল স্টিচে তৈরি হল জীনস্‌। মানে আমি – আমার জন্ম হল। লোহার যীপার পাওয়া গেলেও, তামার বোতাম যোগার করতে পারেনি রহমতুল্লাহ খলিফা। কাজ চালাতে হয়েছে হলুদ রঙের প্লাস্টিক বোতাম দিয়ে। আমি Levi’s, Wrangler কিংবা Lee Cooper’এর মত খ্যাতি সম্পন্ন নই; শুধুই জীনস্‌ - Made in Bangladesh. (চলবে)



ড. শামস্‌ রহমান, মেলবোর্ন


Published on: 30-Dec-2015


এই লিংক থেকে SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন



বিজয় আমি দেখেছি
হায়াত মাহমুদ

ঘাসের সবুজে, সূর্যের ছবি।
আমি নিজেই এঁকেছি,
এক সাগর রক্তের বদলে
বিজয় আমি দেখেছি।

‘প্রত্যয়’-‘প্রাঞ্জল’ ছোট্ট বালক
প্রতিবাদে রুখে দাঁড়ায়
অত্যাচারী বর্গি-সেনা
দেশ থেকে তাড়ায়।

প্রতিবাদী মিছিল এগিয়ে চলেছে
সঙ্গে মুক্তি সেনা
মিছিলে যারা গুলি করেছে
তারা আমাদের চেনা।

মা-বোন আর স্ত্রীর
শুধু কান্না আর আকুলতা
যেখানেই যাই শুনি একটাই
আমাদের চাই ‘স্বাধীনতা’।

সময় এসেছে হিসাব নেয়ার-
তাদের অন্যায়ের-সাজা দেয়ার,
বলতে হবে ক্ষমা চেয়ে নেও-
দেশের উন্নয়নে মনোযোগী হও।

শহীদ ভাইদের সেই স্বপ্ন
রং তুলিতে এঁকেছি
সুখের পায়রা উড়েছে গগণে
আমি বিজয় দেখেছি।



হায়াত মাহমুদ, সিডনি



Published on: 15-Dec-2015


বিজয় আমি দেখেছি
হায়াত মাহমুদ


Published on: 15-Dec-2015


এই লিংক থেকে SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন



সুরধ্বনি ক্যানবেরার অনুষ্ঠান
তারিক জামান


প্রায় ১৮ মাস পর ক্যানবেরার সুরধ্বনি একাডেমী তাদের গানের বার্ষিক অনুষ্ঠান করলো। পারমিতা দে তার ছোট বড় শিক্ষার্থীদের দিয়ে যে ভাবে পারফরমেন্স করিয়ে নিলেন... এক কথায় অপূর্ ! আর পারমিতার কথা কি বলব- যারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তারা নিশ্চয় বুঝতে পেরেছেন পারমিতা কত বড় এবং উঁচু মাপের একজন গাইয়ে। বারো বছর গান শিখেছেন ২১ শে এবং অনেক পদক পাওয়া সিলেটের পণ্ডিত রাম কানাই দাসের কাছে। মাঝে বর্তমান সময়ের উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতের লিজেন্ড পণ্ডিত অজয় চক্রবর্তীর কাছেও শিক্ষা নিয়েছেন। পারমিতার প্রতিভা নিশ্চয় পন্ডিতজীর নজর এড়িয়ে যায় নাই; তাই উনি গতবারের মত এবারেও skype এর মাধ্যমে পারমিতা, সুরধ্বনি এবং অনুষ্ঠানের জন্য আশীর্বাদ পাঠিয়েছেন। (এর মাঝে বলে রাখি আমার খুব ইচ্ছে কোনো একদিন পন্ডিতজীর গান উনার সামনে বসে শুনব।

সুরধ্বনি প্রতিবারের মত এবারেও তাদের অনুষ্ঠান ঠিক সময়েই শুরু করেছে, মাঝে ৩০ মিনিটের বিরতি দিয়ে প্রায় সাড়ে তিন ঘণ্টার অনুষ্ঠান- এক কথায় অনেক বড় প্রাপ্তি। ছোটদের গান দিয়ে শুরু... তারপর পারমিতার উচ্চাঙ্গ নির্ভর কয়টা একক, তার বয়স্ক শিক্ষার্থীদের একক এবং সমবেত পরিবেশনা। সবাইকে অবাক করেছেন আমাদের ইউসুফ ভাই- 'জীবনানন্দ হয়ে সংসারে আমি.....' গেয়ে। খুব ভালো গেয়েছেন এবং নিজের সীমাবদ্ধতা সম্পর্কে খুব সচেতন ছিলেন, অতিরিক্ত কিছু করার চেষ্টা করেন নাই। এইটা একজন শিল্পীর অনেক বড় গুন। ইউসুফ ভাইকে ধন্যবাদ। অরুণের সম্পর্কে কিছু বলার নাই- এমনিতেই ভালো গায়, গতকালও ভালো গেয়েছে লাকি আকন্দের 'আগে যদি জানতাম....। ডা. রানা গতকাল তবলার বদলে কন্ঠ শিল্পী ছিলেন; ডা. রুম্মান দেখি ভালো কীবোর্ডও বজায়। ডাক্তারি বিদ্যার পাশে এতসব কেমনে শিখল আর এখনো তা ধরে আছে... অভিনন্দন।

পারমিতার কোন গান রেখে কোনটা বলব; আধুনিক, নজরুল, রবীন্দ্র, ভাওযাইয়া, মুর্শিদী, লালন, হাছন সব কিছুতেই শ্রোতাদের মন ভরিয়ে দিয়েছেন। পরিচ্ছন্নতা এবং ভালো পরিকল্পনার ছাপ ছিল পুরো অনুষ্ঠান জুড়ে। সব রকম শ্রোতার জন্যই গান ছিল। সামান্য সময়ের জন্যও শ্রোতারা বিরক্ত হয় নাই। বিরতির আগে বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের ৬৯ সাল থেকে ৯০ দশকের গানের 'কোলাজ' এবং 'ইবলিশ শয়তানে তার আশা পুরাইল... আমার বা তার বেশি বয়সীদেরকে তাদের ছাত্রজীবনে ফিরিয়ে নিয়ে গেছিল। 'কোলাজে'র প্রথম গান 'গানেরই খাতায় স্বরলিপি লিখে....পুরো অডিটরিয়াম নিস্তব্ধ করে দিয়েছিল। পারমিতা চমত্কার গেয়েছেন, সাথে তার ছাত্র-ছাত্রীগণও। বিরতির পর 'দিল কিয়া চিজ হে, আপ জান ভি লি জিয়ে... ' খুবই সুন্দর গেয়েছেন পারমিতা। গানের সাথে আমি ফিরে যাচ্ছিলাম ঢাকার ধানমন্ডিস্থ ভারতীয় কালচারাল সেন্টারে, ১৯৮২ সালে প্রথমবারের মত উমরাওজান দেখি বড় ভাইয়ের সাথে, কারণ VCR তখনও অনেক দামী বস্তু। আমার দৃশ্যগুলো আবছা আবছা মনে পড়ছিলো : লাল ঘাগরা পড়া রেখার সেই সম্মোহনী নাচ (আচ্ছা অমন করে চোখ দিয়ে কেমনে এত কথা বলে!), সাম্পানে বসে ফারুখ শেখের মুচকি হাসি, নাসিরুদ্দিন শাহর জানালা দিয়ে উকি দিয়ে দেখা, আরো কত কি ! আশা ভোসলের গাওয়া, শাহরিয়ার আর খৈয়ামের লেখা আর কম্পোজিশনে এমন গান আবার কবে হবে কে জানে!

একজনের কথা না বললে অন্যায় হবে: সে হচ্ছে তাপস। তবলায় তার হাত দুটি যা দেখালো! ঈর্শা করার মত তার হাত দুটো। পারমিতার গানের সাথে তাপসের তবলা - কোনটা শুনি কোনটা দেখি। ক'দিন আগে কথায় কথায় রসায়ন শাস্ত্র পাশ করা তাপসের সাথে কথা হচ্ছিল খুব কম অনুষ্ঠানে ওর তবলা বাজানো নিয়েI তাপস বলছিল যে সে চ্যালেঞ্জ পছন্দ করে; আমার বিশ্বাস তাপস তা পেয়েছে। পারমিতার সাথে কিছুক্ষণ যুগলবন্দীতে যা দেখালো! হল জুড়ে শুধু তালি আর তালি! তাপসের তবলার বাদন দিনে দিনে আরো ভালো হোক কামনা করিI বাঙালি না হয়েও জর্জ আর রুবন- দুজনেই বাঙালিদের অনেক অনুষ্ঠানে কঙ্গো আর ড্রাম বজায়, খুবই চমত্কার! গতকালও ব্যতিক্রম ছিল না।

অনুষ্ঠানের আরো একটা দিক লক্ষণীয় ছিল: Master of Ceremony (MC) এর কথার কম অত্যাচার। যতটুকু বলার ঠিক তত টুকু। ভিনদেশীদের উপস্থিতির কথা ভেবে MC ইংরেজিতে বলেছেন, তবে পুরোটা ইংরেজি না বলে কিছু বাংলায় বললে আরো ভালো হত, কারণ ৯৫ ভাগ দর্শক ছিল বাঙালি। যাই হোক গান আমাদের সব ভুলিয়ে দিয়েছে। অনুষ্ঠানের সাথে জড়িত সবাইকে অনেক অনেক ধন্যবাদ এমন একটা প্রাঞ্জল সন্ধ্যা ক্যানবেরা বাসীদের উপহার দেবার জন্য। ভাস্কর দা' .... আপনাকে কি আলাদা করে ধন্যবাদ দেব?

অনুষ্ঠানের টিকেট এবং অন্যান্য উৎস থেকে অর্জিত পুরো অর্থটাই চলে যাবে 'Let's work for Bangladesh' আর ভারতের 'সহয়া' নামের এক দাতব্য প্রতিষ্ঠানে। সুরধ্বনির অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকুক।




তারিক জামান, ক্যানবেরা



Published on: 11-Dec-2015


এই লিংক থেকে SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন



বাংলাদেশ নাইট ২০১৫
মাহমুদ হোসেন


গত ১লা নভেম্বর সিডনিস্থ UNSW এর সাইন্স থিয়েটার হলে অনুষ্ঠিত হলো জমকালো সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা বাংলাদেশ নাইট ২০১৫। বাংলাদেশের সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের সাহায্যার্থে আয়োজক সংগঠন "লিসেন ফর" এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। সম্প্রতি বাংলাদেশের কণ্ঠশিল্পী দি রক স্টার শুভ সংগীত বিষয়ে পড়াশোনার জন্য সিডনি আসেন। তিনি এবং তার কিছু কাছের মানুষের উদ্যোগে পথচলা শুরু হয় "লিসেন ফর" এর। অনুষ্ঠানটিতে সংগীত পরিবেশনা করেন বাংলাদেশ থেকে আগত ব্যান্ড ফুয়াদ ন ফ্রেন্ডস, বেসবাবা সুমন (অর্থহীন), কণা, দি রকস্টার শুভ নিজে এবং ডি জে রাহাত। পুরো অনুষ্ঠানটির ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এর দায়িত্বে ছিল স্বনামধন্য ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান creato. প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার চিত্রশিল্পী জনাব রশিদ খান উপস্থিত ছিলেন অনুষ্ঠানে এবং মূল অনুষ্ঠান শুরুর আগে তার একটি একক চিত্রকর্ম প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়। এই প্রদর্শনী থেকে যা অর্থ উপার্জিত হয় তার পুরোটাই সেভ দি চিলড্রেন বাংলাদেশ শাখায় দান করা হয়।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই ছিল চমক লাগানো থ্রি ডি ম্যাপিং এর মাধ্যমে লোগো উন্মোচন। প্রথমবারের মত অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ কমুনিটির কোনো অনুষ্ঠানে এই আয়োজন দেখা যায়। এরপরই মঞ্চে উঠে আসে দুটি শিশু যারা চমৎকার ভাবে বর্তমান বাংলাদেশ এবং অস্ট্রেলিয়ায় বসবাসরত বাংলাদেশী শিশুদের মধ্যে একটি তুলনামূলক চিত্র তুলে ধরে। এরপর একে একে মঞ্চে উঠে আসে লিসেন ফর এর সদস্যরা।সংগঠনের অন্যতম সদস্য দি রকস্টার শুভ মঞ্চে উপস্থিত হননি কারণ তিনি ব্যস্ত ছিলেন অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি নিয়ে। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক জনাব আখতার উদ্দিন টিপু এবং সভাপতি জনাব ফায়সাল ফরিদ। তারা বলেন তাদের সংগঠনটি সম্পর্কে। তারা জানান আজকের এই অনুষ্ঠান থেকে অর্জিত অর্থ দিয়ে তারা আগামী পাঁচ বছর তিনটি বাচ্চার ভরণ পোষণের দায়িত্ব নিবেন। তারা একে একে মঞ্চে আমন্ত্রণ জানান অনুষ্ঠানটির প্রধান পৃষ্ঠপোষক সেঞ্চুরি ২১ প্রপার্টি কেয়ার, মিন্টো এবং G M ক্যাব এর প্রতিনিধিদের এবং অন্যান্য সকল পৃষ্ঠপোষককে। অনুষ্ঠানটি সার্বিক ভাবে পৃষ্ঠপোষণ করেন আনন্দ ট্রাভেল, ম্যারিকভিল, কস্তূরী রেস্টুরেন্ট এন্ড ফাংশন সেন্টার, স্পাইস অফ লাইফ রেস্টুরেন্ট, স্মার্ট মানি ট্রান্সফার এবং স্মার্ট মোশন স্টুডিও। সকল পৃষ্ঠপোষকদের হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন সংগঠনটির বিপণন কর্মকর্তা জনাব শাহীন হাওলাদার এবং দাপ্তরিক সম্পাদক জনাব জাহিদুর রহমান।

অনুষ্ঠানটিতে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কমুনিটির অত্যন্ত জনপ্রিয় মুখ, সমাজ সেবক জনাব রশিদ ভুঁইয়া। আরো উপস্থিত ছিলেন Mr Ron Delezio যিনি আরেকজন রাজনীতিবিদ এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক দাতব্য সংগঠন এর প্রতিষ্ঠাতা। জনাব রশিদ ভুঁইয়া এমন একটি মহত উদ্যোগকে সাধুবাদ ও স্বাগত জানান। তিনি ভবিষ্যতে এই সংগঠনের বিভিন্ন কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত হওয়ার ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

অনুষ্ঠানের মূল পর্ব শুরু হয় ফুয়াদ ন ফ্রেন্ডস এর পরিবেশনার মাধ্যমে। দলটির ভোকাল দি রক স্টার শুভ জনপ্রিয় সব পুরাতন গান এর আধুনিক পরিবেশনায় মাতিয়ে তোলেন পুরো হলের দর্শকদের। তার অসাধারণ গায়কী তে মুগ্ধ সিডনিবাসী নতুন করে চিনলো শুভকে। এরপর ফুয়াদ মঞ্চে আমন্ত্রণ জানান কণ্ঠশিল্পী কণাকে। কণা তার গানের ভাণ্ডার খুলে বসেন আর মন্ত্রমুগ্ধ করে রাখেন হল ভর্তি দর্শককে। বিরতির আগে মঞ্চে আসেন অর্থহীনের সুমন। কর্কট রোগের সাথে সুদীর্ঘ লড়াইয়ের পর একজন হার না মানা নির্ভীক চিত্তের বীরের মতই তিনি মঞ্চে উঠে আসেন এবং মাতিয়ে তোলেন পুরো অডিটোরিয়াম। একে একে তার জনপ্রিয় গানের মূর্ছনায় আচ্ছন্ন করে রাখেন সবাইকে। বিরতির পর সুমন আবার মঞ্চে উঠে আসেন এবং শোনাতে থাকেন,"অদ্ভুত সেই ছেলেটি", "এপিটাফ", "তুমি ভরেছ এই মন" জনপ্রিয় সব গান। এরপর মঞ্চে আবার আসেন ফুয়াদ ন ফ্রেন্ডস, কণা এবং ডি জে রাহাত। একত্রে তারা পরিবেশন করে" চার ছক্কা হই চৈ"।

অনুষ্ঠানের শেষ অংশে ছিল প্রথমবারের মত অস্ট্রেলিয়াতে কোনো বাংলাদেশী ডি জের পরিবেশনা। ডি জে রাহাত তার সাবলীল ডি জেইং এর মাধ্যমে আবাল বৃদ্ধ বনিতা সবাইকে নিয়ে এসেছিলেন ডান্স ফ্লোরে। শিশুদের জন্য আয়োজিত এই অনুষ্ঠানের শেষ অংশে শিশুদের অংশগ্রহণ ছিল চোখে পরার মত। তারা মঞ্চের উপর তালে তাল মেলান ডি জে রাহাত এর সঙ্গে। অভাবেই সমাপ্তি ঘটে একটি অসাধারণ আয়োজনের। আর দর্শকদের সাথে কথা বলে জানা যায় এমন একটি আয়োজন সিডনি র বুকে এই প্রথম। তারা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন "লিসেন ফর" এর বাংলাদেশ নাইট পরবর্তী সংস্করণের জন্য।


মাহমুদ হোসেন, সিডনি
























Published on: 2-Dec-2015


বাংলাদেশ নাইট ২০১৫
মাহমুদ হোসেন


Published on: 2-Dec-2015


Grameen Support Group Australia Inc.
Notice of Annual General Meeting


Dear Member,

As per Clause 5.1 of the Constitution, the Annual General Meeting of GSG Australia Inc. will be held on Saturday, 28th November 2015 at Bangladesh Association office, 65 Spurway Street, Ermington from 3pm to 5pm.

Light refreshments will be provided.
Confirmation of attendance by email or phone will be appreciated.

Best Regards,

Rafiq Hasan, Secretary
0412 756 703

Nazrul Islam, President
0421 594 332





Published on: 18-Nov-2015


এই লিংক থেকে SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন



পরিবেশ সংবাদ
পরিবেশনায়: বাংলাদেশ পরিবেশ নেটওয়ার্ক (বেন)
পরিবেশ সংবাদ, বর্ষ ১১, সংখ্যা ৪২-৪৩, ২৫ অক্টোবর, ২০১৫


তিব্বতে বিশ্বের বৃহত্তম বাঁধ নির্মাণ করবে চীনঃ

ব্রম্মপুত্র-যমুনা নদের উপরের অংশ কে চীন ইয়ারলাং-সাংপো নামে অভিহিত করে থাকে। গত কয়েক বছর ধরেই শুনা যাচ্ছিল যে তিব্বতে অবস্থিত ইয়ারলাং-সাংপো নদে চীন জলবিদ্যুত কেন্দ্র স্থাপন করতে যাচ্ছে। সঙ্গত কারণেই ভারত সরকার এই খবরে উদ্ধিগ্ন বোধ করে, কারন ব্রহ্মপুত্রের উপর ভারতের অরুণাচল প্রদেশে বেশ কয়েকটি বাঁধ এবং জলবিদ্যুত কেন্দ্র রয়েছে। তিব্বতে বাঁধ তৈরী হলে ভাটিতে অবস্থিত ভারতের বাঁধ সমুহ ক্ষতিগ্রস্থ হবে, তাই ভারত সরকারের উচ্চ পর্যায়ে চীনের সাথে প্রস্তাবিত বাঁধের ব্যাপারে প্রতিবাদ করে এবং দেন-দরবার শুরু করে। এইসব প্রতিবাদে ভারত বাংলাদেশকে তার পাশে দাঁড়ানোর আহবানও জানায়। একেই বলে কপটতা, কারণ ভারতে নির্মিত এবং প্রস্তাবিত শত শত বাঁধের ফলে ভাটিতে অবস্থিত বাংলাদেশের অর্থনীতি এবং পরিবেশের অপূরণিয় ক্ষতি এরি মধ্যে সাধিত হয়েছে। বাংলাদেশের জনগন এবং সরকারের পক্ষ থেকেও অনেকবার অনেক প্রতিবাদ ভারতের কাছে পেশ করা হয়েছে। এসবেরই ফলাফল যে প্রায় শুন্য এ কথা বাংলাদেশের সব মানুষেরই জানা, কিন্তু এখন চীন বাঁধ নির্মাণ করার সিদ্ধান্ত নেওয়ায় ভারতের টনক নড়েছে, অথচ এ কথাটা বাংলাদেশের ব্যাপারে তারা আমলে নেয়নি। উজানে নির্মিত বাঁধের ফলে ভাটিতে অবস্থিত ভারত এবং বাংলাদেশ উভয়েরই ক্ষতি হবে এবং আমরা চীনের এই বাঁধ নির্মাণের বিরোধিতা করি, কিন্তু একই সঙ্গে ভারতের সরকারের কাছেও আমরা আবেদন জানাই যেন ফারাক্কা সহ উজানের সব বাঁধ তুলে ফেলা হয় এবং নদি সমূহকে তাদের প্রাকৃতিক নিয়মে চলতে দেওয়া হোক।
বিস্তারিত পড়তে এখানে ক্লিক করুণ


জামালপুর পৌর কতৃপক্ষ ব্রহ্মপুত্র নদকে আবর্জনার ভাগারে পরিণত করেছে

সরকারী কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব হচ্ছে আইন মেনে চলা এবং আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা। তারা নিজেরাই যদি প্রচলিত আইনকে অবজ্ঞা করে এবং ভংগ করে তাহলে আইনের শাসন কখনোই প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব হবেনা। জামাল্পুর পৌর কর্তৃপক্ষ এমন কাজটি করে যাচ্ছে, অর্থাৎ পরিবেশ সংরক্ষন আইনের তোয়াক্কা না করে ময়লা আবর্জনা সরাসরি ব্রম্মপুত্র নদে ফেলে সেই নদের পানি এবং জীব বৈচিত্রকেই ধ্বংসের মুখে টেলে দিচ্ছে। এটা কোনভাবেই চলতে দেওয়া যায়না। পরিবেশবাদি সংগঠন সমূহের উচিৎ এর বিরুদ্ধে ব্যাপক জনমত গড়ে তোলা এবং পৌর কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে দূর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা। তাদের বিরুদ্ধে মামলা করাও জরুরী, এবং প্রয়োজনে পরিবেশ মন্ত্রনালয়ের শরণাপন্ন হওয়াও জরুরী।
বিস্তারিত পড়তে এখানে ক্লিক করুণ


দখলদারদের পক্ষ নিচ্ছে নদী রক্ষা কমিশনঃ

রক্ষকরাই যখন ভক্ষক হয়ে উঠে তখন আশার আলো নিভে যায়। বাংলাদেশের পরিবেশ রক্ষার ক্ষেত্রে এ কথাটি প্রতিদিনের জন্যই সত্যি। নদী সমূহের নাব্যতা, সরকারী মালিকানা রক্ষা, পানির গুঙত মান রক্ষা করাই হচ্ছে নদী রক্ষা কমিশনের কাজ, কিন্তু বাস্তবে হচ্ছে উল্টো। বেন-বাপার অবস্থান সব সমই হচ্ছে প্রকৃতি-পরিবেশ-মানুষের পক্ষে। বেন-বাপা মনে করে যে, প্রকৃতিকে দিনের পর দিন বিনষ্ট করে এমনিতেই আমরা প্রকৃতির রোষাণলে রয়েছি। প্রকৃতিকে যদি এভাবে ধ্বংস করা হয় তবে ভবিষ্যতে বড় ধরনের প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে দেশবাসীকে পড়তে হবে। তাই প্রকৃতি-পরিবেশ, নদ-নদীসমূহকে রক্ষা করতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।।
বিস্তারিত পড়তে এখানে ক্লিক করুণ


রক্ষকরাই যখন ভক্ষকঃ

উপরের সংবাদ গুলি থেকে স্পস্ট যে জামাল্পুর হোক, কিংবা হবিগঞ্জ হোক, কর্তৃপক্ষই বাংলাদেশে দখলদার এবং পরিবেশ ধ্বংসে লিপ্ত। এমনই আরো একটি খবর পড়ুন রাজশাহীতে শাসক দলের নেতারাই কিভাবে পরিবেশ সংরক্ষন আইনের তোয়াক্কা না করে পুকুর ভরাট করে ফেলছে।
বিস্তারিত পড়তে এখানে ক্লিক করুণ


বড়াল এবং চলন বিল নিয়ে আর কথা নয়, কাজ দেখতে চাইঃ

বেন-বাপার অনেক দাবী এবং আন্দোলনের মধ্যে বড়াল এবং চলন বিল রক্ষা আন্দোলনের ইতিহাস দীর্ঘ। এ ব্যাপারে সরকারের পক্ষ থেকেও নানা ধরণের সহযোগিতার আশ্বাস অনেকবার এসেছে, কিন্তু কাজের কাজ এ পর্যন্ত তেমন কিছুওই হয়নি। আবারো সরকারের একজন মন্ত্রী বলেছেন বড়াল সহ দেশের সব নদী মুক্ত করে ড্রেজিং করা হবে। কথাটির মধ্যেই আসন চিত্রটি লুকিয়ে আছে “দেশের সব নদীই আসলে দখলদারদের আওতায় এবং এইগুলিকে মুক্ত করা দরকার।“ অনেক কথাতো হলো, এবার কাজের মাধ্যমেই নাহয় এ সরকার প্রমান করুক যে দুই দুইবার “চ্যাম্পিয়ন অফ দা আর্থের” সন্মাননা পাওয়া এই বাংলাদেশে শুধু জলবায়ূ পরিবর্তনের সাথে খাপ খাইয়ে নেওয়ার কৌশলপত্র তৈরীর পাশাপাশি পরিবেশ রক্ষা করাও জরুরী।
বিস্তারিত পড়তে এখানে ক্লিক করুণ





Published on: 9-Nov-2015


এই লিংক থেকে SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন



Shonar Hareen
Mostafa Abdullah


I am hoping that this article will be thought provoking and act as a catalyst for some soul searching on the part of the reader. It is definitely not intended to undermine or belittle any individual or a group. Most may not even accept the hypothesis presented, but at the least, some may be tinkered to think of an alternative of his or her own.

“How is the situation now in Bangladesh” is a common question that anyone returning or coming from Bangladesh is likely to face one time or other. I have had difficulty in dealing with this question. I had noticed that whatever my answer had been, often few seemed happy with it, and few others not so amused. The reaction depended on which side of the political fence one was in. Later I adopted, I thought a safe ploy. I would say; “if you are a faithful of the party in power than the situation is very good, otherwise - it is grave”. I turned out to be nobody’s friend.

In any case those of us that live abroad are often, for valid reasons, very concerned about our home country. I have participated in more discussions about the wellbeing and future of Bangladesh in the last five years in Sydney than in the previous thirty five years that I spent in Bangladesh. I suppose those that live in Bangladesh, accept whatever is there in its face value and live with it.

However, I feel there is one subconscious desire among many to return home some day if and when the situation improves. I know I myself feel that very strongly. I often dream of returning to live again in my lifelong surroundings in the Dhaka city. Like many others I hope and pray that Bangladesh will become a better place soon. But will it? And when?

I have never attempted to guess the answer. I think that I have neither the intellect nor the knowledge to delve into such a complicated matter. I am sure there are many analyses and inferences involving complex economic, socio-political and a host of other issues on this matter. However, one that seemed very simple and plausible to me came from the observation of a foreigner who worked and lived in Bangladesh for little over two years.

If I remember his name correctly, it is Phil Voucee. During the late 80s or early 90s, he was the Head of the Save the Children Fund Australia (SCFA) in Bangladesh. I befriended him at the Australian High Commission Recreation Centre in Dhaka. We played tennis twice a week for almost two years. Our usual routine was to sit and chat for some time after our game. Phil would sometimes talk about his work in Bangladesh and solicited my opinion on matters he thought I could shed light on.

On one of those evenings, Phil announced that he was about to finish his two-year term in Bangladesh and would leave soon. He mentioned that over the last two years he had made some specific observations about Bangladesh and its people. He went on to say that he had worked in few other countries of Asia, Africa and Latin America before coming to Bangladesh. He thought that the work standards of the people that he worked with here in Bangladesh were far better than that of most other places that he had been in. He had high regards for the bureaucrats, managers, doctors, engineers, teachers and others that he came across. He found most of them extremely capable and efficient in their field of work.

I was delighted to hear such rare praise of us. I thanked him for the glowing comments. He kept quiet for some time with a mischievous smile on his face. A little later he spoke up to say that all these had given rise to a question within him. He needed to find an appropriate person to make that query to. He thought I could be such a person for I had lived and worked most of my life in Bangladesh and at the same time had a fair bit of exposure to Western values and culture. He wished to put me on the spot. I put up a brave face waiting for the million dollar question. Phil asked: “In spite of all these things, why is this country in such shambles?”

I am no social scientist or economist who would have an appropriate answer to this question. I gave up and requested him to tell me of his findings. I believed he had one. One, who had made such minute observation over a period of time, must have had a finding of his own. He began by describing his work place in Bangladesh.

Phil headed an office of approximately 30 employees of different levels. He found most of them good, some very good and few not so good. One young man seemed much brighter than most. Over time, this young man had climbed up to a level in the organization where he was second to Phil. He performed remarkably well under Phil’s supervision. Phil made him the Head of a section where he had to supervise and direct a number of staff members. He was also responsible for taking decisions concerning his own area.

It turned out to be a nightmare. He failed to mange his staff properly and continually came to Phil with complaints about them. He was always very hesitant about taking decisions on his own. Phil said he had observed similar patterns of behavior in few other Bangladeshis when they were put in a leadership or decision-making position. This baffled him and he set out to find if there was any specific reason for such patterns of behavior.

This reminded me of a similar situation while I worked at the International Center for Diarrhoeal Disease Research, Bangladesh (ICDDR,B). There used to be six Program Directors with the authority and responsibility very close and similar to that of the Head of the organization, the Director. Of the six Program Directors three were Bangladeshis and three expatriates. While the expatriates seemed at ease at working independently and taking decisions on their own, their Bangladeshi counterparts mostly seemed hesitant and took almost everything to the Director for the final decisions.


Phil’s work involved visiting Save the Children Fund funded schools across the country. He observed that our early education system involved very little group work or group education. Children were taught and encouraged to strive for individual excellence. Concept of taking pride in group performance was non-existent. Most parents tried to ensure that their children had minimum intermingling with other children in the neighborhood. They feared that such activities may distract their children from the bookish education. There was very little scope or training for our children to grow up with much needed life skills - skills that are essential to be able to work together in teams towards common goals and to be a leader or manager of such goals.

Phil also observed that while there are rewards for success in our society, the punishments are severe for failures. A child may get a pat on the back for good results but failures would most likely bring about severe beating for the poor soul. As a result, the fears of failure always outweighed the chance of success in our minds. We appear to avoid confronting important issues and most of the time - play it safe. We are reluctant to take decisions in our work place in case it backfires.

As I was listening to Phil my mind traveled back to early seventies when I was about to enter government service after finishing university. An elderly retired gentleman offered me the following words of wisdom: “If you wish to prosper in the government service, make sure that you do not do anything. Even if you are the best of the best, there will always be a chance that out of ten decisions you make, at the least one could be wrong. This one incorrect action will haunt you throughout your career in the form of an entry in your “Confidential Report”. On the other hand if you do not do anything your report will remain clean as a slate”!

Phil visited many Bangladeshi households as their guest. He admired the neatness and cleanliness of most houses. At the same time, he noticed that in many cases the same household dumped its garbage on the road beside the house. He noticed that some households even stole newly laid bricks from the road in front of their own homes to repair or beautify their boundary walls. He inferred that these behavior patterns pointed to the lack of training and upbringing to appreciate collective belongingness. People are rarely seen queuing at bus stops so that everyone had a fair chance of getting on board. The concept of common wealth appeared to be very uncommon among most.

Our early education system and home environment produced some individual performers but lacked in scope to produce the much needed group performers and its leaders. To this day, the system discourages risk taking and exploring new heights. Consequently it is falling behind in world competition. My friend Phil inferred that unless we review and correct our early education system both at schools and within the family and then on to the society, it may not be possible to see a Bangladesh that most Bangladeshis aspire to see.

Bangladesh may have produced few outstanding individuals but failed to produce the right kind of leaders and mangers to take the country into the future. Some of it is due to our social behavior and attitude and some due to our historical background. We have always been ruled and never been a ruler. A nation needs to either rule itself and/or rule others to learn to be a ruler or leader / manager.

I thing we missed an opportunity to grow new leaderships by being helped into our independence within a very short time of nine months only. Had it been a lengthy protracted war of independence, new leaders could have immerged through failures and triumphs and the bad apples on both sides of the fence would have been eliminated in the process. Vietnam suffered enormous destruction fighting almost 30 years (11 years against France and 18 years against US) till it became victorious in 1975. The long struggle produced tried leadership and eliminated the bad elements. Vietnam is now a role model for other developing countries for its development and progress.

Phil Voucee hoped that if the reeducation and retraining process started now immediately, thirty years on Bangladesh could hope to get hold of that evasive golden deer (Shonar Hareen) that this nation has been cherishing through its poems and songs. More than ever, today this country needs to start the process and work through the next thirty years to produce a new generation, armed with the new mindset and life skills to takeover and run the country. Are we, as a nation to give it a try so that our future generations may have a better place to live and work?

Back in the 90s, I worked in a team of Asian development Bank (ADB) consultants contracted to develop a power sector plan for Bangladesh. On completion of the task the ADB team made a formal presentation of the draft plan in front of the then Minister for Power. The team leader introduced the plan by saying that it contained three achievable goals: a 5 year short-term goal, a 10 year mid-term goal and a 20 year long-term goal. The honorable Minister turned towards me, the only Bangla-speaking member of the consulting team, and harshly said ‘আরে ভাই আমরা আছি আর দুই বছর ইলেকশন পর্যন্ত, আমি পাচ বছরের প্লান দিয়া কি করমু?’ (We will be in the government for only two years until the next election. What good is a five year plan for me?).

It may be the appropriate occasion to draw conclusion to this write-up with a quotation from John F. Kennedy the 35th president of the United States of America; “The great French Marshall Lyautey once asked his gardener to plant a tree. The gardener objected that the tree was slow growing and would not reach maturity for 100 years. The Marshall replied, 'In that case, there is no time to lose; plant it this afternoon!”



Mostafa Abdullah, Sydney



Published on: 8-Nov-2015




Published on: 24-Aug-2015




গত ১৫ই মে ২০১৫, সিডনি'র দি পন্ডস এ শুরু হলো দাতব্য সংগঠন 'লিসেন ফর ইনক' এর আনুষ্ঠানিক পথচলা। কথা হলো সংগঠনের সভাপতি জনাব ফয়সাল ফরিদ জয়, সাধারণ সম্পাদক আক্তার উদ্দিন টিপু এবং ইভেন্ট সমন্বয়কারী মাহমুদ ইমন এর সঙ্গে। তারা জানালেন, সংগঠনটির শুরুর কথা, স্বপ্নের কথা, উদ্দেশ্য এবং ভবিষ্যৎ দিক নির্দেশনা সম্পর্কে।

জনাব আক্তার উদ্দিন টিপু জানান, “আট দশটি গতানুগতিক দাতব্য সংগঠনের চাইতে 'লিসেন ফর ইনক' সম্পূর্ণ আলাদা। আক্ষরিক অর্থেই আমরা চাই আমাদের সাধ্য ও সামর্থ্যের মধ্যে থেকে বাংলাদেশের বঞ্চিত সব পথ শিশুদের জন্য কিছু করতে।” মূলত ছয়জন স্বপ্নদ্রষ্টার স্বপ্নের ফসল আজকের 'লিসেন ফর ইনক'। জনাব ফয়সাল ফরিদ জয় বলেন “বাংলাদেশী পথ শিশুদের শিশু-শ্রম নিরসন, দরিদ্রতা বিমোচন, প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা প্রদান এই মৌলিক বিষয়গুলো নিশ্চিতকরণের লক্ষে 'লিসেন ফর' কাজ করবে”। এই পর্যায়ে 'লিসেন ফর' সরাসরি সম্পৃক্ত না হয়ে প্রাতিষ্ঠানিক ভাবে অংশিদারিত্ব করবে আরেক আন্তর্জাতিক দাতব্য সংগঠন 'সেভ দা চিলড্রেন' এর সাথে। প্রাথমিকভাবে 'লিসেন ফর' তাদের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে অর্থ যোগানের চেষ্টা করবে। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, ফান্ড রাইসিং ডিনার, জনসচেতনতা, সরাসরি ডোনেশনে অংশগ্রহণ ইত্যাদি আরো বিভিন্ন আয়োজনের মাধ্যমে চলবে এই অর্থ সংগ্রহ। এসব অনুষ্ঠান থেকে সংগৃহীত অর্থ সরাসরি চলে যাবে 'সেভ দা চিলড্রেন' এর বাংলাদেশী শাখায়।

আর এই ধারাবাহিকতায় আগামী ১লা নভেম্বর রবিবার 'লিসেন ফর' পরিবেশন করতে যাছে এক জমকালো সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা। তাদের প্রথম পরিবেশনা 'বাংলাদেশ নাইট'। UNSW এর সাইন্স থিয়েটার এ মনোমুগ্ধকর এক অনুষ্ঠান পরিবেশনার জন্য বাংলাদেশ থেকে আসছে স্বনামধন্য সঙ্গীত-আয়োজক ও কণ্ঠশিল্পী ফুয়াদ ও তার দল ( Fuad N Friends ), জনপ্রিয় ব্যান্ড 'অর্থহীন' (সুমন, রাফা) হালের সেনসেশন কনা, দ রক স্টার শুভ এবং ডি জে রাহাত।

অনুষ্ঠানটির পরিসর বাড়াতে 'লিসেন ফর' এর সাথে প্রাতিষ্ঠানিক ভাবে সংযুক্ত হয়েছে বাংলাদেশের বিখ্যাত ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান 'Creato'।
অনুষ্ঠান সম্পর্কে মাহমুদ ইমন বলেন, “অনুষ্ঠানটি হতে যাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া তে অনুষ্ঠেয় বাংলাদেশী কমুনিটির মধ্যে সর্ব বৃহৎ আয়োজন। বৃহৎ পরিসরের এই আয়োজনে যেই পর্যায়ের সাউন্ড, লাইট, ভিজুয়াল ইফেক্ট ব্যবহার করা হবে; আমাদের কমুনিটির জন্য তা হবে সম্পূর্ণ নতুন এক অভিজ্ঞতা।” তিনি আরো বলেন, “আমরা এই অনুষ্ঠান নিয়ে অনেক আশাবাদী। যেহেতু এটা আমাদের প্রথম আয়োজন আমরা চাইছি এমন কিছু করতে যা আমদের দর্শকদের হৃদয় কে নারা দিয়ে যাবে। তাছাড়া আমাদের যেকোনো আয়োজনই হবে বাংলাদেশের বঞ্চিত পথ-শিশুদের সাহায্য করার উদ্দেশ্যে আর তাই আমদের দর্শকরা একই সাথে দু দুটি ভালো লাগা নিয়ে বাড়ি ফিরবেন ইনশাল্লাহ। প্রথমত তারা একটি মানসম্পন্ন অনুষ্ঠান উপভোগ করবেন দ্বিতীয়ত তাদের ব্যয়-কৃত অর্থ একটি মহত উদ্দেশে ব্যবহৃত হবে।”

“আমি সবার কাছে বিনম্র অনুরোধ করছি আপনারা আমাদের অনুষ্ঠান দেখতে আসুন এবং আমাদের ক্ষুদ্র প্রয়াসটুকু সফল করতে সহায়তা করুন”






Published on: 24-Aug-2015



Australian Bengali Hindu Association
Bangladesh Society Puja and Culture
Sydney Utshab

Published on: 29-Sep-2015





Rokeya Sultana was born in Chittagong, Bangladesh, and received a BA in Printmaking from the Institute of Fine Arts University of Dhaka, Bangladesh, and an MFA in Printmaking from Vishwa Bharati University, Shantiniketan, India. She has participated in exhibitions across the globe, both solo and group exhibitions, and has shown her paintings and prints.


Mehwish Iqbal graduated from the National College of Art in Pakistan in 2002. She then completed her Masters of Art with distinction from the College of Fine Arts, University of New South Wales in 2010. Mehwish has shown her work widely through Australia, Pakistan, United States, and Turkey. She has been the recipient of several prestigious national grants and awards and participated in some of the most prestigious residence programmes in Australia, United States and Turkey. Mehwish lives in Merrylands.


Negin Chahoud was born in Iran in 1981 and currently resides in western Sydney, Australia. She holds a Certificate IV in Fine Arts at Nepean Arts and Design Centre, Kingwood TAFE and a Certificate IV in Interactive Media, Mt Druitt TAFE. Negin has exhibited her work in many group exhibitions throughout Sydney and internationally. Negin lives in St Marys.



Published on: 17-Oct-2015


এই লিংক থেকে SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন



প্রসঙ্গঃ প্রবাসী বাংলাদেশীদের
বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে প্রতিনিধিত্বের প্রশ্ন

ড. শামস্‌ রহমান


স্বাধীনতার পূর্বে মুক্তি পেলেও বাংলাদেশের বিশিষ্ট চলচ্চিত্রকার জহির রায়হানের ছবি ‘জীবন থেকে নেওয়া’ দেখেছি স্বাধীনতা উত্তর। সংসারে উপার্জনের প্রধান উৎস আইনজীবী ভাই হওয়া সত্যেও, সমস্ত সম্পদের কর্তৃত্ব এবং এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার শুধুই বোনের। তাই টাকা-পয়সা, ধন-রত্ন ভর্তি সিন্দুকের চাবির গোছা শোভা পায় তারই কোমরে। উপার্জন আর অবদান একজনের, আর তার অন্যায্য ব্যবহারের অধিকার অন্যজনের – এ কেমন প্রথা? এটা যেমন অযৌক্তিক, তেমনি বাস্তবতার সাথে অসঙ্গতিপূর্ণ। কোন (দুর্বলতার) কারণে, কোন কালে এ প্রথা চালু হলেও, চলতে পারে না চিরদিন। যৌক্তিকতা ও বাস্তবতার নিরিখে এর অবসান অপরিহার্য। তাই ঘাত-প্রতিঘাতের মাঝে শেষে প্রতিষ্ঠিত হয় সত্যের। ১৯৬৯ যা ছিল একটি সিনেমার গল্প; ১৯৭১ তা রূপ নেয় বাস্তবে। আর এভাবেই প্রতিষ্ঠিত হয় – ‘যার অবদান যতটুকু, তার সিদ্ধান্তের ভূমিকা ততটুকু’।

এ গেল রাষ্ট্রের কথা। ব্যক্তি জীবনে বিষয়টা উপলব্ধি করতে আমাকে দৌড়াতে হয় এডিবি (এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক) হেড কোয়ার্টার ম্যানিলা পর্যন্ত। আমি তখন এ আই টিতে মাস্টার্স শেষ করেছি মাত্র। অনেকটা কাকতালীয় ভাবেই এডিবিতে চাকরীর একটা এড চোখে পড়ে সেই সময়। পদের শিরনাম Young Professional। আর পদের সংখ্যা দুটি। নিজের অভিজ্ঞতা আর যোগ্যতার সাথে বেশ মিল দেখে, দেরী না করে আবেদন করি। এবং তার কিছুদিনের মধ্যে ম্যানিলা বেড়াতে গেলে, আবেদনপত্রের পরিস্থিতি সম্পর্কে জানার জন্য একদিন হাজির হই এডিবি হেট কোয়ার্টার। সহজেই সাক্ষাতের সুযোগ পাই একজন ঊর্ধ্বতন অর্থনীতিকের সাথে। ভদ্রলোক যে একজন বাঙালি তা তাঁর নাম এবং ইংরেজিতে নামের বানান দেখে বুঝতে পারি। আমার সাক্ষাতের উদ্দেশ্যের কথা উত্থাপন করলে তিনি যা বলেন, সংক্ষেপে তা এমনঃ

‘জাপান এডিবিতে সবচেয়ে বেশী অর্থ যোগান দেয়, তাই সিদ্ধান্তে জাপানের অভিমত অপেক্ষাকৃত বেশী গুরুত্বপূর্ণ। দুটি পদের একটি অবশ্যই জাপানী কেউ পাবে। তবে, নিঃসন্দেহে সে ব্যক্তি যোগ্যতা সম্পন্নও হবে। দ্বিতীয়টি, এশিয়ার যে কোন দেশ থেকে হতে পারে। তাই বেশী আশা না করাই ভাল। কষ্ট পেলেও মেনে নেই সেদিনের সেই বাস্তবতা – ‘যার যত বেশী অবদান, তার তত বড় ছে’।

বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রধান দুটি চালিকা শক্তির একটি রেমিটেন্স – মানে দেশে পাঠানো প্রবাসীদের উপার্জিত অর্থ। অনেকের মতে আধুনিক কালে পূর্ব বাংলা থেকে কাজের জন্য বিদেশে যাওয়া শুরু হয় ১৯৪২ সনে দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধের সময় থেকে। তখন প্রবাসীদের কাজের জন্য এক ধরনের স্কিম চালু করে বিলাতী সরকার। চল্লিশ এবং পঞ্চাশ দশকে পূর্ব বাংলার অনেকেই এ সুযোগ নিয়েছে, বিশেষ করে সিলেট-বাসী (Ahmed, 2010)। সেদিনের যাওয়াটা প্রধানত জাহাজে চেপে বিলাতের বন্দর নগরগুলিতে যাওয়ার মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল। এবং তা হতো মূলত: ব্যক্তি উদ্যোগে। সঙ্গবদ্ধভাবে মাইগ্রেন্ট ওয়ার্কার (বিভিন্ন শ্রেণীর শ্রমিক ও প্রফেশনাল) হিসেবে প্রবাস যাওয়ার যাত্রা শুরু মূলত: স্বাধীনতার পর। ১৯৭৬ সনে যাদের সংখ্যা ছিল আনুমানিক ছয় হাজার, আজ তা দাঁড়িয়েছে ৯০ লক্ষের (৯ মিলিয়ন) ঊর্ধ্বে (BMET, 2015), যা বাংলাদেশের জনসংখ্যার প্রায় ৫ দশমিক ৭ শতাংশ। এই সংখ্যক মাইগ্রেন্ট ওয়ার্কারদের আয়ের সাথে বাংলাদেশে বসবাসরত আরও অন্তত চার গুন মানুষ প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে জড়িত। তার মানে, বাংলাদেশের জনসংখ্যার প্রায় ২৫ শতাংশ জনগোষ্ঠী পারিবারিক ভাবে রেমিটেন্সের সাথে সম্পৃক্ত। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত থাকলেও, বেশী সংখ্যক বাংলাদেশী প্রবাসীরা মধ্যপ্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকার দেশগুলিতেই কার্যরত।

এ গেল ‘রেমিটেন্স-জনসংখ্যা’ নির্ভরশীলতা সম্পর্কিত বিশ্লেষণ। এবার দেখা যাক বাংলাদেশের অর্থনীতির দিকটি।

আগেই বলেছি, বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রধান দুটি চালিকা শক্তির একটি রেমিটেন্স, অন্যটি তৈরি পোশাক খাত। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী গত ২০১৩-১৪ অর্থ বছরে তৈরি পোশাক খাত থেকে রপ্তানি আয় ছিল ২৫ বিলিয়ন ডলারের অধিক। সেই একই অর্থ বছরে রেমিটেন্সের পরিমাণ ছিল ১৪ দশমিক ২৩ বিলিয়ন ডলার। আপাত দৃষ্টিতে রেমিটেন্সের পরিমাণ তৈরি পোশাক খাতের রপ্তানি আয়ের ৫৭ শতাংশ দেখালেও, রেমিটেন্সের মাধ্যমে ‘নেট’ বৈদেশিক আয় পোশাক খাত থেকে প্রায় তিন গুন বেশী। এ পরিসংখ্যানটা সকলের অনুধাবন করা বিশেষভাবে প্রয়োজন। শুধু তাই নয়, বাংলাদেশে বছরে যে বৈদেশিক সাহায্য আসে, তার ৭ গুন বেশী রেমিটেন্স আয় (RMMRU, 2014)।

বছর বছর রেমিটেন্স আসছে এবং উত্তর উত্তর তা পরিমাণে বাড়ছে। কিন্তু তাতে দেশের কোন কাজে লাগছে কি? মানে, দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে রেমিটেন্সের উল্লেখযোগ্য ভূমিকা আছে কি? এক কথায়, ‘রেমিটেন্স-উন্নয়ন’ লিংক কি তাৎপর্যপূর্ণ? এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বেশ কিছু গবেষণা হয়েছে। আমি সম্প্রতি প্রকাশিত কয়েকটি গবেষণার উল্লেখ করছি এখানে। একাত্তরটি দেশের পরিসংখ্যান নিয়ে গবেষণার ভিত্তিতে বিশ্ব ব্যাংকের গবেষকেরা মন্তব্য করেন: ‘….remittances significantly reduce the level, depth, and severity of poverty in the developing world’ (Adams Jr. p. 1645, 2005)। তারা আরও উল্লেখ করেন: ‘….. a 10% increase in the share of international migrants in a country’s population will lead to a 2.1% decline in the share of people living on less than $1 person per day’। যথাক্রমে, ২৪, ১০০ এবং ১৬১ টি দেশের পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে একই ধরণের উপসংহার টেনেছে সম্প্রতি প্রকাশিত আরও কয়েকটি গবেষণা প্রবন্ধ (Giuliano and Ruiz-Arranz, 2009; Gupta et al., 2009; Catrinescu et al., 2009; Lartey, 2012)। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ‘রেমিটেন্সে-উন্নয়ন’ লিংক বোঝার উদ্দেশে পরিচালিত সম্প্রতি এক গবেষণায় উল্লেখ করা হয় যে, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে রেমিটেন্সের ভূমিকা তাৎপর্যপূর্ণ (Siddique et al., 2012)।

বাংলাদেশে রেমিটেন্সের ভূমিকা শুধুই অর্থনৈতিক উন্নয়নেই সীমাবদ্ধ নয়; সামাজিক অঙ্গনেও এর প্রভাব লক্ষণীয়। BRAC (Bangladesh Rural Advancement Committee)’এর এক গবেষণায় দেখা গেছে – ‘Overseas migration of adult males has a significant positive association with women’s decision-making capacity and education of girls in the migrant families’ (Hadi, 2001, p. 53)।

উপরের আলোচনা থেকে এটা প্রতীয়মান, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক এবং সামাজিক উন্নয়নে রেমিটেন্সের ভূমিকা ব্যাপক। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, যারা রেমিটেন্স পাঠায়, দেশের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের সিদ্ধান্তে তাদের কি কোন ভূমিকা আছে বা থাকার কথা? কিংবা, থাকা কি প্রয়োজন? বলার অপেক্ষা রাখে না যে বর্তমানে এ ব্যাপারে প্রবাসীদের কোন ভূমিকাই নেই। গত কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশ সরকার দেশের সার্বিক উন্নতির জন্য স্কয়ারের বাইরে উন্নয়নের কৌশল খুঁজছে। সেটা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। আর সে কারণেই আমরা আশা করি সরকার মাইগ্রেন্ট ওয়ার্কার বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলির প্রতি নজর দেবে এবং সঠিক সিদ্ধান্ত নেবে। মানে, সরকার মাইগ্রেন্ট ওয়ার্কার তথা বাংলাদেশী প্রবাসীদের ভূমিকার আইনগত স্বীকৃতি দেবে। এই স্বীকৃতিতে বাংলাদেশের উন্নতি আরও ত্বরান্বিত করবে বলে আমার বিশ্বাস। স্বীকৃতি স্বরূপ প্রবাসীদের জন্য সরকারের তিনটি পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি:

১) মাইগ্রেন্ট ওয়ার্কারদের সম্মানের সাথে দেখা – প্রবাসী রেমিটেন্স আর্নারদের যাতায়াত মূলত বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর দিয়ে। ইমিগ্রেশন এবং কাস্টমসে তাদের সম্মানের সাথে স্বাগত জানানো উচিত। সব সময়, অথবা নিয়োজিত সব কর্মকর্তাই যে অসম্মানের দৃষ্টিতে দেখে মোটেই তা নয়। তবে, অভিজ্ঞতার আলোকে বলছি – মধ্যপ্রাচ্য থেকে যারা দেশে ফেরেন, আগত অন্য প্রবাসীদের তুলনায় তাদের বেশী হয়রানি পোহাতে হয়, এ ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই। বলা বাহুল্য, বাংলাদেশের রেমিটেন্স আয়ের প্রায় ৭০ শতাংশ আসে মধ্যপ্রাচ্যের গুটি কয়েকটি দেশ থেকে। তাই সম্মানের দাবীদার প্রধানত তারাই যারা মধ্যপ্রাচ্যে প্রবাসী।

২) অর্থ পাঠানো সহজোতর ও নিরাপদ করা – বর্তমান সরকার এ বিষয়ে কিছু উদ্যোগ নিয়েছে বটে, তবে তা যথেষ্ট নয়। উল্লেখ্য, হুন্ডি এবং ‘সঙ্গে নিয়ে’ আসা বৈদেশিক মুদ্রার পরিমাণ নেহায়েত কম নয়। অনেক গবেষকের মতে এর পরিমাণ অফিশিয়াল রেমিটেন্সের প্রায় অর্ধেক। অফিশিয়াল পদ্ধতিতে বৈদেশিক মুদ্রা পাঠানো আরও সহজ এবং আকর্ষণীয় করলে অফিশিয়াল রেমিটেন্সের পরিমাণ তৈরি পোশাক খাতের রপ্তানি আয়ের কোন অংশে কম হবে না, বরঞ্চ বেশী হওয়ার সম্ভাবনাই বেশী। বিশেষজ্ঞদের মতে, লেন-দেনের খরজ কমানো, দ্রুত টাকা পাঠানোর পদ্ধতি ও ব্যবস্থা স্থাপন এবং নিরাপদ ও নিশ্চয়তা প্রদানের মধ্য দিয়ে আস্থা বাড়াতে পারলেই অফিশিয়াল পদ্ধতিতে রেমিটেন্স পাঠানো আরও আকর্ষণীয় করা সম্ভব।

৩) সংসদে প্রতিনিধিত্ব প্রদান করা – আগেই উল্লেখ করেছি, প্রবাসী বাংলাদেশীদের সংখ্যা ৯০ লক্ষের (৯ মিলিয়ন) অধিক যা বাংলাদেশের জনসংখ্যার প্রায় ৫ দশমিক ৭ শতাংশ। আর ভোটার সংখ্যার তুলনায় প্রবাসী বাংলাদেশীদের সংখ্যা শতাংশের নিরিখে আরও বেশী। যেমন, দেশের জনসংখ্যা ১৬০ মিলিয়ন, আর ভোটার সংখ্যা ৯৭ মিলিয়ন (IDEA, 2015)। অন্য দিকে প্রবাসী তথা মাইগ্রেন্ট ওয়ার্কারদের বেশীর ভাগই সাবালক। সে হিসেবে প্রবাসী ভোটার সংখ্যা সমস্ত ভোটার সংখ্যার প্রায় ৯ দশমিক ১ শতাংশ। এই বিশাল সংখ্যক ভোটার যারা বাংলাদেশের অর্থনীতিতে অর্থের জোগান দিচ্ছে নিরলস ভাবে, অথচ দেশের অর্থনৈতিক এবং সামাজিক কর্মকাণ্ডের সিদ্ধান্তে তাদের অভিমত কিংবা মতামত নেওয়ার কোন প্রকার প্রাতিষ্ঠানিক পদ্ধতি চালু হয়নি আজ অব্ধি। প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্য ভোটাধিকার এবং সেই সাথে সংসদে প্রতিনিধিত্ব প্রদানের মধ্য দিয়ে তা নিশ্চিত করা অত্যাবশ্যক।

প্রবাসীদের নিজ দেশের সংসদে প্রতিনিধিত্ব করার বিষয়টি নতুন কোন ধারণা নয়। অনেক উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশেই এ প্রথা প্রচলিত। যেমন, ইতালি, ফ্রান্স। সেই সাথে আফ্রিকার আলজেরিয়া, এঙ্গোলা, মোজাম্বিক, ল্যাটিন আমেরিকার কলম্বিয়া, পূর্ব ইউরোপের ক্রোয়েশিয়া, ম্যসেডোনিয়া এবং আরও বেশ কয়েকটি দেশ। ফ্রান্সের জাতীয় সংসদে মোট ৫৭৭ টি আসনের মধ্যে ১১ টি ফ্রান্সের প্রবাসীদের জন্য নির্ধারিত (Wikipedia, 2015)। অন্য দিকে প্রবাসী ইতালিদের জন্য ১২ টি আসন ইতালির জাতীয় সংসদে। পৃথিবীর প্রবাসী জনসংখ্যার ভিত্তিতে কন্সটিটিউয়েন্সি তৈরি করে নির্বাচনের মাধ্যমে নির্ধারিত হয় প্রতিনিধি। তিউনিসিয়ার জাতীয় সংসদে মোট ২২৭ জন সদস্যের ১৮ জন প্রবাসী তিউনিসিয়ানদের প্রতিনিধিত্ব করে। আর, ম্যসেডোনিয়াতে তিনটি আসন প্রবাসীদের জন্য সংরক্ষিত ((Wikipedia, 2015a)।

পদ্ধতিগত দিক থেকে প্রথমে, প্রবাসী বাংলাদেশীদের জনসংখ্যার ভিত্তিতে পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলে নির্বাচনের কন্সটিটিউয়েন্সি তৈরি করা। বাংলাদেশের একটি সংসদ সদস্যের কন্সটিটিউয়েন্সি যে সংখ্যক ভোটার দ্বারা নির্ধারিত হয়, সেই একই সংখ্যক ভোটার দ্বারা নির্ধারিত হতে পারে প্রবাসের নির্বাচনী কন্সটিটিউয়েন্সি। আগে উল্লেখ করেছি প্রবাসী ভোটার সংখ্যা বাংলাদেশের সমস্ত ভোটার সংখ্যার প্রায় ৯ দশমিক ১ শতাংশ। সেই অনুপাতে বর্তমান বাংলাদেশের ৩০০ টি আসনের জাতীয় সংসদে প্রবাসীরা অন্তত ২৭ টি আসনের প্রতিনিধিত্বের দাবী করতে পারে।

এ প্রতিনিধিত্ব শুধুই প্রতিনিধিত্বের জন্য নয়। সংসদে প্রতিনিধিত্ব প্রদানের মাঝে প্রবাসে অবস্থিত বাংলাদেশের প্রায় ৯ দশমিক ১ শতাংশ ভোটার এবং রেমিটেন্স পাঠানো শ্রমশক্তির সাথে দেশের সরকার ও প্রশাসনের গড়ে উঠবে একটি পেশাদারিত্ব সম্পর্ক। তা থেকে বাংলাদেশের যে যে বিষয়ে সুবিধার সম্ভাবনা আছে তার কয়েকটি হলোঃ

১) প্রবাসে আজ অনেকেই বড় বড় প্রতিষ্ঠানের মালিক যারা দেশে বিনিয়োগে আগ্রহী। পেশাদারিত্ব সম্পর্ক গড়ে উঠার কারণে দেশে প্রবাসীদের প্রত্যক্ষ বিনিয়োগ বাড়ার সম্ভাবনা অনেক। সেই সাথে বাংলাদেশী প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের সাথে বিদেশি ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠানের জয়েন্ট ইনভেস্টমেন্ট বাড়ার সম্ভাবনা সৃষ্টি হবে।

২) কোন দেশে কি পেশা এবং কি ধরনের দক্ষতা সম্পন্ন পেশাজীবীর প্রয়োজন তা নির্ধারণ করা সহজ হবে। তার প্রভাব পরবে দু দিকে:

এক) দেশে গড়ে উঠবে সঠিক দক্ষতা তৈরির প্রতিষ্ঠান। প্রসারিত হবে কর্মসংস্থান।

দুই) দক্ষ এবং অধিক কর্মজীবী রপ্তানির সুযোগ সৃষ্টি হবে; আর সৃষ্টি হবে সমপরিমাণ সংখ্যক শ্রমের বিনিময়ে অধিক রেমিটেন্স আয়ের সম্ভাবনা। উদাহরণ স্বরূপ ভারত এবং ফিলিপিন্সের কথা বলা যেতে পারে।

প্রশ্ন হচ্ছে, এত সব বিবেচনায় নিয়ে বাংলাদেশ সরকার শীঘ্রই এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টির প্রতি নজর দেবে কি? সরকার কি প্রবাসীদের ভূমিকার আইনগত স্বীকৃতি দেবে? নাকি, সেই হীরক রাজার দেশের মত ‘শ্রমিকরা আবার হীরকের কি বোঝে?’ এই মানসিকতার ধারায়, তারা শুধুই রেমিটেন্স পাঠিয়ে ক্ষান্ত? সরকার কি এডিবি’র বাস্তবতার আলোকে – ‘যার যত বেশী অবদান, তার তত বেশী ছে’, সঠিক সিদ্ধান্ত নেবে? নাকি মাইগ্রেন্ট ওয়ার্কারদের ‘জীবন থেকে নেওয়া’ সিনেমার মূলমন্ত্রে দীক্ষিত হয়ে – ‘যার যতটুকু অবদান, তার সিদ্ধান্তের ভূমিকা ততটুকু’র জন্য দাবী জানাতে হবে? আমি মনে করি দাবী উঠার আগেই সরকার বাংলাদেশী মাইগ্রেন্ট ওয়ার্কার তথা বাংলাদেশী প্রবাসীদের ভূমিকার আইনগত স্বীকৃতি দেবে। আর সেটাই হবে নেতৃত্বের উৎকর্ষতার পরিচায়ক।



___________________________________________

Reference:

1. Adams Jr, R and Page, J (2009), "Do international migration and remittances reduce poverty in developing countries?", World Development, 33, 10, 1645-1669.

2. Ahmed, M S (2010), "Migrant workers remittance and economic growth: evidence from Bangladesh", ASA University Review, 4, 1, 1-13.

3. BMET (2015), Bureau of Manpower Employment and Training, Government of Bangladesh, http://www.bmet.org.bd (accessed 5 September).

4. Catrinescu, N, Leon-Ledesma, Piracha, M, and Quillin, B (2009), "Remittances, institutions, and economic development", World Development, 37, 1, 81-92.

5. Giuliano, R and Ruiz-Arranz, M (2009), "Remittances, financial development, and growth", Journal of Development Economics, 90, 144-152.

6. Gupta S, Pattillo, C A, Wagh, S (2009), "Effect of remittances on poverty and financial development in Sub-Saharan Africa", World development, 37, 1, 104-115.

7. Hadi, A (2001), "International migration and the change of women's position among the left-behind in rural Bangladesh", International Journal of Population Geography, 7, 53-61.

8. IDEA (2015), Voter turnout data for Bangladesh, http://www.idea.int/vt/countryview .cfm?id=20 (accessed 5 September, 2015).

9. Lartey, E K K (2013), "Remittances, investment and growth in sub-Saharan Africa", The Journal of International Trade & Economic Development, Vol. 22, No. 7, 1038-1058.

10. RMMRU (2014), Refugee and Migration Movements Research Unit , University of Dhaka, 2014.

11. Siddique, A, Selvanathan, E A and Selvanathan, S (2012), "Remittances and economic growth: empirical evidence from Bangladesh, India and Sri Lanka", The Journal of Development Studies, 48, 8, 1045-1062.

12. Wikipedia (2015), Constituencies for French residents overseas, http://en.wikipedia .org/wiki/constituencies_ for_residents_overseas.

13. Wikipedia (2015a), Overseas constituency, http://en.wikipedia.org/wiki/Overseas _constituency



ড. শামস্‌ রহমান, মেলবোর্ন, অস্ট্রেলিয়া।
• ই-মেইলঃ shams.rahman@rmit.edu.au
• http://www.rmit.edu.au/contact/staff-contacts/academic-staff/r/rahman-professor-shams




Published on: 17-Oct-2015


আমরা বাংলাদেশী
একটি অ-সাধারণ সংগঠন!


Published on: 14-Oct-2015




আমরা বাংলাদেশী - একটি অ-সাধারণ সংগঠন!




Published on: 14-Oct-2015


Bangladeshi Seniors Forum Sydney
Meeting - 11 October 2015


Published on: 1-Oct-2015


First Academy Award winning Bangladeshi, Nafees Bin Zafar's Interview in Sydney


Published on: 6-Oct-2015




First Academy Award winning Bangladeshi,
Nafees Bin Zafar's Interview in Sydney






Published on: 6-Oct-2015



Australian Muslim Welfare Centre
Bangladesh Australia United Society
Blacktown-hills Islamic Centre,Quakers Hills
Parramatta Islamic Centre
UMA, Lakemba

Published on: 22-Sep-2015


Bangladeshi lady wins regional award for Family Day Care


Published on: 16-Sep-2015


Bangladesh High Commission
Consular camp in Melbourne


Published on: 30-Aug-2015




Centre for Non Resident Bangladeshis
NRB Conference Sydney, 2015



Published on: 4-Sep-2015


Consular Camp in Melbourne

Bangladesh High Commission Australia has organized a Consular Camp
in Melbourne from 02 September to 06 September (Wednesday – Sunday).
Details as follows:

Time:
9.00 am to 1.00 pm & 2.00 pm to 4.00 pm on
Wednesday – Thursday & Saturday – Sunday.

9.00 am to 12.00 pm & 2.30 pm to 4.30pm on Friday.

Venue:
Wyndham Park Community Centre
55-57 Kookaburra Avenue,
Werribee, Vic (Mel ways#:206 C4)

The following consular services will be available at the consular camp:

- Enrollment of Machine Readable Passport

- Attestation (Power of Attorney/Affidavit)

- “No Visa Required…” Seal in Australian/New Zealand passport (first
time or transfer)

- General attestation of documents like photocopy of Bangladesh passport,
photograph, application for police clearance certificate, applications
for opening a bank account in Bangladesh.

- Food Stall

For Fees/Charges, please click on link (Press Release) from Bangladesh
High Commission (Canberra). All payments must be paid in the mode of
Postal Money Order or Bank Cheque in favour of “Bangladesh High
Commission, Canberra" (not personal cheque).


*** Ample of Free Car Parking.
*** Public Transport: Bus no. 161 from Werribee train station. Bus
stop in front of the venue.


The High Commission would like to request all concerned, who intend to
get their consular works done at the consular camp, to have all their
queries cleared by visiting the website of the High Commission
http://www.bhcanberra.com (particularly the ‘Passport / Visa /
Consular Matters’ Section) or sending email to consular@bhcanberra.com
or calling the High Commission at Canberra (02) 6290 0511, 6290 0522,
6290 0533) on week days.


Published on: 30-Aug-2015


Bangladeshi Senior Citizens Forum Picnic 2015


Published on: 19-Aug-2015




Bangladeshi Senior Citizens Forum Picnic 2015






Published on: 19-Aug-2015


Bangladesh High Commission
National Mourning Day 2015


Published on: 28-Jul-2015


এই লিংক থেকে SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন



পরিবেশ সংবাদ
পরিবেশনায়: বাংলাদেশ পরিবেশ নেটওয়ার্ক (বেন)
পরিবেশ সংবাদ, বর্ষ ১১, সংখ্যা ২৯-৩০ (২৬ জুলাই, ২০১৫)


হিমালয় অঞ্চলের বাঁধ বিপর্যয়ের সম্ভাবনা:

হিমালয় পর্বতমালার ভূমিকম্পন-প্রবণ অঞ্চলে ভারত এবং চীন এ পর্যন্ত প্রায় ৬০০ বড় আকারের বাঁধ নির্মাণ করেছে। এই সব বাঁধ বড় মাপের ভূমিকম্পনে ভেঙ্গে পড়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে বলে ভূ-বিজ্ঞানীরা মনে করছেন। সম্প্রতি নেপালে ঘটে যাওয়া ভূমিকম্পে বেশ কয়েকটি বড় বাঁধেই ফাটল দেখা দিয়েছে, যেগুলি কিনা পরবর্তীতে ঘটে যাওয়া ভূমিকম্পে ধ্বসে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। থেরাই বাঁধটির ৮.৫ মাত্রার ভূমিকম্প সহ্য করার ক্ষমতা রয়েছে বলে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ মনে করে, কিন্তু এই মাত্রার অধিক আকারের ভূমিকম্পের সম্ভাবনা ভূবিজ্ঞানীরা উড়িয়ে দিচ্ছেনা। এই বাঁধটি যদি ধ্বসে পড়ে তাহলে নিম্নাঞ্চলে অবস্থিত বেশ কয়েকটি জনপদের প্রায় ২০ লক্ষ মানুষের জীবন বিপন্ন হতে পারে। তাহলে সহজেই অনুমেয় ৬০০ এর অধিক বাঁধের বেশ কয়েকটি যদি বড় মাপের কোন ভূমিকম্পে ধ্বসে পড়ে তাহলে কি পরিমাণ জীবন এবং সম্পদ হুমকির মুখে পড়বে। ভূবিজ্ঞানীরা ইতোমধ্যেই ভবিষ্যৎ বাণী করেছেন যে হিমালয় অঞ্চলে অদূর ভবিষ্যতে ৯.০ মাত্রার ভূমিকম্প হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এখানে উল্লেখ্য যে আন্তঃ নদী সংযোগের অংশ হিসাবে হিমালয় অঞ্চলে আরো অনেক বাঁধ নির্মাণের পরিকল্পনা ভারত হাতে নিয়েছে এবং বাস্তবায়নের লক্ষ্যে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে।
বিস্তারিত পড়তে এখানে ক্লিক করুণ


ভারতীয় আন্তঃ নদী সংযোগ প্রকল্প বাস্তবায়নের পথে আরো এক ধাপ:

ভারতের প্রস্তাবিত আন্তঃ নদী সংযোগ প্রকল্প নিয়ে বেন-বাপা বিভিন্ন সময়ে অনেক সেমিনার, সম্মেলন, প্রেস কনফারেন্স, মানব বন্ধন, লেখালেখি করেছে, তাই এই ব্যাপারে বিষদ কিছু না বলেও সর্বশেষ অবস্থার কথা জানার জন্য এখানে ক্লিক করুণ


পাহাড়ি অঞ্চলে ব্যাপক ধ্বসে বিপর্যস্ত বৃহত্তর চট্টগ্রাম অঞ্চল:

গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে টানা বৃষ্টিপাত হচ্ছে। অধিক বৃষ্টির ফলে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে দেখা দিয়েছে বন্যা এবং জলাবদ্ধতা। বৃষ্টিপাতের ধরণ এবং মাত্রা যে পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে একথাটি আজকাল সাধারণ মানুষও উপলব্ধি করতে পারছে এবং এইসবের জন্য যে জলবায়ু পরিবর্তনই দায়ী সে কথাটিও ব্যাপকভাবে আলোচিত হচ্ছে। টানা বৃষ্টির ফলে পাহাড়ি অঞ্চলের বিভিন্ন জায়গায় শুরু হয়েছে ভূমিধ্বসেরও। অপরিকল্পিত নগরায়ন এবং পাহাড় কাটার ফলে ভূমিধ্বস ব্যাপক আকার ধারণ করেছে।
বিস্তারিত পড়তে এখানে ক্লিক করুণ


জলবায়ু পরিবর্তন এবং দ্রুত গতিতে সমুদ্র-পৃষ্ঠ উঠে আসার পূর্ভাবাসঃ

জলবায়ু পরিবর্তন এবং সম্ভাব্য সমুদ্র-পৃষ্ঠ উঠে আসার প্রেক্ষিতে সৃষ্ট বিপর্যয় বাংলাদেশের জন্য যে একটা অশনি সংকেত নিয়ে উপস্থিত হচ্ছে একথা আজ কারো অজানা নয়। এমনকি এটাও বাংলাদেশের সর্বস্তরের মানুষ জানে যে এই জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সমুদ্র-পৃষ্ঠ যদি ১ মিটার উপরে উঠে আসে তাহলে উপকূলীয় অঞ্চলের প্রায় ২০ মিলিয়ন মানুষ বাস্তু-চ্যুত হবে এবং ১৭% ভূমি বাসের অনুপযোগী হয়ে পড়বে। বিজ্ঞানীরা বর্তমানে আশংকা করছে যে অদূর ভবিষ্যতে সমুদ্র-পৃষ্ঠ ৩ মিটার উপরে উঠে আসতে পারে। যদি এই আশংকা বাস্তবে রূপ নেয় তাহলে বাংলাদেশের অস্তিত্বই হুমকির মুখে পড়বে।
বিস্তারিত পড়তে এখানে ক্লিক করুণ


বাংলাদেশে বাঘের সংখ্যা মাত্র ১০৬!

কিছুদিন আগেও পরিবেশ এবং বন মন্ত্রী বলেছিলেন যে বাংলাদেশের সুন্দরবনে ৪০০ অধিক বাঘ রয়েছে, কিন্তু বাঘ গণনা জরীপের তথ্য মতে গত কয়েক বছরে বাঘের সংখ্যা অর্ধেকের বেশী কমে গিয়ে তা এখন মাত্র ১০৬ এ দাঁড়িয়েছে। বিস্তারিত পড়তে এখানে ক্লিক করুণ




Published on: 3-Aug-2015


Annual fund raising event for the benefit of Aussi Bangla Smile, a group of Bangladeshi and Australian doctors and nurses who go to Bangladesh every year to carry out much needed cleft lip/palate and burn contracture surgeries.

অজি বাংলা স্মাইল এর গল্প


Published on: 19-Jun-2015


ডঃ বদরুল আলম খানের নতুন বই
“সংঘাতময় বাংলাদেশঃ অতীত থেকে বর্তমান”

আলোচনা - আখতার হুসেন, প্রথম আলো


Published on: 29-Jul-2015



Eid Greetings from Hon Tony Burke, Fed MP for Watson and Jihad Dib, NSW MP for Lakemba



Blacktown-hills Islamic Centre,Quakers Hills
Lakemba Parramatta Islamic Centre



Published on: 15-Jul-2015



Barrister Salahuddin's New Book

Barrister Salahuddin Ahmed is a senior member of the Bangladeshi community in Sydney. He lives in Maroubra for over 30 years. His new book DUTIES OF MUSLIMS REFLECTING ON THE QURAN has recently been published by A.P.H. Publishing Corporation, New Delhi.

The book is available from A.P.H. Corporation, 4435-36/7, Ansari Road, Darya Ganj, New Delhi 110002 and also from Bagchee website


The book, bound in hard cover, has 288 pages and priced at 1295 Indian rupees.

It has been reviewed by The Financial Express and HOLIDAY. The links to these reviews are given below:

The Financial Express
HOLIDAY (Scroll down the page)





Published on: 7-Jul-2015


সুন্দর ফন্টের জন্য SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন...


এনড্রয়েড ফোনের জন্য বাংলা এ্যাপ


ক্যানবেরার বাংলাদেশী বিজ্ঞানী ড. আবেদ চৌধুরী বেশ কিছুদিন যাবত দেশে ও বিদেশে বিভিন্ন ধরনের কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত। সম্প্রতি তার উদ্যোগে বাজারে এসেছে দু'টি এনড্রয়েড এ্যাপ (App). Amazing Bangladesh এবং Amazing Sylhet. এ্যাপ দু'টি Google Play থেকে ডাউনলোড করে নেয়া যাবে। প্রতিটির দাম $1.28 অস্ট্রেলিয়ান ডলার।


Amazing Bangladesh এ আছে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ৩০টি ছবি এবং ৩টি গান (ও আমার দেশের মাটি, ধন ধান্য পুষ্পে ভরা, এই পদ্মা এই মেঘনা)।





Amazing Sylhet এ আছে সিলেটের ৩১টি ছবি এবং সিলেটী ভাষায় ৫টি গান (রহমতের দরিয়া, সুরমা নদীর তীরে, ভ্রমর কইয়ো গিয়া, সিলেটী ভাইসাব, সাধের লাউ)।







Published on: 24-Jun-2015


ধোনির ভুল আর অজানা আতঙ্কে মেলবোর্নের বদলা আনন্দবাজার পত্রিকা


Published on: 20-Jun-2015


বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল ও ভুটানের মধ্যে যাত্রীবাহী, পণ্যবাহী ও ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচল করতে পারবে  প্রথম আলো


Published on: 8-Jun-2015


“গুড মর্নিং বাংলাদেশ”
বিগেস্ট মর্নিং টি, বাংলাদেশীদের একটি সফল আয়োজন - আজাদ আলম

$22,311 raised this year for cancer research! Total money raised in last 15 years: $129,901 - Webmaster

Money raised by year...
Published on: 31-May-2015


সুন্দর ফন্টের জন্য SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন...


“গুড মর্নিং বাংলাদেশ”
বিগেস্ট মর্নিং টি ইভেন্ট, সিডনীবাসী বাংলাদেশীদের একটি সফল আয়োজন।


আজাদ আলম: মে মাসটা ছিল ক্যান্সার কাউন্সিল ফান্ড রেইজিং আয়োজকদের জন্য একটি বিশেষ স্মরণীয় মাস। “বিগেস্ট মর্নিং টি” মরণ ব্যাধি ক্যান্সার নিরাময়ের ব্যয়বহুল রিসার্চের জন্য অর্থ সংগ্রহের একটি সেবামূলক ক্যাম্পেইন। সারা অস্ট্রেলিয়া ব্যাপী স্কুলের ছোট ছোট ছেলে মেয়েরা যেমন বিভিন্ন প্রোগ্রাম করে, চকলেট বিক্রি করে পয়সা তুলে তেমনি বড় বড় কোম্পানির মালিকেরাও চা চক্রের আয়োজন করে এই মহৎ কাজের জন্য পয়সা তোলার ব্যবস্থা করেন। এমনকি বাসায় বাসায় এর নামে টিনের বাক্সে খুচরো পয়সা জমা করে ক্যান্সার কাউন্সিলের ফান্ডে জমা দেন অনেক পরিবার।

সিডনিতে প্রবাসী বাংলাদেশিরাও সাড়া দিয়েছেন সহজাত মানসিকতার কারণেই। এই মানবিক কাজে যোগ দিয়েছেন এই ক্যাম্পেইনের প্রায় গোরা থেকেই। গত ১৪ বছরের মত এবারেও মে মাসের ৩, ১০, ১৭ এবং ২৪ তারিখের এই চার রবিবারে সিডনিতে আয়োজিত হলো “গুড মর্নিং বাংলাদেশ”, “বিগেস্ট মর্নিং টি” বাংলাদেশি স্টাইলে। নিউ সাউথ ওয়েলস ক্যান্সার কাউন্সিলের জন্য অর্থ সংগ্রহে প্রবাসী বাংলাদেশি পরিবারের এই মহৎ উদ্যোগের কথা শুধু বাংলাদেশিদের মুখে মুখে নয় এর গুণগান লোকাল এরিয়ার লোকজন তথা রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরাও এখন গুরুত্বের সাথে আলোচনা করেন, প্রশংসা করেন, উদাহরণ টানেন। এমনকি অস্ট্রেলিয়ার ন্যাশনাল পার্লামেন্টেও বাংলাদেশী কমুনিটির এই সফল উদ্যোগ প্রশংসিত হয়। ২০০১ সালে যে প্রোগ্রামটি সিডনীর পশ্চিমাঞ্চল ব্ল্যাক-টাউনে মাত্র ৮০০ ডলারের নিচে সংগ্রহ করে, সেই একই প্রোগ্রাম আজ ২০১৫ সালে এসে তাঁদের সংগ্রহের খাতায় লিপিবদ্ধ করেছেন সর্বমোট এক লক্ষ বিশ হাজার ডলারের বেশি। এ বছরেই ফান্ড রেইজিং এর পরিমাণ ২২ হাজার ডলার ছাড়িয়ে যায়। বলতে গেলে এই বিশাল সংগ্রহের প্রায় পুরোটাই সিডনীতে বসবাসকারী বাংলাদেশিদের বদান্যতার ফসল। ঐক্যবদ্ধতা, নিরলস, নিঃস্বার্থ এবং নিরন্তর প্রচেষ্টার এটি হল একটি প্রকৃষ্ট নমুনা।


ক্যান্সার কাউন্সিলের সিইও জিম এল এস্ট্রেংজ এবং মেডিক্যাল ডাইরেক্টর মনিকা রবটিনের সাথে আয়োজকরা

সিডনীর চার ভেনুতে চার রোববারে আয়োজিত হয় এই সকালের নাস্তার আয়োজন ‘‘গুড মর্নিং বাংলাদেশ” এই ব্যানারে। শহরের পশ্চিমাঞ্চল ব্ল্যাক টাউন এবং ইঙ্গেলবার্নে দুটি, মধ্যাঞ্চল লাকেম্বায় একটি এবং পূর্বাঞ্চল ম্যাস্কট সাবার্বে আর একটি। প্রতিটি ভেনুতেই সকাল নয়টা থেকেই আসতে শুরু করেন আশে পাশের লোকজনেরা। হরেক রকমের চা, পেঁয়াজু এবং পুরি ততক্ষণে রেডি প্রায়। হাতে বানানো পরোটা আর ভাজির জন্য লাইনে থাকেন অনেকেই। ভুনা মাংস তো আছেই। সকাল ৯ টা থেকেই অনুষ্ঠান প্রাঙ্গণ অংশগ্রহণকারী আর ক্রেতা দর্শকদের কোলাহলে মুখরিত হয়ে ওঠে। সদ্য ভাজা পরোটা,সদ্য হাড়ি থেকে নামানো ভাজি, মাংস আর গরম গরম ভাপা পিঠা, চিতই পিঠা,সিঙ্গারা, বিফ পেস্ট্রির গন্ধে ভরপুর থাকে প্রতিটি সেন্টার। মিষ্টি প্রিয় বাঙ্গালিদের হরেক রকমের মিষ্টি চমচম, জিলাপি, রসগোল্লা, রস মালাই, মুখ পাখন, পাটি সাপ্টা, তেলের পিঠা, নারিকেলের পিঠা ইত্যাদি তো আছেই। এই সমস্ত খাবারের আয়োজনে যাদের ভূমিকা সবচেয়ে বেশি তারা হলেন স্থানীয় মহিলা মহল। তারা সবাই শতভাগ উৎসাহ আনন্দ নিয়ে অংশ গ্রহণ করেন এই ফান্ড রেইজিং অনুষ্ঠানে, মহৎ উদ্দেশ্যে। অনেক রাত জেগে পিঠা পুলি মিষ্টি তৈরি করেন। সকালে উঠে আবার সেগুলো নিয়ে ভেনুতে আসেন। দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে বিক্রি করেন এবং সমুদয় অর্থ খুশি মনে দিয়ে দেন ক্যান্সার কাউন্সিলের তহবিলে।


চলছে পরিবেশনা

প্রতিটি আয়োজনে স্থানীয় রাজনীতিবিদরা ছাড়াও ক্যান্সার কাউন্সিলের পরিচালক মণ্ডলের অনেকেই আসেন বাংলাদেশীদের উৎসাহ যোগাতে, ধন্যবাদ জানাতে। এবারে সময় করে এসেছিলেন ক্যান্সার কাউন্সিলের সিইও জিম এল এস্টেরেঞ্জ ম্যাস্কটের অনুষ্ঠানে। তিনি বেশ গর্বের সাথেই স্বীকার করলেন, বাংলাদেশীদের এই নিঃস্বার্থ সহযোগিতার কথা। বাংলাদেশি কমুনিটি ছোট হলেও এই কমুনিটিতে বড় হৃদয়ের মানুষের সংখ্যা যে অনেক তা এই অকৃপণ বিশাল আয়োজনই এর উৎকৃষ্ট প্রমাণ বলে তিনি উল্লেখ করেন। ব্লাকটাউন, লাকেম্বা এবং ইঙ্গেলবার্নের অনুষ্ঠানেও লোকাল এম পি রা বাংলাদেশীদের এই সম্মিলিত প্রচেষ্টার ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং কেউ কেউ মনে করেন এ রকম সুন্দর সফল আয়োজন অনুকরণ যোগ্য।

ব্ল্যাকটাউনের অনুষ্ঠানে ফেডারেল এম পি জুলি ওয়েন এবং এড হিউসিক, ইঙ্গেল্বার্নের আয়োজনে ফেডারেল এম পি লাউরি ফারগুসন, লাকেম্বার অনুষ্ঠানে ফেডারেল এম পি টনি বার্ক এবং ম্যাস্কটের ফাঙ্কশনে ফেডারেল এম পি ম্যাট থিসেলথওয়েট অংশগ্রহণ করেন। এ ছাড়াও প্রতিটি অনুষ্ঠানে ষ্টেট এম পি রাও আসেন।

স্থানীয় বাংলাদেশি নেতৃবর্গের বক্তব্যে ফুটে উঠেছে সম্মিলিত নিঃস্বার্থ অংশগ্রহণের কথা। দল মত ধর্ম নির্বিশেষে, সবার সার্বিক অংশগ্রহণ এবং তার সফল ফলাফল প্রমাণ করে আমরা চাইলেই দেশের জন্যও অনেক বড় বড় জনহিতকর কাজের অর্থ সংগ্রহ করতে পারি। এ প্রসঙ্গে ঢাকায় আহসানিয়া ক্যান্সার হাসপাতালের কথা উল্লেখিত হয়। সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে থাকা বাংলাদেশিদের বিরাট অবদানে আহসানিয়া ক্যান্সার হাসপাতালের কার্যক্রম অনেকটা এগিয়ে গিয়েছে। গরিব দুঃখী ক্যান্সার রোগীদের বিনা অর্থে সেবার কাজ চলছে পুরোদমে। “বিগেস্ট মর্নিং টি” এর পুরোধা ডঃ আব্দুল হক এবং ডাক্তার আয়াজ চৌধুরী অস্ট্রেলিয়ার প্রবাসী বাংলাদেশীদের আহসানিয়া ক্যান্সার হাসপাতালে অবদানের কথা গর্বের সাথে উল্লেখ করেন। ভবিষ্যতেও যেন আমরা এরকম কাজে স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে এগিয়ে আসি এ আহবান জানান। বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশীদের এই স্পিরিট, এই একতা এবং মানসিকতার মূল্য অনেক বেশী। দশে মিলে কাজ করার এই ফসল, এই সাফল্যকে কাজে লাগিয়ে অদূর ভবিষ্যতে সিডনিতে সিনিয়র সিটিজেনদের জন্য কোন কার্যক্রম হাতে নেয়া যায় কিনা সে ব্যাপারে ভাবনা চিন্তার সময় এসেছে বলে মনে করেন বাংলাদেশি কমুনিটির বিশিষ্ট বর্ষীয়ান ব্যক্তিত্ব জনাব মোস্তফা আব্দুল্লাহ।

বিদেশের মাটিতে আস্তানা গেঁড়ে, চাকরি বা ব্যবসা করে দেশে রেমিটেন্স পাঠিয়ে প্রবাসীরা যেমন দেশের অর্থনৈতিক কাঠামোকে শক্তিশালী করছেন ঠিক তেমনি এমন দৃষ্টান্তের সেবা মূলক কাজে অংশগ্রহণ করে বাংলাদেশের ভাবমূর্তিকেও উজ্জ্বল করছেন দেশ ছেড়ে আসা প্রবাসী বাংলাদেশিরা।


অনুষ্ঠানের সফল সমাপ্তি শেষে হাসিমুখ






Published on: 31-May-2015



Lakemba


Published on: 30-Apr-2015



Ingleburn Lakemba


Published on: 30-Apr-2015



Mascot Ingleburn Lakemba


Published on: 21-Apr-2015



Blacktown Mascot Ingleburn Lakemba


Published on: 23-Mar-2015






Published on: 30-Apr-2015






Published on: 30-Apr-2015


সুন্দর ফন্টের জন্য SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন...


What's Happening to
Olympic Park Boishakhi Mela!

Faruk Kader


The last Baishakhi Mela held in Sydney Olympic Park Tennis Court has raised a question about the trajectory this celebration of Bengali New Year is following. We are aware of the hard work done every year by Bangabandhu Council of Australia in organising this event. However, this year the event’s outcome fell short of the community’s expectations in terms of our traditional festivities of Bengali New Year.

The new venue of Tennis Court itself was disappointing. It was hard to accept that this had more capacity than the previous one. The Athletic Centre provided an uninterrupted vista of the Mela on a grand scale as seen from the gallery – stage, stalls and the leisurely moving spectators nestled on the green grass of the ground. The new venue created a physical separation between the stage and the stalls erected outside the court.

I arrived at the Mela around 5 PM just before when the speeches of dignitaries got underway. What followed after that hardly matched the true sprits of our traditional Bengali New Year! The songs by the rock band were not up to the mark. It’s a pity that the iconic Tagore songs celebrating the advent of Bengali New Year were missing.

Another disappointing part of the Mela was the fashion show, which went for quite some time. The show was a brazen display of extravagant Lahengas, putting aside our traditional Bengali cloth-ware like Shari, Punjabi, and Lungi. I am not opposed to Lahenga and other trendy types in the show, but not in deference to our traditional cloth-ware, which should be the centrepiece of such fashion show. The show also took significant quota of time of the programme, so that Ankahi Alamgir’s solo had to be abandoned, when threatened by a storm. The fashion parade in my opinion should be brief and reflect mainly on our traditional cloth-ware.

Many spectators like me are disappointed and disillusioned about the way this Baishakhi Mela has been conducted in recent years. The young generation has a spontaneity to get carried away by the atmosphere of celebration without going into deep. But we the older generation has a responsibility to nurture and preserve our Bengali culture. Otherwise, it would be lost among our future generations and nothing would be left for us to be proud of.

My request to the organisers is to uphold the true spirit and values of our Bengali culture, unadulterated and unsullied by external influence. I trust that the organisers would be awake to the expectation of the Bangladeshi community. So that going to Baishakhi Mela every year would be an enjoyable and worthwhile experience for all of us.




Faruk Kader, Sydney







Published on: 25-Apr-2015






Published on: 21-Apr-2015






Published on: 23-Mar-2015


সুন্দর ফন্টের জন্য SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন...


Barrister Salahuddin's New Book

Barrister Salahuddin Ahmed is a senior member of the Bangladeshi community in Sydney. He lives in Maroubra for over 30 years. His new book GUIDE FOR MUSLIMS has recently been published by the well-known Malaysian publishers A.S. Noordeen. This book is intended to serve the purpose of using it as a guide to the Qur'an to find topic-wise discussion and analysis. The book is available through Internet from the following website:
http://www.daralwahi.com/general.htm

The book has 332 pages and priced at 42 Malaysian Ringgit (AUD $15). It has been reviewed by The Daily Star and The New Nation. The links to these reviews are given below:

www.thedailystar.net/matter-of-faith-56440
thedailynewnation.com/news/38074/book-review.html





Published on: 22-Mar-2015


এমসিজি'র স্মৃতি ও বাংলাদেশ
দিলরুবা শাহানা


Published on: 17-Mar-2015


সুন্দর ফন্টের জন্য SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন...


এমসিজি'র স্মৃতি ও বাংলাদেশ
দিলরুবা শাহানা

এমসিজিতে, মানে মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে, কতবারই তো আসা হয়েছে। এমসিজিতে খেলা মানেই যেন উৎসব। শুধু ক্রিকেট দেখতেই আসা অন্য কিছু নয়। এবারের আসা অন্য রকম। ক্রিকেটই দেখতে আসা তবে এবার যে বাংলাদেশ খেলছে। বিশ্বকাপ খেলছে বাংলাদেশের ছেলেরা। এই প্রথম এমসিজি'র মাঠে ওরা খেলছে। লাল সবুজ দৌড়বে মাঠে, গ্যালারীতে লাল সবুজ পতাকা পত পত করে উড়বে ক্ষণে ক্ষণে, হল্লা চিৎকারে মেতে থাকবে দর্শক, সারি সারি। এ এক যাদুময় মুহূর্ত। পঞ্চাশ-ষাট, একশ'- দু'শো নয় হাজার বাঙ্গালী ছিল, এক হাজার দু'হাজার নয়, হাজার হাজার বাঙ্গালী ছিল। বিস্ময়কর হল বেশীর ভাগেরই পরিধানে লাল-সবুজ জার্সি। ছেলে-মেয়ে, বর-বউ বেশীরভাগই লাল সবুজ জার্সি পড়ে প্রিয় দেশের প্রিয় খেলোয়াড়দের উৎসাহ আর সহমর্মিতা জানাতে ভিড় করেছে। অনেক মা-বাবা তাদের ছোট্ট সোনামণিটির মাথা লাল-সবুজ পতাকার ব্যান্ডেনায় জড়িয়ে দিয়েছেন। ঘোষণা হল ঐদিন এমসিজি চত্বরে ত্রিশ হাজার দর্শক উপস্থিত। ধারনা করা হচ্ছে ওই দর্শকদের মাঝে দশ হাজার দর্শকই ছিলেন বাংলাদেশী। তারা সবাই মেলবোর্ন-বাসী নন, অস্ট্রেলিয়ার নানা জায়গা থেকে এবং পৃথিবীর নানা জায়গা থেকে দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে এসেছেন অনেকে। এসেছেন এমসিজিতে বাংলাদেশের খেলা দেখতে।

শ্রীলংকার সঙ্গে খেলবে বাংলাদেশ। শ্রীলংকা বিশ্বকাপ জয়ী দল। অভিজ্ঞতা ওদের অনেক। বাংলাদেশ সে তুলনায় নবীন। এমসিজি'র মাঠে শ্রীলংকা নতুন নয়। বাংলাদেশ দলের জন্য এমসিজি'র মাঠ একেবারেই নতুন। তবে এমসিজিতে খেলতে আসা এক সম্মানের ব্যাপার। নব্বই হাজার দর্শক ঠাঁই পায় এমসিজি'র মাঠে। এই বিশাল বড় মাঠে বাউন্ডারি মেরে চার-ছক্কা তোলাও বিরাট কাজ।

আমি ক্রিকেট বিশেষজ্ঞ নই, পেশাদার ক্রীড়া-সাংবাদিকও নই। দেখতে ভালবাসি ক্রিকেট ও এই খেলা দেখার ছলেই নানা সময়ে এমসিজি'র নানা আবহ ও উদ্দামতা পর্যবেক্ষণের সুযোগ হয়েছে।

দেখেছি এক সময়ের বিশ্বখ্যাত অস্ট্রেলীয় ক্রিকেট ক্যাপ্টেন ষ্টীভ ওয়ার পকেট থেকে উঁকি দেওয়া তার অলৌকিক লাল রুমাল। কষ্ট পেয়েছি দেখে যখন ফার্স্ট বোলার গ্লেন ম্যাগরা কি অনায়াসে ক্রিকেট লেজেন্ড শচীন তেন্ডুলকারকে আউট করেছে। আর উচ্ছ্বাসে উদ্দাম দর্শকদের মেক্সিকান ওয়েভ তোলার অপূর্ব দৃশ্য। ভিড়ে সব ধরনের মানুষ দেখা যায়। অভব্য, অ-পরিশীলিতদের যেমন দেখা যায়, হাসি-জাগানিয়া চিজদেরও সাক্ষাৎ পাওয়া যায়। মাঠে বসেই দেখেছি হুট করে প্রায় গোল মত হালকা না সাদা না গোলাপি রঙের কিছু একটা এসে পড়লো। অতদূর থেকে বোঝা যায়নি কি ছিল জিনিসটা। পড়ে টিভি নিউজে বললো কেউ একজন কাচা আস্ত মুরগী ছুড়ে মেরেছিল ক্রিকেট মাঠে। আরেকবার দিনের প্রায় শেষে আমাদের সামনের কোন এক সারি থেকে উঠে সিঁড়ি বেয়ে উপরে উঠে গেল একটি মেয়ে। কতো মেয়েই উঠানামা করছে তা বলার মতো তেমন কিছু না। তবে দেখতে নম্র ভদ্র হলেও সেই মেয়ে এক উদ্ভট বেশে নির্লজ্জভাবে হেঁটে চলে গেল । একটু পরেই মেয়েটি যখন কাগজের কাপে দুই কাপ কফি নিয়ে টলোমলো পা সাবধানে ফেলে ফিরছিল তখনি দর্শকদের হতভম্ব দৃষ্টি তাকে অনুসরণ করতে শুরু করলো। অতঃপর নিম্নাঙ্গে শালীন-শোভন ট্রাউজার্স আর ঊর্ধ্বাঙ্গে শুধুমাত্র ব্রা পরিহিতা নম্র-ভদ্র মেয়েটিকে সিকিউরিটির এক মহিলা সদস্যা এসে শান্তভাবে সরিয়ে নিয়ে গেলেন। আপদ বিদায় হল!

ভিড়ের মাঝে কিছু কিছু অস্ট্রেলীয়(সবাই নয়) সমর্থকদের আচরণও ভব্যতার ধার ধারেনা। একবার অস্ট্রেলিয়া বনাম ভারতের ক্রিকেট খেলার সময় তেমনি কিছু অস্ট্রেলীয় দর্শকদের আচরণ ছিল অসহনীয় পর্যায়ের কুৎসিত। পরবর্তী সময়ে এই অভব্যতা নিয়ে পত্রিকায় প্রচুর লেখালেখি হয়েছে। সবই যে খারাপ তা নয় এরমাঝে মজার ঘটনাও ঘটেছে। ভারতীয়রা যখন তাদের খেলোয়াড়দের অনুপ্রাণিত করার জন্য দর্শক গ্যালারিতে বসে গলা ফাটিয়ে চেঁচাচ্ছিল ‘জিতেগা জিতেগা ইন্ডিয়া জিতেগা’। কাছাকাছি বসা অষ্ট্রেলীয়রা কান পেতে কথাগুলো শুনে নিজেরা গলা চড়িয়ে সমান তালে সুর তুললো ‘জিতেগা জিতেগা অস্ট্রেলিয়া জিতেগা’। অষ্ট্রেলীয়রা হয়তো ভেবেছিল ভারতীয়রা খেলাজেতার কোন মন্ত্র আওড়াচ্ছে।

এবারের বাংলাদেশ বনাম শ্রীলংকার খেলায় কোন অসহ্য অভব্য আচরণ সমর্থকদের মাঝে দেখা যায়নি। এক কথায় দর্শকরা ছিলেন মার্জিত ও পরিশীলিত। পতাকা হাতে যার যার দলের জার্সি গায়ে দর্শকরা উৎকণ্ঠা ও আনন্দ নিয়ে খেলা দেখতে এসেছেন।

খেলার শুরুতেই বাংলাদেশী এক খেলোয়াড় যখন ক্যাচ ড্রপ করলো কষ্টে আমাদের সবারই নিঃশ্বাস প্রায় রুদ্ধ; তখন সামান্য দূরে বসা এক শ্রীলংকান মহিলা আর্তনাদ করে উঠলেন ‘ওহ্ মাই গড! ওহ্ মাই গড! হাউ ক্যান হি ড্রপ দিস ক্যাচ’। কড়া ভাবে তার দিকে তাকিয়েছিলাম। মন বলেছিল ‘আমাদের ছেলে ক্যাচ ড্রপ করেছে আমরা দেখবো, আমরা বকবো; তুই বলার কে রে’।

যাক খেলায় হারজিত আছে। একজনকে হারতেই হবে। বাংলাদেশ ঐদিন মানে ফেব্রুয়ারির ২৬, ২০১৫, শ্রীলংকার সাথে খারাপ খেলেছিল। কত দোয়া পড়লাম। কাজ হল না। বাংলাদেশ হারলো সেদিন। তারপরও স্বস্তি বাংলাদেশ শ্রীলংকার চেয়েও বেশী ছক্কা তুলেছিল। বাংলাদেশের ছক্কার সাথে সাথে ঐ মহিলাও যখন হাততালি দিয়ে আনন্দ প্রকাশ করলো। আমি রাগ ভুলে গেলাম। মহিলাকে মন থেকে ক্ষমা করে দিলাম।

আমাদের লাল-সবুজ টীম এমসিজিতে খেলেছে বলেই আমাদের জাতীয় সঙ্গীত ‘আমার সোনার বাংলা...’ ওই ঐতিহাসিক মাঠে বাজলো।



দিলরুবা শাহানা, মেলবোর্ন





Published on: 17-Mar-2015



The Seventies Show
Remembering late Masud Alam Khan
Mostafa Abdullah


Henry Winkler’s ‘Happy days’ was my favorite TV series back in the seventies when we were here in Sydney. Winkler played the role of Fonzie, the hunk guy on his motor cycle and his trade mark leather jacket, for whom every girl in town went berserk. He was the mark of youth, humor and romance. He is supposed to look the same and never grow wrinkles on his face or a bulge in the middle, something that many of us involuntarily dream for ourselves. When you see Henry Winkler on the TV now, he is not the same anymore. I feel sorry for him and I pretend that it is only him who has changed. Not me. Fortunately I do not see myself on that TV screen. Thank God, it is not a mirror.

But Ruma and Jamal woke me up from my dream the other day. They arranged a lunch in their house for some of the seventies crowd and their offspring who grew up together. Some of whom I have not seen in thirty years. I looked through the faces and saw three more generations that has come into being in the meanwhile. It dawned on me that I have also become a part of the seventies shows, like the ‘Happy days’ of that era. It has had indeed been happy days.

Ruma and Jamal, late Khan Bhai’s daughter and son-in-law did a splendid job of organizing the generous lunch. Some of us, who now has to watch for the red eyes of our spouses before reaching out for the second serving, filled ourselves to the bream. The food was delicious and plentiful and desserts made in heaven. Thank you Ruma and Jamal; for organizing the ‘Seventies Show’, as I would like to call it.

At the end of the day Ruma remembered her father Masud Alam Khan. We said a prayer for Khan Bhai who left all of us on the 22nd of February, 2003 at the age of 63 leaving behind his beloved wife, three sons, a daughter, son-in-law, daughter-in-law, four grandchildren and hordes of friends and acquaintances. I personally feel a strong bond with him as there had been a rare occasion that he did not look us up whenever he went to Bangladesh. Every time we had been in Sydney, we never missed the scrumptious rare treats at the Khan residence. This trait for sure has caught up with their only daughter.

Khan Bhai was a big man with a big smile on his broad face that reflected the simplicity of his heart and love for the fellow human being. He was one of the founding members for establishment of today’s Rooty Hill Mosque and remained an active member of its governing committee till his last. He was instrumental in working with other Bangladeshis for setting up of the Riverstone Muslim graveyard, a project that he held very close to his heart. As Allah would have it, Alhamdulillah, Khan Bhai was the first to be laid to rest in this graveyard, the place he dearly readied with others with their labour of love and sweat. Very few knew that during his life time, every week he washed and cleaned the Rooty Hill Mosque court yard and amenities area with other volunteers.

Whenever he could, he would visit ailing and distressed fellow Bengali acquaintances at home or hospitals to comfort them thru their bad days. He was happy to assist newly arrived Bengali families with helpful advice and household amenities whenever possible. He shunned unnecessary arguments that lead to dissention amongst the Muslims themselves. He was a great husband, father and a grandfather. His grandchildren Javeed, Sabina, Shazia and Nadia were dearest to his heart. He often spent time with young boys and girls encouraging them to pursue education and to gain wisdom from their parents, grandparents and elders.

His long undetected high blood pressure coupled with Type I diabetes damaged his heart that claimed his life prematurely. His Namaz-e-Janaza prayer at the Rooty Hill Mosque was conducted by Maulana Tanhveer who prayed with him in the mosque and also at his home. His Janaza drew a huge crowd from Bengali, Pakistani and Indian community who turned up to show their last respect. The eulogy delivered by the Imam described the greatness of the heart of this humble man who quietly served his fellow human being without any aspiration for recognition or fame. May Allah forgive his sins on this earth and admit him in the Jannah.

Masud Khan was born in 1939 in Calcutta (Kolkata) where his ancestors made their home having moved from Manikganj of the then East Bengal. Over the six generations the family prospered in business and landed property across the Bengal. Young Masud Khan witnessed the horrors of racial massacres at the tender age of only 7 while fleeing from India to East Pakistan in 1947 with his father. Sadly his mother passed away when he was only 4 years old. Having settled in Dhaka after the division of India, Khan Bhai completed his schooling in Dhaka’s prestigious St. Gregory’s High school at Laxmibazar. He later completed his tertiary education in Accounting from Karachi, West Pakistan.

He tied the marital knot in 1959 with a stunningly beautiful woman of a respectable family in Bangladesh, Rabia Khanam; our dear Bhabi. Bhabi is a strong and a determined woman who held on to her family and steered it through the difficult times after the untimely and sudden loss of her husband. Even today she is all smiles and inspiration for all of us in spite of her multiple ailments. We wish her a long, happy and a healthy life.

Khan Bhai started his working life in Dhaka at the Bawani Jute Mills in 1959. Later he worked for the British Paint Company as its Accounts Clerk. In 1962 he started working for the Australian High Commission in Karachi and moved with them to capital Islamabad in 1967. He later moved to Dhaka in 1969 with the establishment of Australian High Commission Chancery in the Hotel Purbani at Motijheel. He served their as the Senior Superintendent of the Chancery.

He was highly commended by the first Australian High Commissioner to Bangladesh, James L. Allen (1973), for his role during the difficult times in Dhaka, particularly during the civil war in 1971. At the risk of his personal safety, he collected photographs and information of incidences of atrocities of the Pakistani Army for the Australian Foreign Service. Incidentally, Australia was the first western country to recognize Bangladesh and send humanitarian assistance within a month of its liberation.

The Khan family migrated to Australia on 14 January 1974 and was housed in the Villawood Migrant Hostel, which later became the Detention Centre for illegal immigrants in 1987! Indeed, an historical icon of Australia’s immigration history. Next six months was a struggle that family remembers fondly and their resolve to overcome it. However, Khan Bhai was fortunate enough to land a job with the British Berger Paint Company in Sydney before arriving here. Later he moved to a German company called Leica that manufactured cameras and accessories. The family settled in Homebush to start their new life. Since then the family has moved a long way from where it started. The eldest son Mehmood Alam Khan completed his undergraduate and postgraduate studies from Sydney and NSW universities and is now an Executive Director at the Australian Taxation office. Second son Mehfuz Alam Khan works for the Australian Service Union. The third son Reza Alam Khan is employed with the Commonwealth Department of Human Services. The youngest and only daughter Shahana Masud Ghazi (Ruma) is a Tax Auditor with the Australian Taxation Office.

I am glad that I got this opportunity to remember Khan Bhai because of the efforts of Ruma and Jamal. We should be able to do this from time to time to celebrate the lives of those that were with us and welcome those that are taking over. The significance of the linkage between the past, present and the future cannot be overemphasized. Without this linkage, soon we will not know where we came from, who we are and what may become of those that would come after us.






* Photographs & Family details courtesy of Ruma & Mehmood.







Published on: 13-Mar-2015




Published on: 10-Mar-2015


Talent Day 2015
Talent Day 2015 was held at Hassallgrove Neibourhood Centre on 22-Feb-2015. This is a success story of Bangladeshi community in Sydney. This annual event to encourage brilliant boys and girls of our community has been taking place uninterrupted for last 21 years. We congratulate Dr Abdul Haq and his team members for their commitment and dedication.


Published on: 10-Mar-2015


সুন্দর ফন্টের জন্য SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন...


My Take On The Multicultural Festival 2015
Aurpan Kar

On the 14th of February, like most people in Canberra, my family and I attended the 2015 Multicultural Festival. At this festival, I visited many stalls, including the Children Sanctuary where volunteers from different heritage wrote children's names in different languages. I got my name written down in most of the languages that were there. I found this as a quite clever initiative by the organisers. By the request of the organisers, my brother and I volunteered our time to help out.
The most intriguing event that I took part in at the festival was to work in the Let's Work For Bangladesh (LWFB)'s food stall where my dad and many other volunteers were working. At the stall, I helped them with cooking the parathas, grilling the kebabs, setting up the plates, handling the money and many more. I thought of it as a fun activity, but I suddenly realized that my fun work at the stall was more than meets the eye because I understood that all the profit from the stall will be used to ensure a better education to the underprivileged children of the Bangladesh Canberra Friendship School in rural Bangladesh.
Being Australian born, I never really had much experience with how the poor feels. That was until my recent trip to Bangladesh, where I witnessed the sheer amount of underprivileged souls, including children around my age. These children were sleeping on the dirty ground and begging for money and food. I felt remorse seeing these kids slaving away at daily chores just to get leftovers. The state of these children was truly shocking.
When I started working with the volunteers at the LWFB stall, I simply wanted to cook. But now I realize that I have not only cooked there, but unknowingly helped those souls to prosper and thrive. From LWFB's work I now realize why one parent of my school friends raised funds for making mosquito nets, building sanitary toilets and providing educational equipments for rural children in Cambodia rather than receiving gifts.
From this experience, I realized how far someone can go just to help those in need by fundraising through concerts, selling food and many more.
By growing up in Australia, I realize how privileged I and others are. I was very surprised to see that my time and devotion at the food stall indirectly helped the poor people, which made me feel very proud about myself.


Aurpan Kar, Canberra




Published on: 3-Mar-2015


সুন্দর ফন্টের জন্য SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন...


Dr Mohammad Abdur Razzaque's Autobiography

An autobiography of Dr Mohammad Abdur Razzaque (A NOMAD IN ACADEMIA) has recently been published by Strategic Book Publishing. This is a reflective account of his academic life across the continents from 1968 to 2014. Travel along with the author as he leaves college in the United States as an university teacher in 1971, to return to Bangladesh. He left Bangladesh again five years later to circle the planet. This award-winning teacher states, “Since 1976, I have taught in universities in the Sudan, Singapore, Bangladesh, USA, and Australia. For very short periods, I was also associated with universities in Finland, Malaysia, and UAE.” He has thrived in many cultures and wishes to share the insights gathered during his 43-year teaching career.

A NOMAD IN ACADEMIA: A REFLECTIVE ACCOUNT OF AN ACADEMIC’S EXPERIENCE ACROSS THE CONTINENTS (ISBN: 978-1-63135-361-1) is now available for $28.50 and can be ordered through the publisher’s website:
http://sbprabooks.com/MohammedAbdurRazzaque or at http://www.amazon.com or http:// www.barnesandnoble.com.

WHOLESALERS: This book is distributed by Ingram Books and other wholesale distributors. Contact your representative with the ISBN for purchase. Wholesale purchase for retailers, universities, libraries, and other organizations is also available through the publisher; please email bookorder@sbpra.net.





Published on: 2-Mar-2015




Published on: 31-Jan-2015






Published on: 24-Feb-2015


সুন্দর ফন্টের জন্য SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন...


Race Against Time
মাসুদ পারভেজ


১. সিডনির টেলিভিশনে এক কমার্শিয়ালে কয়েকদিন আগে শুনলাম একজন স্বাভাবিক মানুষ গড়ে তাঁর জীবনের ২০বছর ঘুমায়, ১৫বছর পরিবারের সান্নিধ্যে কাটায়, ১৩ বছর জীবিকার জন্যে কাজ করে, ৩বছর টয়লেটে-বাথরুমে থাকে…। হঠাৎ মনে হলো গুগুলে সার্চ দিলে হয়তো মানুষের মূল্যবান জীবনের Race Against Time সম্পর্কে আরো কিছু তথ্য পাওয়া যাবে…নিমিষেই অসংখ্য তথ্য বেরিয়ে এলো যা’ হয়তো অনেকেরই জানা। কমার্শিয়ালে শোনা তথ্যের পাশাপাশি আরো পেলাম - বর্তমানে ৮২বছর বয়সী গড় আয়ুর একজন অস্ট্রেলিয়ান তাঁর জীবনের প্রায় ৮বছর ব্যয় করে খাওয়া-দাওয়া এবং ড্রাইভিং-এ, ৩বছর ইন্টারনেট সার্ফিং-এ, আর ঘর-বাড়ি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতায় ব্যয় করে ১ থেকে ১.৫বছর। মানুষের জীবনযাত্রায় বছরের এই হিসাব বিভিন্ন জাতি এবং যুগের জন্য বিভিন্ন হলেও উন্নত বিশ্বের প্রায় সব দেশেই একই ধরনের চিত্র। ভাবছিলাম বাংলাদেশী মাইগ্রান্ট হয়ে অস্ট্রেলিয়া এখন আমাদের অনেকেরই জন্য স্থায়ীভাবে বসবাসের দেশ হলেও আমরা যদি অস্ট্রেলিয়াতে না এসে বাংলাদেশে স্থায়ীভাবে থাকতাম তাহলে আমাদের জীবনের Race Against Time-টা কেমন হতো?

২. বছরের শেষ দিন সারা পৃথিবীর মানুষ যখন মেতে উঠেছে ২০১৪সালকে বিদায় দিয়ে ২০১৫সালের প্রথম দিনকে স্বাগত জানানোর জন্যে - বাংলাদেশের মানুষ সেখানে এই দুই দিনই কাটিয়েছে হরতালের মধ্যে। আজ একুশে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে যখন এই লেখাটা লিখছি তখন গত ৫০দিনে রাজনৈতিক অস্থিরতার মধ্যে ধীরে-ধীরে উদ্বেগের, উৎকণ্ঠার, আতঙ্কের দেশে পরিণত হয়েছে বাংলাদেশ। পত্রিকায় পড়েছি - এ’বছরের শুরু থেকে চলমান ঘটনা-প্রবাহে শুধু মাত্র বাস-মিনিবাস পরিবহন খাতে দৈনিক ৫০কোটি টাকার ক্ষতি হচ্ছে। সারা দেশে স্বাভাবিক সময়ে প্রায় ৬০হাজার বাস-মিনিবাস চলাচল করে আর এই যানবাহনের সাথে জড়িত রয়েছে প্রায় ২৫লাখ পরিবার সংখ্যায় প্রায় ১কোটি মানুষ। সারাদেশের ২০টি স্থল-বন্দরের মধ্যে নিয়মিতভাবে আমদানি-রপ্তানি হয় ৯টিতে - কার্যত সবই এখন বন্ধ। দেশের বিভিন্ন স্থানে ট্রেন-লাইনের ক্ষতি সাধিত হওয়ায় ঢাকা থেকে বিভিন্ন গন্তব্যে দৈনিক ২৬টি আন্তঃনগর ট্রেনসহ ৬২টি ট্রেনের টাইম-টেবল থাকলেও সম্ভাব্য দুর্ঘটনার আশঙ্কায় নির্ধারিত গতির চেয়ে অনেক কম গতিতে আন্তঃনগর ট্রেন চলাচলের ফলে ট্রেনের যোগাযোগ ব্যবস্থায় ব্যাপক বিপর্যয় এসেছে। ঢাকার মৌলভীবাজারে স্বাভাবিক সময়ে পাইকারি পণ্যের বেচা-কেনার মাধ্যমে প্রতিদিন ৫০০কোটি টাকার লেনদেন হলেও এখন তা’ ২০শতাংশে নেমে এসেছে। বাণিজ্যিক ভিত্তিতে তরল দুধ উৎপাদনকারী সবচেয়ে বড় অঞ্চল পাবনা-সিরাজগঞ্জে দৈনিক ছোট-বড় দুগ্ধ-খামার থেকে দুধ পরিবহনের/বিপণনের অভাবে আনুমানিক ৫০লাখ টাকার লোকসান হচ্ছে। ঢাকার অভিজাত এলাকায় প্রতিষ্ঠিত এক কমিউনিটি সেন্টারের স্বত্বাধিকারী ঘনিষ্ঠ বন্ধুর সাথে আলাপে জানলাম - ঢাকার সরকারী-বেসরকারি মালিকানাধীন প্রায় ৩০০টি কমিউনিটি সেন্টার ডিসেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ব্যস্ত থাকে অনুষ্ঠান আয়োজনে অতিরিক্ত কাজের চাপে। বিয়ের/পর্যটনের মৌসুম, শীতকাল, কর্পোরেট ফাংশন, ইত্যাদির কারণে বছরের এই তিন-মাস ব্যবসার জন্য সারা বছর ধরে অপেক্ষা করে মালিক, কর্মচারী, বাবুর্চি, ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান, ইত্যাদি…হতাশার সুরে বন্ধু বলেই ফেলেন - আর এ’বছর…“নিমন্ত্রণ খেতে এসে বোমার আঘাতের আতঙ্কে”…প্রায় ৯০ভাগ অনুষ্ঠানের বুকিং বাতিল হওয়ায় লোকসানের মাত্রা বেড়েই চলেছে। একই অবস্থা পর্যটন শিল্পে – কক্সবাজার, কাপ্তাই, সেন্টমার্টিন, কুয়াকাটা, জাফলং, চা-বাগান ইত্যাদিতে পর্যটকদের ৭০ভাগ অগ্রিম বুকিং বাতিলের ফলে ইতিমধ্যে আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ দৈনিক ২০০কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে।

৩. ছোটবেলা থেকে শুনেছি “শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড”। বাংলাদেশের ৩৫০জন সদস্যের জাতীয় সংসদের বিশাল লাইব্রেরির সংগ্রহে রয়েছে প্রায় ৮৫হাজার বই-পত্র, সাময়িকী, দুর্লভ দলিল। ২০১৪সালের দশম সংসদে জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর মাসে মাত্র ৮১জন সাংসদ এই লাইব্রেরিতে গিয়েছেন মূলত: দৈনিক-পত্রিকা পড়ার জন্যে। দেশের সাংসদদের ব্যক্তিগত ব্যবসায়িক কাজে ব্যস্ততা থাকার কারণে হয়তো জ্ঞানচর্চার প্রতি এতো অনাগ্রহ!!! দেশের চলমান ঘটনা-প্রবাহে জানুয়ারি থেকে শুরু হওয়া শিক্ষাবর্ষের অসংখ্য শিক্ষার্থীর লেখাপড়া ছাড়াও এসএসসি পরীক্ষা বন্ধ কিংবা বিলম্বিত হওয়ায় ১৪লাখ পরীক্ষার্থীদের অনিশ্চিত ভবিষ্যতের কিংবা পাঠ্যপুস্তক বহনকারী ট্রাকে আগুন দেওয়ার খবর শুনে মনে হয়েছে আমরা কোথায় যাচ্ছি?

৪. ঢাকায় গত দেড় মাসে শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হলো - দুই পর্বে বিশ্ব ইজতেমা, পুলিশ সপ্তাহ ২০১৫, ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৫, ইত্যাদি। ময়মনসিংহ বিভাগ দেশের ৮ম বিভাগ হিসাবে কার্যক্রম শুরু করেছে ইতিমধ্যে। বর্ধিত জনসংখ্যার চাহিদা মেটাতে প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস ও প্রশাসন শক্তির বিকেন্দ্রীকরণের প্রয়োজনে হয়তো ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগ থেকে ফরিদপুর/গোপালগঞ্জ এবং কুমিল্লা/নোয়াখালী নতুন বিভাগ তৈরি হবে নিকট ভবিষ্যতে। এলাকা ভিত্তিক নতুন নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হয়ে কর্মচাঞ্চল্যে উন্নয়নে মুখরিত হবে স্থানীয় জনপদ।

৫. পারিবারিক এক দাওয়াতে সুস্বাদু খাওয়া-দাওয়ার পাশাপাশি দেশ-বিদেশের সাম্প্রতিক রাজনৈতিক অবস্থা, ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৫, ইত্যাদি মুখরোচক ও উত্তেজনাপূর্ণ আলোচনায় আমার গুনি বন্ধুদেরকে প্রশ্ন করি - এমন কি কিছু আছে যা’ গুগুলে সার্চ দিলে “নো রেজাল্ট ফাউন্ড” দেখাবে? চট করে এক পণ্ডিত বন্ধু যিনি প্রায়ই চুপচাপ থাকেন উত্তর দিলেন - বাংলাদেশের যেকোনো দুর্ঘটনার পরে “তদন্ত কমিটির সঠিক প্রতিবেদন” - সার্চ দিলে “নো রেজাল্ট ফাউন্ড” দেখাবে। একই সাথে তিনি বলে ফেলেন - তেলবাহী জাহাজ-ডুবিতে সাড়ে তিন লাখ লিটার তেল সুন্দরবনে ছড়িয়ে পড়ার দুর্ঘটনার তদন্ত কমিটির রিপোর্ট ১০দিনের মধ্যে দেওয়ার কথা থাকলেও গত ৬০দিনে তা’ দেওয়া হয়নি - হায়রে বাংলাদেশ!!!

৬. স্বাধীনতার পরে গত চার দশকে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ের পরিসংখ্যানে, প্রতিবেদনে কিংবা ইনডেক্স পরিমাপে, প্রযুক্তি, কৃষি, শিক্ষা, খেলাধুলা, উন্মুক্ত-বাণিজ্য, অর্থনীতি, শহরায়ন-নগরায়ন, গার্মেন্টস এবং অন্যান্য রপ্তানি-মুখী শিল্প, রেমিটেন্স, ফরেন রিজার্ভ, ইত্যাদিতে আমাদের বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়ে গেলেও দেশের রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা অর্জনে পিছিয়ে রয়েছে - অনেকাংশে ব্যর্থ হয়েছে। স্বাধীনতার যুদ্ধের শুরু থেকে গত ৪৩বছর ধরে বাংলাদেশের মানুষ স্বপ্ন দেখেছে - “মোরা একটি ফুলকে বাঁচাবো বলে যুদ্ধ করি/ এক সাগর রক্তের বিনিময়ে বাংলার স্বাধীনতা আনলো যাঁরা/ আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি/ প্রথম বাংলাদেশ আমার শেষ বাংলাদেশ”। পৃথিবীর সব স্বাধীন দেশে আলাদা ভাবে স্বাধীনতা দিবস আর বিজয় দিবস নেই। কিন্তু বিরল সৌভাগ্যের বাংলাদেশে যথাযোগ্য সম্মানের সাথে রয়েছে - স্বাধীনতা দিবস আর বিজয় দিবস। যুদ্ধে লিপ্ত পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে শান্তি রক্ষার কাজে জাতিসংঘের শান্তি মিশনে বাংলাদেশের যোগদান এবং অবদান আন্তর্জাতিক পর্যায়ে প্রশংসিত ও গৌরবজনক এক অনন্য দৃষ্টান্ত।

৭. বেশ কয়েক বছর আগে নিউইয়র্কে বাংলাদেশী এক রেস্টুরেন্টে এক বিশাল পোস্টারে - I am GLAD to be banGLADeshi লেখা দেখে আনন্দিত হয়েছি। মনে হয়েছে স্বাধীন এবং বিজয়ী দেশের প্রতিনিধি হয়ে আমরা বিদেশে কতো বিনয়ী আমাদের অনুভূতি প্রকাশ করার জন্যে। সুদূর প্রবাস জীবনে বাংলাদেশের সংবাদে মনের অজান্তে আমরা আনন্দিত, আতঙ্কিত, পুলকিত, শিহরিত, গর্বিত, লজ্জিত, চিন্তিত, শোকাহত…হই, প্রতিদিনের খবরের জন্যে চোখ রাখি অনলাইন পত্রিকায়। আমরা বাংলাদেশে থাকলে আমাদের জীবনের Race Against Time-টা কেমন হতো তার অনুমান করতে আজ আর পারলাম না। তবে আমাদের এই প্রবাস জীবনে উন্নত দেশের লাইফ স্টাইলে Race Against Time-এ আরেকটি সংযোজিত নতুন আইটেম হলো - টেনশন। আমরা কি জানি মনের গহীনে প্রিয় বাংলাদেশের খবরে কিংবা দেশের নিকটতমদের জন্যে আমরা আমাদের মূল্যবান জীবনের কত বছর টেনশনে থাকি?

৮. গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ২০১৫সালের ক্যালেন্ডারে দেখলাম এ’বছর ২১দিন সরকারী ছুটি ঘোষিত হয়েছে। ছুটির দিনের তালিকায় - আজ ২১ফেব্রুয়ারী ২০১৫ সাল – অঙ্গীকার, গর্ব আর প্রত্যয়ের দিন। বাংলা ভাষা আমাদের শক্তি ও সম্পদ। ১৯৫২সালের ভাষা আন্দোলনের এই মহিমাময় দিনে ভাষাকে রক্ষা করার জন্যে পুরো জাতি এক সত্তায় একতাবদ্ধ হয়েছিলো। ভাষা আন্দোলনের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে আজ শপথ নেয়ার দিন। বছরের প্রতিটি কর্ম-দিবসে সঠিক কর্মের মধ্য দিয়ে সবার জন্যে আসুক আলোকিত, নিরাপদ, স্থিতিশীল ভবিষ্যৎ। উদ্বেগের, উৎকণ্ঠার, আতঙ্কের অবসানে সুরের মূর্ছনায় আর সঙ্গীতের প্রশান্তিতে বাংলাদেশের মানুষ আবারো গেয়ে উঠবে - “একটি বাংলাদেশ তুমি জাগ্রত জনতার, তুমি সারা বিশ্বের বিস্ময়, তুমি আমার অহংকার” - প্রবাসী বাংলাদেশীদের প্রত্যাশা।




mmparvez@yahoo.com
সিডনী






Published on: 20-Feb-2015


ডঃ বদরুল আলম খানের নতুন বই
“সংঘাতময় বাংলাদেশঃ অতীত থেকে বর্তমান”


বদরুল আলম খান এর সাক্ষাতকার

Published on: 18-Feb-2015


সুন্দর ফন্টের জন্য SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন...


শিকড়ের সন্ধানে
মোস্তফা আব্দুল্লাহ

“যেখানে দেখিবে ছাই উড়াইয়া দেখ ভাই, পাইলেও পাইতে পারো মানিক রতন”


এমনি মানিক রতনের সন্ধান পেয়েছেন আমাদের বাঙ্গালি মেয়ে সামিয়া খাতুন। ইতিহাসের ছাত্রী সামিয়ার গবেষণার বিষয়বস্তু ভারত উপমহাদেশের সাথে অস্ট্রেলিয়ার ঐতিহাসিক যোগ-বন্ধন। এই বিষয়ের উপর সিডনি ইউনিভার্সিটি থেকে ডক্টরেট করার সময় তিনি ব্রোকেন হিল গিয়েছিলেন তথ্য অনুসন্ধানে। ঘুরতে ঘুরতে উঠলেন গিয়ে ১৮৮০ সালে আফগান উট চালকদের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত দুটি মসজিদের একটিতে। এক কোণে সংরক্ষিত কিছু বই পত্রের উপর চোখ বুলাতে বুলাতে হঠাৎই এক জায়গায় এসে চক্ষুটা স্থির হয়ে গেল। নিজের দৃষ্টিকে নিজেই বিশ্বাস করতে পারছিলেন না - এ কি করে সম্ভব! এখানে বাংলা বই? উনবিংশ শতাব্দীতে এই মহাদেশে বঙ্গ সন্তানের পদচারণা?

অন্যান্য বইয়ের সাথে এটাকে সংরক্ষিত করে রাখা হয়ে ছিল কোরান শরীফ মনে করে। সামিয়া তার মাকে জিজ্ঞাসা করে জানতে পারলেন যে ওটা একটা বাংলা পুথি। আরও অনুসন্ধানে জানা গেল পুথিটির নাম ‘কাসাসুল আম্বিয়া’ এবং সেটা প্রকাশিত হয়েছিল ১৮৪৯ সালে কলকাতা থেকে। পুথি পাঠের প্রচলন ও প্রকাশ আজ নাই বললেই চলে। এক সময় সমগ্র বাংলা জুড়েই ধর্মীও, সামাজিক, বিনোদন মূলক আচার অনুষ্ঠানে পুথি পাঠের আচার ছিল। কাব্যিক ছন্দে লেখা নবী ও মনীষীদের জীবনালেখ্য সুরেলা কণ্ঠে আবৃতি করতেন মৌলানা সাহেব বা তেমন কেউ।

বইটির আবিষ্কার সামিয়াকে করে তুলল আরও অনুসন্ধানী। ছুটে গেলেন কলকাতা, শিকড়ের সন্ধানে – যেখান থেকে ওই পুথিটির যাত্রা শুরু হয়ে শেষ হয়েছিল ব্রোকেন হিলের এই মসজিদে উনবিংশ শতাব্দীর কোন এক সময়। ফিরে এসে আরও বহু পরিশ্রম ও তথ্য আহরণের পর লিপিবদ্ধ করলেন তার কয়েক বৎসরের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফল: Camels, Ships and Trains: Australia in an Indian Ocean Context। সামিয়ার আশা যে বইটা ২০১৫ সালের প্রথম দিকেই প্রকাশিত হতে পারে। সামিয়ার ভাষ্য মতে ভারতে ইংরেজদের উপনিবেশের সুবাদে অস্ট্রেলিয়ার জন্ম লগ্ন থেকেই দক্ষিণ এশিয়া তথা ভারত উপমহাদেশীয়রা এ দেশে আসা শুরু করে শ্রমিক, গৃহ-ভৃত্য, আয়া ও এ ধরনের অন্য সব পেশায়। মনে করা হয় ভারত উপমহাদেশ থেকে যারা প্রথম এ দেশে পদার্পণ করেন তাদের মধ্যে অনেকেই ছিলেন জাহাজের বাঙ্গালি শ্রমিক। তখন কার ভাষায় তাদের বলা হতো লাস্কার যাদের বেশির ভাগকেই নিয়োগ দেয়া হতো কলকাতা বন্দর থেকে। উনবিংশ শতাব্দীতে বাঙ্গালীদের এই মহাদেশে পদার্পণের এক বিশেষ প্রমাণ পাওয়া যায় সিডনি গেজেট থেকে: ১৮০৬ সালের ২৩শে মার্চ কলকাতার লাস্কাররা সিডনির রাজপথে মহররম উপলক্ষে এক চিত্তাকর্ষণীয় কুচকাওয়াজের আয়োজন করে। এই লাস্কারদের জাহাজে করেই ১৮৬০ সন থেকে আসতে শুরু করে উট চালকরা। যদিও এই উট চালকরা শুধু ‘আফগান’ নামেই পরিচিত, প্রকৃত পক্ষে এদের মধ্যে ভারতের উপমহাদেশের অন্যান্য অংশের তথা পাকিস্তান, ভারত, বাংলাদেশ থেকেও আগতরা ছিল। এমনকি উপমহাদেশর অন্যান্য স্থান থেকে আগতদের মধ্যে যারা ফেরি করে বিভিন্ন সামগ্রী প্রত্যন্ত অঞ্চলে বিক্রি করে বেড়াতেন তাদেরকেও স্থানীয়রা আফগান বলেই জানত ।

১৯০১ সালে White Australia Policy চালু হওয়ার পর থেকে ভারত উপমহাদেশ থেকে আগতদের সংখ্যায় কিছুটা ভাটা পড়ে তবে তা একেবারে বন্ধ হয়ে যায় নি। তবে মোটর যান চালু হওয়ার পর থেকে উটের প্রয়োজন কমার কারণে এই পেশার প্রয়োজন কমতে থাকে এবং এদের বেশির ভাগই অন্যান্য পেশায় জড়িয়ে পড়ে। এই আইন চালু হওয়ার পর ইউরোপিয়ানদের বৈষম্যমূলক ও বৈরী আচরণ বৃদ্ধির কারণে অনেকেই শহরাঞ্চল ছেড়ে স্থানীয় আদিবাসীদের কাছাকাছি বসবাস শুরু করে এবং অনেকেই তাদের সাথে বৈবাহিক সম্পর্ক স্থাপন করে এদের মাঝেই মিলিয়ে যায়। সঠিক ভাবে খোঁজ করতে পারলে হয়ত এদের মাঝে আমাদের অনেক পূর্বসূরির বংশধরদের খোঁজ পাওয়া যাবে।

১৯৭০ সালে ওই জাতিগত বর্ণ বৈষম্য মূলক আইন বাতিল হওয়ার পর থেকে কিছু কিছু বাঙ্গালি পেশাজীবীদের আবার এদেশে অভিবাসন শুরু হয়। এর আগে থেকেও অল্প কিছু বাঙালী এদেশে বাস করতেন। এরা মূলত কোন না কোন ভাবে এখানে এসে স্থানীয় কাউকে বিবাহ করে বা অন্য কোন উপায়ে রয়ে গিয়েছিলেন। এদের কারো কারো সাথে সত্তুরের প্রথম দিকে যারা এসেছিলেন তাদের যোগাযোগও হয়েছিল। এমন একজনের কথা শুনেছিলাম ভূতত্ত্ববিদ জনাব নজরুল ইসলামের কাছে। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তি যুদ্ধ চলা কালীন সময়ে ওনারা মুষ্টিমেয় কয়েকজন বাংলাদেশী যখন মুক্তি যুদ্ধের সপক্ষে সমর্থন আদায়ের প্রচেষ্টা চালাচ্ছিলেন তখন একদিন একজন টেলিফোন করে বাংলাদেশের সমর্থনে যে কোন উপায়ে তার সহযোগিতার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেন। নজরুল ভাই তার সাথে দেখা করতে গিয়ে প্রথমে মনে করেন যে ভুল ঠিকানায় গিয়েছেন। পরিবারের কাউকেই বাঙ্গালী বংশোদ্ভূত বলে মনে হয়নি। পরে আলাপে জানা গেল যে পরিবারের প্রধান বহু আগে নাবিক হিসাবে এখানে এসে রয়ে যান। উল্লেখযোগ্য যে তিনি একটা ভালো অঙ্কের অর্থ সাহায্যের মাধ্যমে বাংলাদেশের মুক্তি সংগ্রামে অংশ নিয়েছিলেন। তবে অনুতাপের বিষয় যে সেই বাঙালী ভদ্রলোকের নাম ও ঠিকানা কেউই মনে করতে পারছেন না।

এমনি করে আমাদের অনেক শিকড়ই হারিয়ে যাচ্ছে দিনের পর দিন – যদি না আমরা কেউ এই শিকড়ের সন্ধান শুরু করে তার সংরক্ষণ করি। কোনদিন যদি আমাদেরই কোন উত্তরসূরি জানতে চায় কোথায় তার শুরু, কারা তার পূর্বসূরি, কেমন ছিল তারা, কেনই বা তাকে আনা হয়েছিল এখানে, কেন সে বঞ্চিত হোল তার পূর্বপুরুষের পরিচয় থেকে – তখন অলক্ষ্যে থেকেও আর আমাদের গ্লানি ও লজ্জায় মুখ লুকবার অবকাশ থাকবে না। হয়ত আফ্রিকান বংশোদ্ভূত বারাক ওবামার মত একদিন এদেশের প্রধান মন্ত্রীও হবে আমাদেরই কোন উত্তরসূরি কিন্তু কেউ জানবেও না যে তার ধমনিতে বইছে আমাদেরই রক্ত।




* Shubha Singh of The Indian Diaspora এর সাথে ইমেইল এর মাধ্যমে সামিয়া খাতুনের সাক্ষাতকারের অংশবিশেষ অবলম্বনে সঙ্কলিত।

* সামিয়া খাতুনের সংক্ষিপ্ত পরিচয়ঃ Samia Khatun is a McKenzie Postdoctoral fellow at the University of Melbourne and is collaborating with workers rights activists in Bangladesh to produce a 400-year history of textile workers from Mughal Bengal to contemporary Bangladesh. Taking a slices-through-time approach, Samia is investigating how workers have memorialised five key moments in the history of textile production through song and poetry beginning with Mughal Bengal and ending with the Rana Plaza collapse in contemporary Bangladesh. Samia completed her PhD in 2012 at the University of Sydney, where her research examined connections between South Asia and Australia using Aboriginal and South Asian language materials. Since then she has held postdoctoral fellowships at Zentrum Moderner Orient, Berlin and The Centre for Research on Colonial Culture, Dunedin as well as a writing fellowship at the Asian-American Writers Workshop, New York. Samia has also made documentaries on Australian race relations that have screened on SBS and ABC-TV. (The University of Melbourne এর School of Historical and Philosophical Studies এর ওয়েব সাইট থেকে সংগ্রহীত)

* কয়েক দিন আগে sydneybashi-bangla.com এ বিষয়ের উপর জনাব ফকরুদ্দিন আহমদ চৌধুরীর লেখাটি একটি সময় উপযোগী পদক্ষেপ বলে অভিনন্দন জানাই।

* photo courtesy: bdtruth.com.au / sbs.com.au / theindiandiaspora.com



মোস্তফা আব্দুল্লাহ, গ্লেনউড, সিডনি





Published on: 19-Feb-2015


সুন্দর ফন্টের জন্য SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন...


ডঃ বদরুল আলম খানের নতুন বই
“সংঘাতময় বাংলাদেশঃ অতীত থেকে বর্তমান”


ডঃ বদরুল আলম খানের ৫ম গ্রন্থ, “সংঘাতময় বাংলাদেশঃ অতীত থেকে বর্তমান” সম্প্রতি ঢাকা থেকে প্রকাশিত হয়েছে। ভারতীয় উপমহাদেশে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের অভ্যুদয় বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে অন্যতম তাৎপর্যপূর্ণ একটি ঘটনা। স্বাধীনতা পরবর্তী এ দেশের স্বল্পদৈর্ঘের ইতিহাস রাজনৈতিক এবং সামাজিক উথালপাতালে সমাকীর্ণ। একাধিক সামরিক অভ্যূথান, জনপ্রিয় রাষ্ট্রনায়কদের নির্মম পরিনতি, বিশ্বাসঘাতকতা, শঠতা, ষড়যন্ত্র, প্রতিহিংসা, ক্রোধ ও সংঘাতের এ সব ঘটনা গ্রীক পুরান বা ট্রাজেডির কাহিনিকে মনে করিয়ে দেয়। বাংলাদেশের রাজনীতি ও সমাজ জীবনে যে সংঘাত সর্বব্যাপী, এ গ্রন্থে তার ঐতিহাসিক এবং সমকালীন উৎস অনুসন্ধান করা হয়েছে। এখানে জাতি পরিচয় ও ধর্মপরিচয় ভিত্তিক দ্বন্দ্ব, জাতীয় নেতৃত্বে ব্যক্তিত্বের সংঘাত এবং গ্রাম ও শহরের মধ্যে বৈষম্য কীভাবে দেশের সংকটকে জটিল করে তুলেছে তার বিশ্লেষণধর্মী আলোচনা তুলে ধরা হয়েছে।

বইটিতে পাঁচটি অধ্যায় রয়েছেঃ সঙ্ঘাত মানসিকতার ঐতিহাসিক পটভূমি, আত্মপরিচয়ের দ্বন্দ্বঃ জাতি বনাম ধর্ম, রাষ্ট্র ও গণতন্ত্র, ব্যাক্তিত্বের সংঘাতঃ মুজিব বনাম জিয়া, গ্রাম শহর দ্বন্দ্ব এবং উপসংহার হিসেবে সংঘাত নিরসনের পথ।

গ্রন্থের প্রকাশক “প্রথমা প্রকাশন”। পৃষ্ঠা সংখ্যা ৩০৪, মূল্য ৫৫০ টাকা (১৫ অস্ট্রেলীয় ডলার)। বইটি সিডনীর একুশে বই মেলা এবং বৈশাখী মেলায় পাওয়া যাবে।

ডঃ বদরুল আলম খান ১৯৫২ সালে যশোরে জন্মগ্রহন করেন। অস্ট্রেলিয়ার সিডনী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ে এম এ এবং মস্কো রাষ্ট্রীয় বিশ্ব বিদ্যালয় থেকে সমাজতত্ত্বে পিএইচডি। ১৯৮৩ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজতত্ত্ব বিভাগে যোগ দেন। এরপর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করেন ১৯৮৮ সালে। ১৯৯৪ সাল থেকে অস্ত্রেলিয়ায় অধ্যাপনা করছেন। পড়িয়েছেন ম্যাকোয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ও সিডনী বিশ্ববিদ্যালয়ে। বর্তমানে ওয়েস্টার্ন সিডনী বিশ্ববিদ্যালয়ে খণ্ডকালীনভাবে অধ্যাপনা করেন।

তার লেখা অন্যান্য গ্রন্থসমূহ -

পুঁজিবাদের সমাজতত্ত্ব (সম্পাদনা),
“সমাজতত্ত্বঃ সংকট ও সম্ভবনার দেড়শ বছর” (বাঙলা একাডেমী);
“দর্শনের সংকট” (জাতীয় সাহিত্য প্রকাশনী);
“তৃতীয় বিশ্ব ধর্ম ও সমাজ বিপ্লব” (জ্ঞান প্রকাশনা)।







Published on: 18-Feb-2015






Published on: 31-Jan-2015


M. Jalaluddin Talukdar Passed Away!
M. Jalaluddin Talukdar (92), father of Architect Zia Ahmed and Ismat Haq of Toongabbie, has passed away at 11:45 pm today (28-Dec-2014) at the Melrose Village Nursing Home in Pendle Hill. He has been suffering from age related complications. A plant Pathologist by profession, Mr. Talukdar has been living in Sydney with his son and daughter since 2001. His body will be taken to Bangladesh to be buried at the Martyred Intellectuals Cemetery Dhaka next to his wife's grave. Mr Talukdar is survived by his two sons, one daughter and five grandchildren. We express our sincerer condolences to all members of his bereaved family. May his soul rest in peace.


...His Namaj-e-Janaza will be held in Dhaka...


Published on: 28-Dec-2014


এবারের ঢাকা সফর
মাসুদ পারভেজ


Published on: 22-Dec-2014


সুন্দর ফন্টের জন্য SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন...


এবারের ঢাকা সফর
মাসুদ পারভেজ


১. আব্বার ইন্তেকালের তিন বছর পরে এই প্রথম আমার এবারের ঢাকা সফর। আব্বা যতদিন বেঁচে ছিলেন নিয়মিতভাবে প্রতি দুই বছরে একবার পরিবারের সবাই মিলে ঢাকায় গিয়েছি আব্বার সাথে আনন্দঘন সময় কাটানোর জন্যে। আমি, আমার স্ত্রীসহ বাচ্চারা সবাই আব্বার সান্নিধ্যে আনন্দে ছুটির দিনগুলি উপভোগ করেছি। আব্বার অবর্তমানে আমার এবারের ঢাকা সফর তাই দুঃখ ভারাক্রান্ত এবং ইমোশনাল…। সিডনি থেকে রওনা হওয়ার আগে ঘনিষ্ঠ এক বন্ধুর প্রশ্নের উত্তরে বলেছিলাম - আমার এবারের ঢাকা সফর - “হোপ ফর পিস এন্ড হ্যাপিনেস”।

২. নির্ধারিত সময়ে A৩৮০ বিমানের দোতলায় ইমার্জেন্সী এক্সিটের পাশে সুপ্রশস্ত জায়গায় আমার প্রিয় আসনে বসে সিডনি ছেড়ে রওনা হলাম গন্তব্যে। সাত ঘণ্টা ত্রিশ মিনিটের এই যাত্রায় প্রায় অর্ধেক সময় লেগেছে অস্ট্রেলিয়ার ভূখণ্ড অতিক্রম করতে। আর এই সময়ে শুধুই ভেবেছি - আমাদের বাংলাদেশ যদি আরেকটু বাসোপযোগী হতো তাহলে কি সব নিকট আত্মীয়-স্বজন ছেড়ে স্বার্থপরের মতো শুধু আমি আমার নিজ পরিবারকে নিয়ে এই মহাদেশে ইমিগ্র্যান্ট হতাম?

ঝির-ঝির বৃষ্টির মাঝে নির্ধারিত সময়ে সিঙ্গাপুর পৌঁছিয়ে, এয়ারপোর্টের দোকান থেকে প্রয়োজনীয় কেনাকাটার মধ্যে সাড়ে তিন ঘনটার যাত্রা বিরতি দ্রুত ফুরিয়ে গেলো। ঢাকাগামী ফ্লাইট যখন মধ্য আকাশে তখন হঠাৎ ফ্লাইট এটেনডেন্টদের ছুটাছুটির মধ্যে এনাউন্সমেন্টে শুনতে পেলাম - we have a medical emergency and need a doctor, please identify yourself if you are a doctor or a medical professional…। মূহুর্তের মধ্যে দেখলাম - আমার আসনের অদূরে একজন বয়স্কা মহিলার অসুস্থ অবস্থা। ইতিমধ্যে নিজেকে মানসিকভাবে প্রস্তুত করে নিলাম গত আট বছর ধরে অস্ট্রেলিয়ান রেডক্রস থেকে ফার্স্ট এইড ট্রেনিং নিয়ে আমার অফিসে ফার্স্ট এইড অফিসার হয়ে কাজ করার অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগানোর জন্যে। মাঝ-বয়সী এক অস্ট্রেলিয়ান মহিলা নিজেকে ডাক্তার পরিচয় দিয়ে সাহায্যের জন্যে এগিয়ে এলেন। পরম করুণাময়ের অশেষ রহমতে সময়োপযোগী সবার প্রচেষ্টায় প্রাণে রক্ষা পেলেন আমাদের সহযাত্রী। পরে জেনেছি সিঙ্গাপুর থেকে সদ্য চিকিৎসা শেষে তিনি ঢাকায় ফিরছিলেন তাঁর মেয়ে ও যুবক নাতির সাথে।

৩. ঢাকার হজরত শাহজালাল ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে পৌঁছানোর পরে ইমিগ্রেশনের আনুষ্ঠানিকতা শেষে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন, সুপ্রশস্ত, গোছানো-পরিপাটি, মশা-বিহীন আমাদের বিমানবন্দর দেখে অভিভূত হলাম। বিমানবন্দরে ইতিপূর্বে অহেতুক সাহায্যের নামে ট্রলি নিয়ে এগিয়ে আসা অচেনা লোকদের অনুপস্থিতিতে কিছুটা স্বস্তি পেলাম।

চেক-ইন ব্যাগেজ আসার অপেক্ষার মাঝে গ্রামীণ ফোনের কাউন্টারে গিয়ে মোবাইল ফোন, চার্জার আর ফ্লেক্সি লোডের টাকা দিয়ে অনুরোধ করলাম মোবাইল ফোনটাকে একটু চার্জ দিয়ে ফ্লেক্সি লোড করে দেয়ার জন্যে। অত্যন্ত আন্তরিকতা ও দ্রুততার সাথে শিক্ষিত এবং বিনয়ী কাস্টমর সার্ভিস অফিসার আমার কাজ সেরে দিলেন। ধন্যবাদ জানিয়ে, চেক-ইন ব্যাগেজ নিয়ে একটু এগিয়ে যেতেই -
পোশাকধারী এক কাস্টমস অফিসার এসে বলেন - where are you coming from?
বললাম - সিডনি থেকে… পথ দেখিয়ে, তিনি বলেন - have a nice stay
ধন্যবাদ জানিয়ে, মনের আনন্দে বলেই ফেললাম - তিন বছরে সুন্দর পরিবর্তন…আমার এবারের ঢাকা সফরের স্টার্টটা মন্দ নয়!!!

হঠাৎ মনে হলো…গেটের ওপারে প্রতিবারের মতো আব্বা আজ আমার জন্যে অপেক্ষায় নেই…মনটা খুব খারাপ হয়ে গেলো বাস্তবকে মেনে নিতে।

৪. চলমান ট্রাফিক অভিযানের কারণে রাস্তায় গাড়ির সংখ্যা কম থাকায় অল্প সময়ে পৌঁছে গেলাম দুই কোটি মানুষের বসবাসকারী ঢাকা শহরে আমার থাকার জায়গায়। অনির্দিষ্টকালের ট্রাফিক অভিযানের ফলে রাস্তায় তিন লাখ ফিটনেস-বিহীন যানবাহনের অবর্তমানে ঢাকা শহরে মানুষের ভোগান্তি বৃদ্ধি পেলেও রাস্তার জ্যাম লক্ষণীয় কম ছিলো।

ঢাকা শহরে আমার প্রিয় বাহন রিক্সা। যদিও বেশ কয়েক বছর ধরে ঢাকা শহরের বিভিন্ন রাস্তায় সঙ্গত কারণে রিক্সা চলাচল নিষিদ্ধ, তবুও প্রতিবারেই ঢাকায় গেলে আমার গন্তব্যে রিক্সায় যতদূর যাওয়া যায় তত দূর আমি রিক্সার যাত্রী হয়েছি। প্রয়োজনে রাস্তার জ্যামে আটকানো অবস্থা থেকে পরিত্রাণের জন্যে রিকশাওয়ালাকে ভাড়া দিয়ে, সাবধানে হেঁটে রাস্তার জ্যাম পার হয়ে, নতুন আরেক রিক্সা ভাড়া করে গন্তব্যে পৌঁছিয়েছি। সবুজ রঙের CNG-কে “খাঁচার ভিতর অচিন পাখির” বাহন মনে হয় আমার। আর তাই রিক্সায় যেতে না পারার পথে রেন্ট-এ-কারের সাহায্য নেই সবসময়।

৫. ঢাকায় পৌঁছিয়ে প্রথম শুক্রবারে ভোর সাতটায় আজিমপুর কবরস্থানে গিয়েছি। অনেক অল্প বয়সে আমার আম্মা এখানে অসংখ্য সতীর্থদের সাথে গত বিশ বছর ধরে চির নিদ্রায় শায়িত। এর আগে যতবার বিদেশ থেকে ঢাকায় এসেছি সেসময়ে বহুবার আম্মার কবর জিয়ারত করেছি। আম্মার ইন্তেকালের পরে সতেরো বছর একাকী নিঃসঙ্গ জীবনের অবসানে তিন বছর আগে আব্বা চির নিদ্রায় শায়িত হয়েছেন আম্মার কবর থেকে মাত্র তিনটি কবর ব্যবধানে। শিশির ভেজা, নরম তুলতুলে, ঘন সবুজ ঘাসের ওপর হাত রাখতেই মনে হলো ছায়া-ঘেরা, হালকা-নির্মল বাতাস থেকে - আব্বা এবং আম্মা বলছেন - এতদিন পরে এলে? তুমি ভালো আছো? বাসার সবাই ভালো? কবর জিয়ারতের মাঝে আজিমপুর কবরস্থানে চির নিদ্রায় শায়িত সবার আত্মার মাগফেরাত কামনা করে নীরবে বলি - রাব্বির হামহুমা কামা রাব্বা ইয়ানী সাগীরা। এই প্রথম একইসাথে আব্বার এবং আম্মার কবর জিয়ারতের সুযোগ হওয়ায় অনেক দুঃখের মাঝেও আমার এবারের ঢাকা সফরের মনের শূন্যতা অনেকটা পূরণ হয়েছে।

৬. নভেম্বর মাসে ঢাকায় শীতের কোনো আবহাওয়া নেই। তবুও শীতের আমেজ রয়েছে মানুষের পোশাক পরিচ্ছদে (মনে হয় অনেকটা জোর করে পরা), বাজারে শীতকালীন সবজির আর মাছের সরবরাহে, বৃষ্টিহীন ধূলা-বালিতে সয়লাব পরিবেশে। সকাল আটটার পরে আজিমপুর থেকে ফেরার পথে নিউমার্কেটে মাছের বাজারে সিরাজগঞ্জ থেকে আসা জ্যান্ত এবং তাজা কই, মাগুর, শোল, রুই, কাতলা, চিংড়ি, আইড়, পাঙ্গাশ, তেলাপিয়া, পাবদা, চিতল, ইত্যাদি বিভিন্ন ধরনের মাছের বিশাল সম্ভার দেখে মনে হলো ২০১৪ সালের FAO’র The State of World Fisheries and Aquaculture প্রতিবেদনের কথা – “বাংলাদেশ এখন মিষ্টি-পানির মৎস্য উৎপাদনে বিশ্বে চতুর্থতম স্থানে” শীর্ষক সংবাদের। “মাছে-ভাতে বাঙালী” প্রবাদ এখন বাস্তব!

৭. আত্মীয়-স্বজন এবং বন্ধুদের সাথে দেখা করা কিংবা ব্যক্তিগত প্রয়োজনে এবারে গিয়েছি নতুন ঢাকার - উত্তরা, বসুন্ধরা, গুলশান, বারিধারা, বনানী, মহাখালী, মিরপুর, মোহাম্মদপুর, লালমাটিয়া, ধানমন্ডি; নতুন ও পুরান ঢাকার সন্ধিক্ষণে - মগবাজার, মালিবাগ, সেগুনবাগিচা, পরিবাগ, পল্টন, মতিঝিল; পুরান ঢাকার - কলতাবাজার, ধোলাইখাল, ওয়ারী, গেণ্ডারিয়া, সদরঘাট, ইত্যাদি। সব জায়গায় মোটামুটি একই চিত্র - গায়ে গায়ে লাগানো গগনচুম্বী এপার্টমেন্টের সারি, নতুন-নতুন স্কুল/কলেজ/বিশ্ববিদ্যালয়/কোচিং সেন্টার, হাসপাতাল/মেডিকেল সেন্টার, ডিপার্টমেন্ট স্টোর, মুদি দোকান যেখানে সহজেই ফ্লেক্সি লোড করা যায়, দোরগোড়ায় ভ্যান গাড়িতে করে সবজি/মাছ/মুরগি বিক্রেতাদের অবাধ বিচরণ, যত্রতত্র ময়লার স্তূপ, টেলিফোন/ল্যাম্প পোস্টে ল্যান্ডফোন/ডিশ লাইন সংযোগের কুণ্ডলী/জট পাকানো কালো রঙের তারের ছড়াছড়ি, ইত্যাদি। ঢাকার ঐতিহ্যবাহী জয়কালী মন্দিরের চূড়ার একাংশ এখন দেখা যায় রাস্তা থেকে – বাকি সবকিছু ঢেকে গিয়েছে চারিদিকের দোকান-পাটে আর ফ্লাইওভার নির্মাণে। সম্ভ্রান্ত এলাকার গুলশান লেকে ময়লা, পচা গন্ধে, সবুজ রঙের পানিতে কাঠের তৈরি নৌকাতে যাত্রী পারাপার হতে দেখে মনে হয়েছে - প্রায় ত্রিশ বছর আগে আমার দেখা পুরান ঢাকার গেণ্ডারিয়ার কাঠের পুলের নীচের পানির কথা। একইসাথে মনে হয়েছে - দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের কবিতার লাইন –“…এমন দেশটি কোথাও খুঁজে পাবে নাকো তুমি…”।

ঢাকার ফুটপাথ অবৈধ দোকানিদের দখলে কিংবা ময়লা আবর্জনায় ভর্তি, ফুট ওভারব্রিজগুলি ভিক্ষুক আর হকারদের নিয়ন্ত্রণে, মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অবাধে হেঁটে রাস্তা পার হচ্ছে - এই চিত্র নতুন কিছু নয়। তবে নতুন চিত্র হলো - অনির্দিষ্টকালের চলমান ট্রাফিক অভিযানে পুলিশ অবৈধভাবে রাস্তা পারাপারকারীদের জরিমানা করছে - নিঃসন্দেহে এক সাহসী পদক্ষেপ!!!

৮. ঢাকার পার্শ্ববর্তী জেলার ছোট এক ইউনিয়নে বসবাসকারী বন্ধুর সাথে আলাপচারিতায় জানলাম তার ইউনিয়নের প্রায় সব কর্মক্ষম তরুণরা ঢাকায় কিংবা বিদেশে চলে যাওয়ার কারণে সরকারী হিসাবে তাদের এলাকার জনসংখ্যা বাড়লেও প্রকৃত ভোটারের সংখ্যা বাড়েনি। প্রতিদিন ঢাকার লোকসংখ্যা কতজন বাড়ছে তার সঠিক হিসাব কার কাছে আছে? ঢাকা শহরে এলাকা ভিত্তিক ফ্লাইওভার নির্মাণের ফলে সাময়িকভাবে রাস্তার জ্যাম এড়িয়ে গতি এবং দূরত্বকে জয় করা সম্ভব হলেও আগামী এক দশকে ঢাকার জনসংখ্যা এবং যানবাহনের বৃদ্ধির তুলনায় তা’ প্রয়োজন মেটাতে পারবে কি? নিকট ভবিষ্যতে তাই আধুনিক ঢাকার আকাশে - মনোরেল, মাটিতে - সারফেস রেল, কিংবা পাতালে - টিউব বা সাবওয়ে স্থাপিত হবে। উন্নয়নের আরেক ধাপে এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।

৯. ঢাকা শহরে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক ছাড়াও ব্যাঙের ছাতার মতো গজানো দেশী-বিদেশী ব্যাঙ্কের সংখ্যা কতো হবে তার হিসাব হয়তো বাংলাদেশ ব্যাঙ্ক কিংবা অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে আছে। নতুন-নুতন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আর জনসংখ্যার বৃদ্ধির কারণে এইসব ব্যাঙ্কের শাখা/ATM আজ সর্বত্র ছড়িয়ে মানুষের চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি শিক্ষিত সমাজের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করেছে। আরো আশার বাণী - সরকার সম্প্রতি দুই লক্ষ শূন্য পদে শীঘ্রই নিয়োগ প্রদানের কথা ঘোষণা করেছেন। দীর্ঘদিন এতোগুলি পদ শূন্য থাকার কারণ কি আর প্রকৃতপক্ষে শূন্য পদের সবই কি প্রয়োজনীয়?

“উন্মাদ” সাময়িকীর পুরানো সংখ্যার খোঁজে প্রতিবারের মতো এবারেও ঢাকার নিউমার্কেটে বইয়ের দোকানে গিয়েছি। এইসময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুইজন ছাত্রী এসে “সরকারী চাকুরীর নীতিমালা” এবং “ট্যাক্সেশান রুলস”-এর বই দুইটি পাওয়া যাবে কিনা জানতে চাইলে দোকানের এক প্রবীণ বিক্রেতা উত্তরে জানালেন – “…এসব পড়ে কি কোনো লাভ হবে…”?!!!

কেনাকাটার জন্যে বইয়ের, ষ্টেশনারীর, ফোনের, কাপড়ের, টেইলারিং-এর, জুতার, মিষ্টির, বেকারির, ইত্যাদি যতো দোকানে গিয়েছি প্রায় সব দোকানে শিক্ষিত, মার্জিত এবং বিনয়ী তরুণ-তরুণী সেলস পারসনদের দেখা পেয়েছি। কয়েকজনের সাথে আলাপ করে জেনেছি তাদের বেশীর ভাগই ইউনিভার্সিটি গ্রাজুয়েট/পড়ুয়া। পত্রিকায় পড়েছি বাংলাদেশে এখন শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা পাঁচ শতাংশের মতো। এই তথ্য যদি সত্যি হয় তা’ নিশ্চয়ই তেমন বেদনাদায়ক নয়। কিন্তু প্রশ্ন থেকে যাচ্ছে - শিক্ষিত মানুষেরা কি তাদের যোগ্যতা অনুযায়ী চাকুরী পাচ্ছে, শিক্ষার মান কি আগের মতো তেমন উন্নত, নাকি প্রয়োজনের তুলনায় অনেক অনেক বেশী গ্রাজুয়েট প্রতি বছর ইউনিভার্সিটি থেকে বের হচ্ছে?

ঢাকা শহরের যেকোনো বহুতল এপার্টমেন্টের জন্যে রোস্টার ভিত্তিতে কমপক্ষে চারজন সিকিউরিটি গার্ডের/কেয়ারটেকারের প্রয়োজন। এছাড়া নতুন/পুরাতন এপার্টমেন্ট বেচা-কেনা-ভাড়া দেয়ার জন্যে রিয়েল এস্টেট প্রফেশনালদের চাহিদাও বেড়েছে। তাই প্রপার্টি সেলস/মার্কেটিং/ম্যানেজমেন্ট/সিকিউরিটি গার্ড/রিমুভালিস্ট নিয়োগের জন্যে পত্রিকায় এবং বিভিন্ন অফিসের নোটিশ বোর্ডে প্রচুর বিজ্ঞাপন দেখে অস্ট্রেলিয়ান ইমিগ্রেশনের ওয়েবসাইটে দেখা - বিভিন্ন সময়ে চাহিদার ভিত্তিতে তৈরি “ডিমান্ড অকুপেশান লিস্টের” কথা মনে হয়েছে।

১০. জোনাকী সিনেমা হলের সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় অনেকদিন আগের নন্দিত চলচ্চিত্র – “নীল আকাশের নীচে” দেখার কথা মনে হলো। এবারে যতদিন ঢাকায় ছিলাম - আকাশের দিকে তাকিয়ে কোনোদিনই নীল আকাশের দেখা পাইনি। ২০১৩ সালে দেখা বেইজিংয়ের আকাশের রঙের সাথে এবারের ঢাকার আকাশের রঙের অনেক মিল খুঁজে পেলাম। আনন্দের সংবাদ - ঢাকা শহরের পরিবেশ দূষণ দূর করার অন্যতম পদক্ষেপ হিসাবে হাজারীবাগ থেকে ১৫৬টি ট্যানারি সাভারে সরিয়ে নেয়ার জন্যে সরকার ৩৫০কোটি টাকা বরাদ্দ করেছেন।

বাকি অংশ পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন >








Published on: 22-Dec-2014


Grameen Support Group Australia Inc.
Notice of Annual General Meeting


Dear Members,

As per Clause 5.1 of the Constitution, the Annual General Meeting of GSG Australia Inc. to be held on Sunday, 7th December 2014 at 65 Spurway Street, Ermington from 3pm to 5pm.
Light refreshments will be provided.
Confirmation of attendance by email or phone will be appreciated.

The agenda:

a) Adoption of the new constitution of the organization.

b) General discussion of the activities of the organization for the year and other related matters by the General Secretary.

c) President’s Report.

d) The Treasurer’s report with up-to-date financial position.

e) Scholarships program for the poor meritorious HSC and undergraduate students in Bangladesh. Open discussion on how to make the scholarship program for the very poor meritorious students in Bangladesh as an on-going successful initiative.

f) Election of a Returning Officer.

g) General Election as per rules of the Constitution and the declaration of the elected new Office Bearers for the financial year 2014-2016 by the Returning Officer.

h) Miscellaneous matters.

i) Closing the Annual General Meeting by the elected new President.

Rafiq Hasan, General Secretary, Grameen Support Group Australia Inc
Phone: 02 8883 5399; 0412 756 703. Email: rafiqhasan@bigpond.com

Nazrul Islam, President, Grameen Support Group Australia Inc.
Phone: 02 9670 2745; 0421 594 332. Email: nazrul.islam08@gmail.com


November 21, 2014.





Published on: 30-Nov-2014


BD gold Cup
Important events in November


23 November 2014: BD Gold Cup nominated children will carry the flag of Bangladesh on 23/11/14 at SCG before the start of the ODI between Australia Vs South Africa . Please watch Channel 9 starting from 1.00pm.

BD Gold Cup representatives has been invited by the Chairman of the Board of Cricket NSW to join him at Steve Waugh Room at SCG. on 23/11/2014 to witness the ODI and march past.

30 November 2014: We invite you, your team members, family, friends, next door neighbors, office colleagues to come to Mona Park Oval, Mona Road, Auburn to witness the semi final between Assassin, BD Gold Cup team to fight for a final place in the Money Gram Thunder Nation League. We are expecting their opponent teams to have a good crowd so we have to be there to cheer and encourage Assassin to play hard. Captain of Assassin expressed his confidence that they will be in the winning mode, now all they need is a big crowd. Hope we can come in big groups.

More cricketing events are coming up and BD gold Cup hopes to make a mark in the formation of Mosaic cricket. Details to be revealed soon.

- Nasim Samad






Published on: 22-Nov-2014


Bangladeshi migrants eke out a
living in Rome
- Al Jazeera report


Published on: 19-Nov-2014




আনিসুর রহমান
Published on: 10-Nov-2014


Dr Yunus:
The One Who Can Change the World

Aurpan Kar


Business is usually portrayed as a means to make money. However, this does not mean that businesses are filthy, money-generating pigs. What people don't see, is that business is a way to bring peace to society. This is the message that stuck with me from a speech I attended during my school holidays...

On the 11th of October 2014, my brother, father and I attended a public speech on social business, presented by Professor Dr Yunus, a Nobel Laureate. It was held at the Sir Robert Blackwood Hall, Monash University, Melbourne.

Dr Yunus gave a very inspirational speech about how he got to his position now from when he was in a rural village in Bangladesh, where he saw kids suffering from night blindness. He met a doctor and asked the cause of night blindness and if there was a cure. The doctor said there was a cure, well two cures. You could either give the child Vitamin A tablets regularly, or get the child to eat lots of vegetables. Dr Yunus was against the thought of giving kids medication, and that certain tablets could possibly be fake.

Therefore, he resorted to the second option which was vegetables. He went all around Bangladesh encouraging rural families to grow and eat their own vegetables. But when he first started, the families could not grow their own crops as they did not have any seeds. At that moment, Yunus' seed business idea sparked. Why not provide the families with the seeds required to grow their own crops?

Another success story I heard was about Yunus' solar electricity project. He was looking for a new business opportunity when he stumbled upon solar electricity. He was trying to sell solar panels, but no one believed the fact that you could harness the power of the sun in the form of electricity. However, when one person bought it, their neighbours asked themselves 'if they can have a solar system, why can't we?' This way, he was starting to sell 10 to 15 solar systems a day. Now, at the course of 17 years, their company has sold more than a million solar units. Their expectation is 3 million over the next three years.

Another story he talked about was the one about sanitary toilets as Dr Yunus noticed that it was a major health problem in the rural Bangladesh. So Dr Yunus made a rule where if people needed a loan they had to dig a hole first. 'No hole, no loan'. Once the person had finished digging their hole, they got the loan to set up the 'toilet'.

What inspired me most is that the majority of Yunus' profits goes to the business itself and the rural people are a part of this business. So, when the business expands, the poor people get the benefits. It inspired me because this is unlike most corporal executives who keep all the money for themselves, Yunus gives the money to the members who matter most to him.

This speech also gave me an opportunity to learn about the 'traditional employment system', which theoretical acts like a sucking 'machine'. This 'machine' sucks a whole bunch of job-seekers from the bottom, and spits out only the luckiest ones on the top. The people stuck at the bottom are jobless and miserable, on the other hand, the people on the top are making an income without even having to do anything. Yunus mentioned that this system is leaving billions of people jobless around the world. This system, in his opinion, is punishing the unemployed. Yunus wants to break this gruelling system by introducing the social business.

Social business will create opportunities for those who have been punished by the system, to fight back. Basically, using the social business, a bright, imaginative and young job-seeker will turn into a clever, convenient and successful job-creator.

His speech made me think, is this the man who can change the face of the world?





Published on: 9-Nov-2014


Focusing People's Architecture
An international conference and exhibition in Canberra and Sydney organised by Bangladeshi Architects in Australia (BaA) in association with the Australian Institute of Architects (AIA) NSW.


Published on: 5-Nov-2014




Published on: 27-Oct-2014


সুন্দর ফন্টের জন্য SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন...

Made in Universe
মাসুদ পারভেজ

ওয়াশিংটন পোস্টে কয়েকদিন আগে পড়েছিলাম "পৃথিবীর চার-ভাগের-তিন-ভাগ হ্যাজেলনাটের উৎপাদনকারী দেশ তুরস্কে এ'বছর খারাপ আবহাওয়ার কারণে হ্যাজেলনাটের উৎপাদন অন্য বছরের তুলনায় ৩০% কম হয়েছে। আর এর ফলে আন্তর্জাতিক বাজারে চাহিদার তুলনায় সরবরাহ কম হওয়ায় হ্যাজেলনাটের দাম গত বছরের তুলনায় ৬০শতাংশ বেশী। হ্যাজেলনাটের উচ্চ মূল্যের প্রভাবে পৃথিবীর বড় বড় চকলেট উৎপাদনকারী কোম্পানিসহ নাটেলা (Nutella) মেকার - Ferrero গ্রুপ এ'বছর তাদের হ্যাজেলনাট সমৃদ্ধ প্রোডাক্টের মূল্য বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে"।

Ferro গ্রুপের হেডকোয়ার্টার ইতালিতে হলেও প্রায় সব মহাদেশে তাদের কারখানা রয়েছে - যেখানে তৈরি হয় বিভিন্ন ধরনের প্রোডাক্ট যার ইনগ্রেডিয়েন্ট এবং র'মেটেরিয়াল তারা সংগ্রহ করে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে। যেমন ধরা যাক - বাচ্চাদের প্রিয় নাটেলা ব্রান্ডের ৭৫০গ্রামের এক জার তৈরিতে ১০০গ্রাম হ্যাজেলনাটের প্রয়োজনে Ferro গ্রুপ পৃথিবীর উৎপাদনের প্রায় ২৫শতাংশ হ্যাজেলনাট কিনে নেয় তুরস্ক থেকে, আর এই নাটের সাথে মালয়েশিয়ার পাম-অয়েল, নাইজেরিয়ার কোকো,…ইত্যাদি মিশিয়ে…প্যাকেজিং প্রোডাক্ট চায়না থেকে সংগ্রহ করে প্রতি বছর ২৫০,০০০টনেরও বেশি নাটেলা বিভিন্ন দেশের কারখানা থেকে তৈরি করে পৃথিবীর ৭৫টিরও বেশি দেশে বাজারজাত করছে।

১৭০বছর ধরে সুস্বাদু চকলেট তৈরি করে সারা পৃথিবীতে বিখ্যাত - সুইজারল্যান্ডের লিন্ট (Lint)। রং, স্বাদ এবং গন্ধে পৃথিবীর সেরা ওয়েস্ট আফ্রিকার ঘানার কোকো লিন্ট চকলেটের প্রধান উপকরণ। আর এই কোকো - ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের দুধ-চিনি, তুরস্কের হ্যাজেলনাট, আমেরিকার এলমন্ড,...ইত্যাদির সাথে মিশে তৈরি হয়…“মাস্টার চকলেটর সিনস ১৮৪৫”-এর লিন্ট চকলেট যা’ পৃথিবীর প্রায় সব দেশেই পাওয়া যায়।

উন্নত তথ্য-প্রযুক্তি, যোগাযোগ ব্যবস্থা, শিল্পায়নে বিনিয়োগ, প্রোডাক্ট স্ট্যান্ডার্ডাইজেশন, উন্মুক্ত বাজারনীতি, ক্রম-বর্ধিত ডিস্ট্রিবিউশন নেটওয়ার্ক, সময়োপযোগী রেগুলেটরি সিস্টেম,…ইত্যাদির অত্যাধুনিক ইন্টিগ্রেশনের ফলে বিশ্ব-বাণিজ্যে পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে, এক দেশের র'মেটেরিয়াল কিংবা ফিনিশড প্রোডাক্ট অন্য দেশে পৌঁছে যাচ্ছে। এক্সপোর্ট-ইম্পোর্টের সুফলতায় পণ্যের সহজলভ্যতার মাত্রা বহুগুণে বেড়েছে যা’ মানুষের চাহিদা, রুচি, ব্যবহার ইত্যাদিতে ব্যাপক পরিবর্তনের পাশাপাশি বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশে বিভিন্ন ইন্ডাস্ট্রিতে নতুন-নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করেছে। একইসাথে বিশ্বের বড় বড় কোম্পানিগুলি ব্যবসায়িক সাফল্যের জন্য তাদের ফিনিশড প্রোডাক্ট কিংবা সেবার খরচ কমাতে উন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে লেবার-মার্কেট তৈরি করছে যার ফলে অনশোর থেকে অফশোরে জব ট্রান্সফার হচ্ছে। গত একবছরে অস্ট্রেলিয়ার বড় বড় কোম্পানি – Qantas, Telstra, Optus, Big4 Bank…থেকে কত জব অফশোরে ট্রান্সফার হয়েছে তার সঠিক তথ্য Australian Bureau of Statistics দিতে পারবে।

হঠাৎ মনে হলো…গত বছরে ইউনিভার্সিটি থেকে গ্রাজুয়েট হওয়া সচ্ছল পরিবারের ডেভিডের গল্প। ১৮তম জন্মদিনে মায়ের কাছ থেকে উপহার পাওয়া এলার্ম ক্লকের (মেড ইন জাপান) আওয়াজে সকাল ৬টায় ডেভিড ঘুম থেকে উঠে, ইলেকট্রিক রেজারে (হংকং) শেভ করে, টুথপেষ্ষ্ট (থাইল্যান্ড) দিয়ে দাঁত মেজে, সাবান (ইন্দোনেশিয়া) দিয়ে গোসল করে, বাথ-টাওয়েলে গা মুছে (পাকিস্তান), টি-শার্ট (বাংলাদেশ) আর ট্রাউজার (ইন্ডিয়া) পরে অস্ট্রেলিয়ার লেবানিস ব্রেড, চীজ, বীফ, সবজি আর সস দিয়ে দু’মিনিটে স্যান্ডউইচ-প্রেসে (ভিয়েতনাম) wrap বানানোর মাঝে কফিমেকারে (কোরিয়া) ব্রাজিলের কফি-বীন দিয়ে ব্লাক-কফি বানিয়ে ঝটপট সকালের নাস্তা খেতে খেতে রেডিও (চায়না) অন করে “সানরাইজ” প্রোগ্রামের সর্বশেষ সংবাদ শুনে নেয়। নাস্তা শেষে প্লেট (আমেরিকা), গ্লাস-কাপ (থাইল্যান্ড), চামচ (চায়না) ধুয়ে, কম্পিউটার (চায়না) অন করে, কিবোর্ড (মালয়েশিয়া) আর মাউস (তাইওয়ান) চেপে ইন্টারনেটে প্রতিদিনের মতো আজও অস্ট্রেলিয়ান জব খুঁজতে শুরু করে ডেভিড। অনেক খোঁজাখুঁজির পরে নিজের রেসুমির সাথে সিলেকশন ক্রাইটেরিয়ার প্রায় সব মিলে যায় এমন এক জবের এডভারটাইজমেন্ট দেখে পজিসন-ডেসক্রিপশন সম্পর্কে আরো জানার জন্যে বিজ্ঞাপনে দেয়া ওয়ান এইট হানড্রেড টেলিফোন নাম্বারে ফোন করে ডেভিড। ওভারসিস কলসেন্টারের অপর-প্রান্ত থেকে ফিলিপিনো অ্যাকসেন্টের উত্তরে জেনে নেয় কাঙ্ক্ষিত পদের বিষদ বর্ণনা, এভাবে সকালের কয়েক ঘণ্টা জব খুঁজে বেশ ক্লান্ত হয়ে যায় ডেভিড। মনে পড়ে আজ কয়েকটি বিল পরিশোধের লাস্ট-ডেট। ইন্টারনেট ট্রান্সফার করার জন্য ব্যাংকের ওয়েব-পোর্টালে গিয়ে দেখে সিস্টেম ডাউন তাই আর কি করা...বিলের হার্ড-কপি নিয়ে ডেভিড পোস্টঅফিসে যাওয়ার আগে ক্যালকুলেটরে (তাইওয়ান) হিসাব করে নেয় আজ বিল দেয়া আর শপিংয়ের জন্য মোট কত ডলার লাগবে…ঘরের কাপড় চেঞ্জ করে, বিজনেস শার্ট (শ্রীলংকা), জিন্স (সিঙ্গাপুর), হাতঘড়ি(সুইস), জ্যাকেট (মেক্সিকো) আর জুতা (ইতালি) পরে, গ্যারেজ থেকে গাড়ি (জার্মানি) বের করে, গ্যাস-স্টেশনে গিয়ে গাড়িতে তেল (সৌদিআরব) নিয়ে, পোস্টঅফিস আর শপিং-সেন্টারের কাজ সেরে পড়ন্ত বিকেলে বাসায় ফেরে। জব-হান্টিংয়ের ডিসএপয়েন্টমেন্ট অনুভূতি আর সারাদিনের ক্লান্ত দেহে টেলিভিশন (ইন্দোনেশিয়া) ছেড়ে একটু বিশ্রাম করতে করতে ডেভিড ভাবছে….যেদেশে প্রধানমন্ত্রী born-ইন ওভারসিস, ইউনিভার্সিটিতে প্রতি তিনজনে একজন বিদেশী স্টুডেন্ট, আর চারিদিকে “মেড ইন ইউনিভার্সের” এতো পণ্যের ছড়াছড়ি - সেদেশে অস্ট্রেলিয়ানরা জব পাবে কিভাবে?…সত্যিই কি তাই? হয়তো কিছুটা সত্যি,..হয়তোবা একেবারেই নয়!!! তবে এটা সত্যি যে - সেপ্টেম্বর ২০১৪তে অস্ট্রেলিয়ার গত ১২বছরের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ৬.৪শতাংশ আনএমপ্লয়মেন্ট রেট পত্রিকার প্রথম পাতার শিরোনামে এসেছে। আর সত্যিই বা’ হবে না কেন? নিত্যদিন আমরা এদেশে যা’ কিনি কিংবা চারিদিকে যা’ দেখি তা’তো সবই বিদেশের তৈরি। এবোরিজিনালদের বাঁশ-কাঠের কিছু স্যুভেনির ও তাঁদের আর্ট-ওয়ার্ক, লোকাল মার্কেটের কিংবা শপিং-সেন্টারের শাক-সবজি, ফল-মূল, মাছ-মাংস, চীজ-দুধ সহ প্রায় সবধরনের খাদ্যদ্রব্য, আর কেমিস্ট-শপের ফিস-অয়েল সহ বেশির ভাগ ওষুধপত্র ছাড়া “অস্ট্রেলিয়ান মেড” জিনিসপত্র কোথায়? তবুও পরম শান্তি…বিষাক্ত ফরমালিনযুক্ত খাওয়া খেতে হয় না এদেশে!

ভেবেছিলাম আজ ছোট করে লিখবো, কিন্তু তা’ আর হলো না। ১৯৯৫ সালে আমার সহধর্মিণী এবং আমি হিরোশিমা পীস মেমোরিয়াল মিউজিয়াম দেখে জাপানের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর ওসাকাতে বাসায় ফেরার পথে হাতের বাড়তি সময় কাজে লাগনোর জন্য জাপানে আমাদের প্রিয় ডিপার্টমেন্ট স্টোর – Daimaru-তে ঢুকে পড়ি…অল্পসময়ে আমার সহধর্মিণী খুঁজে পায় তার জন্য পছন্দনীয় এক সুন্দর সোয়েটার…ঝটপট কিনে উঠে পড়ি বুলেট-স্পিড ট্রেন – সিনকানসেনে। হিরোশিমা থেকে ওসাকার ৩০০কিলোমিটারের দূরত্বকে এই ট্রেন ১০০মিনিটে আরামপ্রদ-ভাবে নিরাপদে পৌঁছে দিচ্ছে। ট্রেনে উঠে প্যাকেট খুলে আমার সহধর্মিণী তার সদ্য কেনা সোয়েটার দেথতে থাকে আর ভীষণ আশ্চর্য হয়ে আমাকে দেখায় সোয়েটারের ট্যাগে লেখা “মেড ইন বাংলাদেশ”...দুজনের মনটা ভরে যায় আনন্দে। টোকিও থেকে ১৯৯৯সালে সিডনিতে প্রথম বেড়াতে এসে ডেভিডজোন্সে গোল্ডেন বর্ডার দেয়া আকর্ষণীয় ডিজাইনের নিখুঁত কাজের ডিনার সেটের পেছনে “মুন্নু সিরামিক-মেড ইন বাংলাদেশ” লেখা দেখে খুশীতে আত্মহারা হয়েছিলাম। ২০০১সালে নিউইয়র্কে টুইন-টাওয়ার ধ্বংসের আগে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে এক হস্তশিল্প সামগ্রীর বিশাল দোকানে বিদেশী ক্রেতাদের কাছে বাংলাদেশের নকশীকাঁথার বিপুল চাহিদা দেখে অভিভূত হয়েছি…সেসময়ে লস এঞ্জেলসের ওয়ালমার্ট থেকে কেনা বাংলাদেশের তৈরি Van Heusen ব্র্যান্ডের শার্টের কোয়ালিটিতে মুগ্ধ হয়েছি। ২০০৫সালে সিউল এয়ারপোর্টের ডিউটি-ফ্রি শপে বাংলাদেশের তৈরি উন্নতমানের দামী লেদার জুতা, ২০০৯সালে সিঙ্গাপুরে মোস্তফা ডিপার্টমেন্ট স্টোরে “কাজী পেয়ারা–Product of Bangladesh”, ২০১৩সালে বেইজিংয়ের ওয়াংফুজিয়ান ডিপার্টমেন্ট স্টোরে বাংলাদেশের তৈরি লেদার জ্যাকেট বিক্রি হতে দেখে আনন্দে আপ্লুত হয়েছি। বিদেশে যখন যেখানে বাংলাদেশের পণ্য দেখেছি কিংবা কিনেছি, মনের অজান্তেই বলে উঠেছি - "বাংলাদেশের পণ্য কিনে হও ধন্য"।

এক দেশের এক্সপোর্ট অন্য দেশের ইম্পোর্ট…এটাইতো বিশ্ব বাণিজ্য। মাইগ্রেশনের সুফলও এনেছে ব্যবসা-বাণিজ্যে, রপ্তানি-মুখী শিল্পে, দেশে-বিদেশে নতুন-নতুন কর্মসংস্থানের। আর সেজন্যই তো’ ১৫বছর আগে আমার দেখা সিডনির লাকেম্বাতে যেখানে একটিমাত্র বাংলাদেশী গ্রোসারী দোকান ছিলো সেখানে আজ অন্তত: ১৫টি বাংলাদেশী দোকান-রেস্টুরেন্ট অনেক মাল্টি-ন্যাশনাল দোকানের সাথে প্রতিযোগিতায় হরেক রকম বাংলাদেশী পণ্য সাজিয়ে মানুষের চাহিদা মেটাচ্ছে।

ডেভিডের গল্প নিতান্তই কাল্পনিক, বাস্তবের সঙ্গে নামের, চরিত্রের কিংবা পণ্যের মিল নিছক কাকতালীয়,…এর সাথে হয়তো বাস্তবের মিলের চেয়ে অমিলই বেশী…তবুও “মেড ইন ইউনিভার্সের” আন্তর্জাতিক পণ্য আস্থা, নির্ভরতা আর সুনামের সাথে ছড়িয়ে রয়েছে দেশে দেশে…মহাদেশে…

mmparvez@yahoo.com
সিডনী - ২৯/১০/২০১৪





Published on: 30-Oct-2014


সুন্দর ফন্টের জন্য SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন...

বাংলাদেশ ইসলামিক সেন্টার অব নিউ সাউথ ওয়েলস (বিআইসি ) এর নির্বাচন সম্পন্ন


গত ১৯ অক্টোবর, ২০১৪ রোজ রবিবার লাকেম্বার পেরি পার্কের অস্ট্রলিয়ান ন্যাশনাল স্পোর্টস ক্লাবে বাংলাদেশ ইসলামিক সেন্টারের (বিআইসি) নির্বাচন সম্পন্ন হয়। নিউ সাউথওয়েলস ল সোসাইটি থেকে সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ রিটার্নিং অফিসার ডেভিড স্যাক্স এর তত্বাবধানে সকাল ১০ টা থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত এই নির্বাচন পরিচালিত হয়।

বিকেল ৫টার পর যথাযথ নিয়ম অনুযায়ী নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করেন ডেভিড স্যাক্স। জনাব ইমামুল হক বিআইসি’র সভাপতি ও জনাব আরিফ রহমান সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন এবং তাঁরা সহ ১৫ জনের একটি কার্যকরী কমিটির রূপরেখা ঘোষণা করেন রিটার্নিং অফিসার ডেভিড।

উপস্থিত বাংলাদেশী কমিউনিটির গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর স্বতঃস্ফূর্তভাবে সবার পক্ষ থেকে নব নির্বাচিত কমিটির সুন্দর ভবিষ্যত কামনা করেন এবং এই নব্য গঠিত কমিটির সফলতা কামনা করে দোয়া করেন সারিহিলস মসজিদের সাবেক সভাপতি জনাব হারুন উর রশিদ।

ধারাবাকিক মামলায় জর্জরিত মৃত প্রায় এ সংগঠনটিকে অনাগত দিনগুলোতে সাবলীল গতিতে পরিচালনার উদ্দেশ্যে যেকোন গঠনমূলক পরামর্শ সানন্দে গ্রহণ করতে প্রস্তুত এই নব নির্বাচিত কমিটি। এই আশাবাদ ব্যক্ত করে কমিউনিটির সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন বিআইসি’র নব্য গঠিত এই কার্যকরী পরিষদ।

এখন থেকে এই কার্যকরী পরিষদের নিয়মিত কর্মসূচি বিআইসির ওয়েব সাইটের (www.bangladeshislamiccentre.org) মাধ্যমে কমিউনিটির সবাই অবহিত হতে পারবেন।



বাংলাদেশ ইসলামিক সেন্টারের (বিআইসি) প্রচার ও প্রকাশনা সেল থেকে প্রচারিত ও প্রকাশিত।
যোগাযোগ :০৪১৩ ৫৮৫ ৯১২, ০৪৩২ ৭৫২ ৪৭৪







Published on: 28-Oct-2014






Published on: 27-Oct-2014


Human traffickers prey on
poor Bangladeshis
...Aljazeera report...


Published on: 26-Oct-2014


Memories of Durga Puja
Dr. Fakrul Alam

The very first time I heard Shah Abdul Karim’s heart-stirring song, “Age Ki Shundor Din Kataitam” I was transported to my childhood years in Dhaka‘s Ramkrishna Mission Road and the Durga Puja days we used to revel in then. Karim remembers lyrically “how happily” he and other village youths would spend their childhood days, “Hindus and Muslims, singing Baul and Ghetu songs all together!” He goes on to narrate how he and his friends would listen to Ghazi, Baul and Ghetu songs during the monsoons as they raced their boats or watch jatras being staged in Hindu households and how politics and religion would never come in the way. He concludes wistfully: “I keep thinking: we'll never be happy like then. Though I once believed happiness was forever. Day by day things get worse and worse. Which path will distraught Karim now follow?”

Karim’s song always strikes a responsive note in my heart because I too recall how joyously my friends— whether Muslim or Hindu— and my family members would spend the Puja days every year in our Ramkrishna Mission Road para or neighborhood. Although my memories of those days have dimmed considerably by now one thing I still remember clearly is this: after the two Eids, Durga Puja was the most important festival to light up our young lives then. Alas, those days are gone, not only for me, but for most people growing up in a para in Dhaka: the pernicious mixture of parochial politics and religious fundamentalism that led to Partition, 1971, all subsequent riots and clashes and the endemic violence we live through have ensured that the kind of atmosphere we once used to breathe have been disappearing from the whole region (and not only our country) steadily.

One explanation for the spontaneity with which we would participate in the Ramkrishna Mission Puja festivities is demography. Our para consisted mostly of Muslims but also of not a few Hindus; our nearest neighbors, for instance, were two Hindu families. True, the events leading to Partition had created a divide of sorts between people speaking the same language but belonging to different religions and yet on most occasions we interacted freely with each other. Every day we would hear the ululations linked to prayers in our Hindu neighbor’s house just as they would listen to the azan drift into their homes five times a day from our neighborhood mosques (sans loudspeakers!) summoning the faithful to join the congregation. On puja days they would send us prasads and we too would share sweets our mothers would cook for our religious festivals with them. Pakistan was very much a state built around one religion, but do I deceive myself or were ordinary people much more secular and much less bigoted then?

Another reason for the ease with which we moved in and out of Ramkrishna Mission stemmed no doubt from the attitudes of the people who directed Ramkrishna Mission. Much like the Catholic American missionaries who ran the school and college where I would get my basic education, the saffron-clad men of this mission were always tolerant of para children irrespective of their religion. We were allowed to play football in the Mission field, bathe in its pond for hours, pick the bokul flowers from its trees or while they were strewn in the shades, chat for hours on its lawn, or read in its Reading Room. Occasionally one of the missionaries who would spend most of their time meditating or leading prayers for Hindus would even drop in for a chat with my parents, both devout Muslims but very pleased to have our “others” in our midst. Sure, there were limits even then, for we would not go inside Hindu prayer rooms and our Hindu friends would never disturb us during our prayer times, but open-mindedness and forbearance ensured that most of the spaces we lived in our community were shared ones.

In any case, Durga Puja in Ramkrishna Mission was the most memorable experience of another religion I have ever had. The moment we would hear the tak dum tak dum of the drums pervade the spaces of our neighborhood in the mostly warm but occasionally hot and humid end-autumnal days full of fleecy clouds in nearly –always blue skies our hearts would flutter. Those thrumming, magical beats announced unmistakably that the time for another fun-filled Saradiya Puja week had come! The dhakkis or drummers, I do believe, were our Pied Pipers, for we would sprint like the spellbound children of Hamlin then to the open field in front of the Mission Prayer hall the moment we heard them. We would find them there pounding away on their drums, swaying and smiling and showing off their skills on those ponderous-seeming but colorfully decorated and deep-echoing dhols !

The whole of Ramkrishna Mission became a spectacle of sights, smells and sounds for the next few days. No matter where or when we went to the Mission during the festival season we would experience a riot of colors, a medley of sounds, and a range of flavors that made the Durga Puja days unforgettable. Durga Puja in Ramkrishna Mission was truly in the carnivalesque mode, for there was an unmistakable mela or fair-like quality to it. Hindu men and women would come dressed in their fineries, the married women glowing because of their vermilion smeared-foreheads and multi-colored saris, the men looking happy and yet self-conscious in their bright but heavily-starched new dhotis and the children beaming and giggling because of anything and everything. We too would dress up for the occasion because whether Hindu or Muslim this was an occasion to meet people, mingle, chat, display and (for the boys) ogle. The sound of the drums would merge with the tinkle of mandiras, the chiming of bells, the unique note coming from conch shells, the ululation of women, the chanting of the mysterious but solemn-sounding Sanskrit prayers and the incessant chatter of not quite focused devotees. Indeed, there was a constant buzz in the Mission compound everyday from mid morning till late in the evening. In the Mission field hawkers would sell hot and spiced-up pickles and chutneys, delectable sweet and/or sour savories and flavored and syrupy drinks. At times the missionaries and volunteers would serve watery but delicious labra khichuri to anyone who cared to line up and eat from the plantain leaves. The smell of the different food items sold throughout the day would blend with the smoke and scent of the ceremonial dhups or incense lighted for the occasion. The press of the crowd, the feeling of excitement exuded by the people who sat to watch events or wander from place to place and the assorted Bangla dialects heard all around us created a matchless mix. But of course Puja was mainly a holy occasion for the Hindus of the city. While we Muslim children did not understand a lot of what went on and were often mystified by the seemingly endless cycle of rituals, there was much to keep us absorbed in at least a few of the religious events. At the centre of the Puja, undoubtedly, were the idols built for the occasion. They are traditionally unveiled on the sixth day and placed on a pandal, a temporary structure erected for the veneration of the goddess Durga. Even if we did not know the import of all that we saw who could not but be overwhelmed by the centerpiece, the resplendent goddess, ten weapons in her ten hands, a benign smile on her face, glowing in light golden colors, draped in a flaming red sari, standing on her lion mount, taming the demon Mahisasur? Also awe-inspiring were the attendant deities (how “filmy” are the idols made now!). We were captivated by the welcoming melodies of agamoni and intrigued by the chandipat or reading from the Hindu scriptures. Day and night we were enthralled by the rituals of anjali as the deity was offered flowers and prayers. For most of us one of the more fascinating moments of Durga Puja came on the ninth day, when a little girl was made the kumari, symbol of pristine beauty. But the climactic event was the immersion of the deity in the Mission pond on the tenth day. From the morning of this day we would witness intense activity. First, devotees would begin preparations to move the deity, then the pandal would be carried to the pond to the sound of ululations and finally the Durga would be immersed in the pond water to chants affirming her victory and predicting her triumphant return the next year.

The Durga Puja days mesmerized all of us in the para in many other ways. For instance, the dhaakis seemed to punctuate the days and nights of the Puja week with aarati or ritual dances, gyrating and drumming with abandon and delighting us children. In the evenings kirtans or devotional songs absorbed older people who were content to muse to musical tunes even in the middle of a crowd. But what fascinated most people young or old was the jatra that was staged in any one of these evenings. Like the morality plays that I would read about later in my English Studies when studying the history of the theater of Elizabethan England, this folk genre had angels and demons, characters like Vice and Conscience, music and dance, pathos and farce. In short, it was made out of a recipe guaranteed to please. Its plot, typically taken from an episode of a Hindu epic, was of the kind that would keep children as well as adults spellbound.

All in all, Durga Puja was a truly enthralling and synaesthetic experience; no wonder our senses were satiated by the end of the Puja week! The most important thing, I now realize, was that for nearly a week our para came alive and we had become part of a carnival that had gone on for days. And in the process our neighborhood had managed to come somewhat closer, for this was one religious occasion where differences were overcome to a great extent.

In 1967 my family moved from Ramkrishna Mission Road to another part of Dhaka and I have never been to another Durga Puja held there since then. But by 1965, a change had already come over our para. The India-Pakistan war that erupted in the middle of the year widened the rift created by partition, a rift that seemed to have been bridged to a great extent in a neighborhood like the one we lived in. A few of our Hindu neighbors left for India after the war. The rest, I know from subsequent visits, have migrated to India over the decades. The Ramkrishna Mission Puja, I hear, is still a huge event, but I doubt very much if the whole neighborhood comes alive during puja week like it used to when I was there.

Will coming generations in our part of the world ever rediscover the joy that comes from knowing that despite different beliefs, people can participate spontaneously in each other’s festivals and even delight in them fully? In 1985, after six years spent in Canada, I remember walking past a Durga puja pandal in Khulna with a nephew. I asked him, “Have you ever gone inside and enjoyed the puja festivities?” “No” he said, “there is a smell that comes from the dhup that they use that I can’t stand. Besides, we aren’t supposed to!” It was a moment that first made me realize that the dream of a secular, tolerant, humane Bangladesh had received a jolt in the years that I had been away. Subsequent events have been even more upsetting for those of us who believe in the values encapsulated in that part of our original (1972) constitution that was later “amended”. It is thus that Shah Abdul Karim’s song has so much resonance for me that every time I hear it I keep thinking of the Durga Puja celebrations in Ramkrishna Mission that I had been part of once upon a time: “How happily once we village youths would spend our days, Hindus and Muslims…. “I keep thinking: we'll never be happy like then. Though I once believed happiness was forever... Day by day things get worse and worse”.







Published on: 18-Oct-2014


Education minister of Bangladesh
Nurul Islam Nahid welcomed to Sydney


In an official tour the Education Minister of Bangladesh Mr Nurul Islam Nahid, leading a three-member delegation team, arrived in Australia on September 29, 2014.

The Jalalabad Association of New South Wales Inc. along with the Awami league Australia jointly held a reception in his honour in Sydney, Australia on the 1st of October 2014.


Jalalabad association Vice President (Nanu Miah) and the Organization secretary (Jillur Rahman) welcoming Mr. Nurul Islam Nahid.




The minister discussed about the key issues of Bangladesh in the education sector. He emphasized on improving education and strategies in place to make sure Bangladesh prospers into the twenty first century. He said Australia will offer scholarships to young teachers of Bangladeshi universities to gain training in Australia to improve Bangladeshi education standards to that of the western countries.

Members of Jalalabad Association thanked the minister for joining them for dinner and wished him a safe journey back home.


Members of Jalalabad Association







Published on: 15-Oct-2014






Published on: 8-Oct-2014


Prof Yunus is in Australia
Nobel Laureate Prof Muhammad Yunus has arrived in Australia this morning to deliver key note speech at Focusing People's Architecture, an international conference and exhibition in Canberra and Sydney organised by Bangladeshi Architects in Australia (BaA)...Details...


Published on: 7-Oct-2014


Bangladeshi Architects in Australia (BaA)
Prof Mohammad Yunus is in Australia



Nobel Laureate Professor Muhammad Yunus has arrived in Australia this morning to deliver key note speech at Focusing People's Architecture, an international conference and exhibition in Canberra and Sydney organised by Bangladeshi Architects in Australia (BaA) in association with the Australian Institute of Architects (AIA) NSW. He will also inaugurate a Yunus Centre at the Monash University in Melbourne on 12th of October.

During his visit Professor Yunus will meet with the Federal Minister for Social Services, Parliamentary Secretary for the Minister for Social Services representing the Australian Prime Minister and Senior Australian Government Bureaucrats to share policy advice. He will also meet with senior executives from Australian corporate sectors and leading universities to share his thoughts, philosophies and way forward for his unique concepts on microfinance and social business to assist people to move beyond welfare dependency, to build long term financial and social capability.

Professor Yunus will have exclusive sessions with the Bangladeshi Architects in Australia and the Australian Institute of Architects.

Focusing People's Architecture is a continuation of the ongoing series of seminars and exhibitions in Australia hosted by the BaA and AIA over last five years.

The BaA with the spirit of "thinking outside the traditional mindset" plans to launch two flagship projects during this visit of Professor Yunus:
1. Social Business and Affordable Housing in Bangladesh; and
2. Housing Guide to Complement Cultural Capital in Australia.

For more information please contact Rumana Jamaly, Member, Bangladeshi Architects in Australia (BaA) on rumanajamaly@gmail.com.





Published on: 7-Oct-2014



Bangladesh Australia United Society

Blacktown-hills Islamic Centre,Quakers Hills

Eastern Sydney Islamic Welfare Services

Parramatta Islamic Centre


Published on: 2-Oct-2014



Bangladesh Society for Puja and Culture
Australian Bengali Hindu Association
Sydney Utshab
Vakta Mandir Sydney


Published on: 12-Sep-2014


SHATTERED
DREAMS


Bangladeshi students travel to the UK in hope of a prestigious education only to find the reality is quite different       Courtesy of Al Jazeera
Published on: 24-Sep-2014


সুন্দর ফন্টের জন্য SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন...

বাওয়া'র বর্ণাঢ্য আয়োজনে মুগ্ধ পার্থবাসী
আরিফুর রহমান খাদেম

গত ৬ই সেপ্টেম্বর ২০১৪ ছিল বাওয়া'র (Bangladesh-Australia Association of Western Australia) জীবনের এক স্মরণীয় রাত। বাংলা সংস্কৃতি বা বাংলাদেশকে মনে ধারণ করার রাত। পার্থবাসীর মতে, বিভিন্ন বয়সের রংবেরঙের দেশীয় সাজসজ্জায় ৬০ - ৭০ জন স্থানীয় শিল্পীদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে দেশীয় সংস্কৃতির এত বড় বর্ণাঢ্য আয়োজন তারা অতীতে উপভোগ করেনি। এটা ছিল বাওয়ার ৩২তম বার্ষিক আয়োজন। প্রায় সাড়ে তিন ঘন্টাব্যাপী পার্থের এক স্থানীয় থিয়েটারে প্রায় ৭০০ দেশি বিদেশি দর্শকদের হাস্যোজ্জল উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মত। পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী মন্ত্রী, এমপি, সরকারী কর্মকর্তা ও কিছু বিদেশী নাগরিকের উপস্থিতিও পুরো অনুষ্ঠানকে অলংকৃত করে। তাছাড়া, বাওয়ার এ অসাধারণ আয়োজনকে স্বীকৃতি দিতে সম্প্রতি পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার পার্লাম্যান্টে অনুষ্ঠানটির বিভিন্ন দিক, বাংলাদেশের কৃষ্টি, ঐতিহ্য ও কালচার নিয়ে এক বিশেষ আলোচনা হয়, যা নিঃসন্দেহে বিশ্বের দরবারে দেশের ভাবমূর্তিকে প্রজ্বলিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই পার্থে বেড়ে উঠা ছোট্ট সোনামণিদের কণ্ঠে অত্যন্ত নিখুঁতভাবে ধ্বনিত হওয়া বিশ্বকবির লেখা আমাদের সকলের প্রিয় জাতীয় সঙ্গীত 'আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি' হল ভর্তি দর্শকদের মনকে এক অনাবিল আবেগের খাঁচায় বন্দী করে দেয়। শিশুরা তাদের সুরেলা কণ্ঠে অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় সঙ্গীতও পরিবেশন করে। নিজ চোখে না দেখলে কেউ বিশ্বাসই করবে না যে এ শিশুদের জন্ম বাংলাদেশের বাইরে হয়েছে। জাতীয় সঙ্গীতের পরপরই বাওয়ার সভাপতি প্রফেসর রুহুল সেলিম, প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিরা বক্তব্য রাখেন। বক্তব্যের পরপরই শুরু হয় একের পর এক সব মজার ঘটনা।

পর্যায়ক্রমে স্থানীয় শিল্পীদের অংশগ্রহণে হারানো দিনের দেশাত্মবোধক ও জনপ্রিয় গান, নাচ, নৃত্য সহ সমসাময়িক বিভিন্ন বিষয়ের উপর বাস্তবভিত্তিক মজার মজার নাটিকা দর্শকদের হৃদয়কে গভীরভাবে স্পর্শ করে, যা পার্থবাসী আজীবন মনে রাখবে। পুরো সন্ধ্যায় কিছুটা ভিন্নতা বা বৈচিত্র্য আনতে এবং ভিন্ন সংস্কৃতিকে সম্মান প্রদর্শন পূর্বক অনুষ্ঠানে আরও স্থান পায় স্বস্ব দেশীয় সাজে সজ্জিত ভারতীয়, নেপালি ও ল্যাটিন আমেরিকান গান ও নৃত্য। ছোটবড় প্রতিটি শিল্পীর নিখুঁত কারুকাজ, পোশাক, অঙ্গভঙ্গি ও অভিনয় দর্শকদের প্রতিটি মুহূর্তকেই আনন্দে মাতিয়ে রাখে। এমনকি কেউ কেউ হাসতে হাসতে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। অস্ট্রেলিয়ার এত কর্মব্যস্ত জীবনের ভিতরে থেকেও শিল্পীরা তাদের অভিনয় প্রতিভা ও দক্ষতা বিভিন্ন কৌতুক সম্বলিত সংলাপের মাধ্যমে এমনভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন, যা বাংলাদেশের অনেক পেশাদার নাট্যাভিনেতাদেরও হার মানাবে। তন্মধ্যে উল্লেখযোগ্য নাটিকাগুলো ছিল সম্প্রতি অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপ ফুটবলের উপর বাংলাদেশি সমর্থকদের মধ্যে তীব্র বাকযুদ্ধ, কাতার ফেরত সোলেমানের বিয়ে করার খায়েস, অস্ট্রেলিয়ায় আসা নবীন ছাত্রদের জীবন-যুদ্ধ এবং প্রবাসে থাকা কিছু প্রবীণ ও নবীনদের দেশ নিয়ে স্মৃতিচারণ ইত্যাদি ইত্যাদি।

টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া পর্যন্ত বাংলাদেশের অভ্যন্তরের বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থান, ঘটনাবলি ও বিষয়াদির উপর নানা রকম প্রামাণ্যচিত্রও স্থান পায় এ বিশেষ সন্ধ্যায়। প্রযুক্তির আশীর্বাদে প্রোজেক্টর ও মাল্টিমিডিয়ার সফল ব্যবহারও দর্শকদের বেশ আকর্ষণ করে। বিশেষকরে স্টেজ পার্ফরম্যান্সের পাশাপাশি ও প্রাসঙ্গিক ঘটনাবলির উপর ভিত্তি করে ব্যাকগ্রাউন্ডে বাংলাদেশ এবং অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন প্রান্তের নয়নাভিরাম দৃশ্যগুলো দেখে কিছুক্ষণের জন্য হলেও মনে হয়েছে সবাই বুঝি স্বদেশেই আছি। অনুষ্ঠানে র্যা্ফল্ ড্রয়ের মাধ্যমে দর্শকদের জন্য বেশ কিছু আকর্ষণীয় পুরস্কারেরও আয়োজন করা হয়। আয়োজকরা তাদের এ নিখুঁত কারুকাজ ও উদ্যোগের জন্য সত্যিই প্রশংসার দাবিদার।




arifurk2004@yahoo.com.au





Published on: 16-Sep-2014


90° North (Part 3)
My trip to the top of the World
Azam Chowdhury


Story of a Bangladeshi man who stood on the North Pole!


Published on: 15-Sep-2014


90° North
My trip to the top of the World

Azam Chowdhury



< Part 2
PART 3

I can feel the excitement is building up inside me. I am sure it is going to be the most exciting moment of the trip. Less than 400 people each year are lucky enough to get this opportunity. Thinking I am one of them, made me very proud. All day we were waiting for that moment to reach our final destination. There was a competition about who can predict the exact time of arrival at 90° N. As sea ice constantly changes its thickness, on top of that arctic fog is another natural phenomenon. The ship’s captain personally took control of the navigation zigzagging through the pack ice. As there is no fixed speed at which an icebreaker can break pack ice, it was very difficult to predict what time the ship will reach North Pole. At 10 a.m. in the morning I predicted we will reach North Pole at 8:30 p.m. But around 3:30 p.m. our ship encountered very thick ice. As a result the captain had to stop the ship for 4 hours to prepare the ship to break through the thicker ice. We passed through the thick ice without any major drama, except this time we felt like we were inside a giant rock crusher. The ship was rolling from side to side and up and down. The dining room was in a real mess. Then our expedition leader announced that we have encountered very thick and hard ice and advised us to hang on to the railing when walking around the ship. Then at 11:45 pm the expedition leader announced that we were very close to the North Pole. We all jumped up from our beds, quickly put on warm clothes and went to the bow deck. It was very windy and cold. With the excitement of reaching the North Pole, the wind and cold didn’t bother us at all. We were anxiously waiting for that wonderful moment.






GPS Reading showing 90 deg North

The exact point of 90° N was in the middle of a pressure ridge. As a result the captain was trying hard to manoeuver the ship to the exact point. But thick ice kept pushing our ship slightly away from the 90°N. To get to the exact point the captain was backing the ship 400/500 m and kept trying to get to the exact 90° North. It was such an exciting moment. After a few more tries finally exactly at 45 minutes past midnight, 25 July 2012 the captain blow the ships loud horn which indicated that we were at 90°N point. We were all waiting on the front deck for this moment. Everybody was yelling and shouting, doing high 5 with the person next to him. What a moment that was, knowing I am one of those few lucky ones who managed to reach 90° N (top of the world).


Bangladeshi flag raised on the North Pole

It was really an unforgettable moment thinking I was now standing on top of the world. When we were celebrating our achievement, our expedition leader gave us a bit of bad news that due to the thickness of the sea ice and unstable nature of the pressure ridge at 90°N, it was too dangerous to walk around there and our ship was not be able to drop anchor there. The captain was going to look for a suitable place to drop anchor around 90° N. We were slightly disappointed but considering the safety of the expedition team members we didn’t mind that at all. The icebreaker carries two 700 tons anchors and the ice has to be thick and strong enough to carry that load. Finally the captain found a suitable ice shelf not very far from 90° N, strong enough to drop the anchor and flat enough so that all the expedition team members can land on the ice, walk around and have a BBQ party. We spent almost all day at 90°N. As tradition goes, the ships crew made a large hole on the ice so that some crazy enough people could go for a skinny dip in the icy cold water of the North Pole. I was tempted to have a go, but since I left Dhaka, my sinus was playing up and I had constant runny nose. Thinking of the future activities I decided not to try the plunge. The captain warned us that according to the measurements, the seawater is extremely cold, so it would not be a good idea to have a skinny dip in that icy cold water. Some of the vital organs of the body might get frozen. So the people, planning to have a skinny dip got the message and decided to wear at least under garments.


Praying before plunging in Icy Cold Water


There were about ten people who did the plunge. Except two persons, no one could stay more than 30 seconds in the water and after that they were pulled out of the water by the ships crews on standby.

In the afternoon around 4 p.m. we set sail south on our way back to Murmansk via Franz Joseph Lands. Before we left the North Pole, our expedition leader dropped a Time Capsule to the bottom of the Arctic Ocean in which we were told to put our business card or any message we liked to put. As I didn’t have my business card, I found my daughter’s business card, wrote my name on the back, and put that in the Time Capsule. Who knows, may be after 500 years someone will recover that time capsule from the bottom of the Arctic Ocean and would know, Nazmul Chowdhury was here on July 25, 2012 and he did not have his business card with him, so he wrote his name on the back of his daughter, Anita Chowdhury’s business card instead.


Putting the business cards in the Time Capsule

On our way back from the North Pole, the expedition leader Jan announced that we were going back through Franz Joseph Lands and, weather permitting, we were trying to transfer everyone on to the Table Top Mountain by helicopter. We would also be able to see some beautiful sea birds nesting on the rock ledge near Franz Joseph Lands.

We were really very excited. When it was my turn to board the helicopter, one of the jokers in the group said “don’t worry Naz, if the chopper crushed in that icy cold water you will survive only 3 minutes, then it will be all over. You wouldn’t feel a thing. I turned around and told him who said I was worried, in fact that was what I wanted – a quick death. He laughed.

Jan was right, the view from the top of the Table Top Mountain was spectacular, absolutely breathtaking. In the evening, our expedition leader organized an auction night to raise money for Polar Research. I decided to bet for three items. The captain’s hat, which he donated to the cause, Navigation chart of our trip to the North Pole and if both failed I would go for the Russian made ceramic polar bear. I missed the captain’s hat for merely €50 Euro. Then I started my bet for the navigation chart. I was doing ok up to 200 Euro. I thought I have reached my limit and now was time sit back and watch. Then a betting war started between two Swedish couples. Both couples were determined to get that navigation chart. Very soon betting reached €10,000 Euro. I was glad I stopped betting after 200 Euros. Expedition leader was a very clever auctioneer, giving both couples free vodka while they were betting. Within10 minutes betting reached €15,000 Euros. We all thought there was no way they would be crazy enough to pay higher than €15,000 Euros for that chart. But after few more vodka they just kept going. The entire room was full of excitement. Everyone was waiting to see who will be the ultimate winner of that chart. The way they were betting it was very hard to predict. When they reached €20,000 Euros everybody thought betting was finished. But surprisingly, both couples wanted to keep going. By that time even I was feeling thirsty. When they reached €25,000 Euros, finally other couple said “ok you can have it”. After that successful auction we all had a free drink that night. €25,000 for an old Navigation Chart? Wow. Next morning I asked Jan (the expedition leader) about those couples. He said they both were millionaires from Sweden and none of them wanted to lose.

After arriving back to Murmansk, we were given the whole morning to go and look around Murmansk city. Some of the group members decided to go for shopping in the city center. I decided to go and see some of the memorials and first nuclear ice breaker Lenin which is now a museum.

Nuclear Powered icebreaker Lenin, The world's first nuclear powered surface ship, now rests in the docks of Murmansk and has been turned into a museum. It also features as a showcase for the Russian nuclear fleet. Ice Breaker Lenin was commissioned in 1959 and after 30 years of service Lenin was de-commissioned in 1989.

Alyosha Statue - known as Alyosha to locals, this 30-meter-tall statue of a soldier overlooks the city and was built in 1974 to commemorate the Soviet defense of the Arctic during World War II.

In the afternoon, we were taken straight back to Murmansk Airport for our flight back to Helsinki. Our Finnair chartered flight arrived exactly on time to pick us up and after another memorable trip of my life, I said good bye to Murmansk and headed towards home via Helsinki and London.



THE END

< Part 2






Published on: 15-Sep-2014


ফিরোজা বেগম আর নেই!
প্রখ্যাত নজরুলসংগীত শিল্পী ফিরোজা বেগম মঙ্গলবার (৯/৯/২০১৪) রাত ৮টা ২৮ মিনিটে অ্যাপোলো হাসপাতালে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)...... বিস্তারিত......


Published on: 10-Sep-2014




Published on: 9-Sep-2014






Published on: 9-Sep-2014


‘For you my friend, anywhere anytime’
Mostafa Abdullah



“কিছু বন্ধু আছে , সৃতি যাদের রবে সৌরভের মত, আর শালা সব ......”


Ranjan Banarjee often reccited this line of a poem of Shakti Chattopadhayya, an well known modern Bengali poet who died about ten years ago, at our lunch time আড্ডা (Gossips) at the ICDDR,B; The International Centre for Diarrheal Disease Research, Bangladesh. I worked at the ICDDR,B for two six year contracts between 1980 and 1994. Ranjan came to Dhaka from Ottawa with his wife Nipa Banarjee. Nipa Banerjee was posted at Dhaka as the Trade Commissioner for Canada. Ranjan himself was an employee of the Department of Foreign Affairs and International Trade (DFAIT) where he worked as a Foreign Service Officer and also as a Trade Commissioner. At the ICCDR,B he joined us as a Consultant in our team. He was a fine company and a great connoisseur of food. He discovered so many exotic eateries in the old Dhaka during his three years of stay, which I could never imagine finding all those in my whole life. Guess where he was discovered in Sydney by some of his ex-colleagues of ICDDR,B. Off course it had to be in a restaurant in Blacktown. His one other favorite punch line was that his grandmother had dipped him in the holy waters of the Ganges when he was very young, and thus been absolved of all of his past, present and future sins. So he was free to try out all of the forbidden pleasures of life including devouring গোমাংস (beef) as much as he wished. However this piece is not about Ranjan. I just could not resist using his line to begin this write-up and hence this brief introduction. I do wish to revisit Ranjan and other good friends at some other later time.

After leaving ICCR,B I started working for PA Consulting Group (New Zealand) from 1995 in their Asian Development Bank (ADB) funded project in Bangladesh as a Senior Systems Consultant. The project aimed at upgrading the Financial Management System of the Bangladesh Power Development Board (BPDB) and the Dhaka Electric Supply Company (DESCO). Mr. Peter Stehli, an Englishman, headed the project. Peter in his early seventies, was a professional accountant who was also a graduate of linguistics from the University of London.

I was Peter’s number two in the project. Any time he drafted a report, a letter or even a note that was to go out of office, he passed it on to me for my review and comment. Being raised in an environment where the boss could not be wrong, even when one is, I always said fine. After a few days Peter asked me how come I always said ‘fine’ to everything that he gave me for review. I had no answer as I could not tell him that not only our work culture discourages pointing mistakes of the boss but could also be seen as disrespect towards the Superior. Peter explained that he himself could not be right one hundred percent, all the time, and my job as his deputy was to double check that. Once that was cleared, I never had any problem telling him wherever corrections or improvements were required.

However, that wasn’t to be the case to be with a senior bureaucrat of the government of Bangladesh, with whom we needed to deal regularly for project activities. This very gentleman was ‘Mr. Know it all’ who took pride in doing all the talking himself and wouldn’t listen much. Besides, his English was rather poor and he had difficulty understanding Peter’s conversations. Most often his responses to Peter had no relevance to the subject matter of the meetings and most encounters ended up in frustrations for us. He used to be always flanked by his deputies in the meetings but none cared to ever point out to him that the boss may not have understood what Peter had said or interpreted in Bangla for him.

In one such routine meeting we urgently needed a resolution to an issue very pertinent to the progress of the project. But the boss’s conversation clearly pointed to the fact he did not understand what Peter had requested of him. As our frustrations grew, I decided to speak to him in Bangla to tell him what actually Peter said. As soon as I did that he looked at me with such blood shot eyes that if it had the flames, it sure would have burnt me to the stake. I knew that my days were done with this honorable officer of the government. We returned from the meeting empty handed without any resolution. On our way back I told Peter what had happened. He kept quit and I wasn’t sure what he had thought of it.

A couple of days before the next scheduled meeting we were advised that I need not attend the meetings any more. Peter Stehli refused to attend the meeting without me and it had to be cancelled. The Asian Development Bank (ADB) requested Peter to patch up with the officer and suggested that he needed to attend the meetings, even if it was without me. Peter refused and offered to resign instead. Fortunately for us the gentleman got transferred to another ministry soon and the business continued as usual with his replacement. The rumor had it that ADB’s long hand had something to do with the transfer. And I learnt my lesson not to ever tell any Bangladeshi boss that he or she may have got it wrong.

Peter resided in Hotel Sheraton for almost first half of his five year tenure in Dhaka. Every morning while leaving for work he used to collect a pocket full of changes in ten taka notes from the cahiers office. The small kids at traffic stops new Peter’s car too well to run for it as soon as it stopped. Peter seemed to know some of these kids even by their names. Peter gave away each of them a ten taka note whenever he could. Our office driver Siraj couldn’t be very happy about it. Siraj often shouted at the kids not to touch the car since they soiled it with their dirty hands. He complained that due to this he needed to wash the car more often than needed. On one such occasion a little girl responded; ‘ক্যান, সাবে আপনেরে ব্যাতন দেয় না’? (What’s your problem? Don’t you get paid for your work’?) Peter wished to know what the girl had said and as I interpreted it, he burst into laughter and gave that girl two additional ten taka notes. He commented ‘given the opportunity she would have made a fine lawyer’.

There were few that came to his office at regular intervals and collected handouts from Peter under various pretexts. Since I sat closest to peter’s office he often called me in to interpret for them. Each one had a new story to tell to beg for more and more money at each of these visits. I could figure out that some of the stories were concocted to pry on Peter’s goodness of heart. I used to get upset at times and at one instance I told Peter if he realized that some of these guys are taking him for a ride with made up stories. He looked at me and smiled ‘Don’t you think I can understand that too? Had I been in any one of their shoes, I would have probably done the same thing or worse’. I asked myself; how come I could not think like him.

Peter left the project and Bangladesh into retirement in the year 2000. Later in 2003 I assumed the role of Head of the project for PA Consulting Group (USA) under USAID funding. At my work I needed someone with critical knowledge of Bangladesh energy sector to draft me a capital requirement analysis and plan for Bangladesh energy sector. I could not think of any better person than Peter for the job. But I wasn’t sure if he would be interested to come back to work for six to eight weeks from his retirement. I apologetically called him and made the request. He replied ‘for you my friend, anywhere anytime’. Peter came to Dhaka and worked for six weeks. He turned up an output which equaled to at least ten to twelve weeks of work.

This was one of my happiest and a proud moment of my professional life. It is not because I had my former boss work for me, but because it was an attempt on my part to show my reverence for him, for the person he had been and for upholding my honor by putting his own job on the line.

Thank you Peter.





Published on: 1-Sep-2014


Share Accommodation Wanted

I am Mohammad Mostafa Kamal from Bangladesh. I have got my PR 189 and coming Sydney on 18th October 2014 with my wife and a year and half old child.

I am trying to find share accommodation in Lakemba or neibouring areas.

If you have any such accommodation available could you please let me know. My contact details are given below.

Mohammad Mostafa Kamal
Mob: +8801713201798
email: mostafa308@gmail.com
Skype: mohammad_mostafa_kamal



Published on: 23-Aug-2014


90° North (Part 2)
My trip to the top of the World
Azam Chowdhury


Story of a Bangladeshi man who stood on the North Pole!


Published on: 21-Aug-2014


90° North
My trip to the top of the World

Azam Chowdhury



< Part 1
PART 2
Part 3 >


Andre was a friendly young Russian about 35 years old. He knows very little English. He was trying hard to communicate with me. I told him that I live in Australia but was born in Bangladesh. I wasn’t sure how am I going to make him understand where Bangladesh is. Then I asked him whether he knew where Bangladesh is? He tried hard in his broken English to show he knows Geography very well. I was not sure what he meant by that. He realized that he is not getting through to me, he got up, opened his information folder, grabbed a piece of paper and a pen, drew a map of the Indian Sub-Continent and showed me the exact location of Bangladesh, then Dhaka and Chittagong in his map. I was really surprised. He didn’t stop there, he even showed me all the rivers of Bangladesh in his map and where they are flowing into the Bay of Bengal. When I asked how did he know so much about Bangladesh, he told me that when he was in school he won the Geography Olympiad in the entire Russian Federation. He just loves to study geography. I wish I could speak Russian or he could speak a bit more English, then we could have had a wonderful discussion. We left Murmansk at 6:00 p.m.


Murmansk Harbour

After dinner he asked me whether I would like to have a drink with him at the bar. I told him I have been travelling for 2 /3 days and was a bit tired. Then he left and I decided to get some sleep. Around 3:30 a.m. he came back to the cabin, I got up with the noise and looked outside and saw the bright sky outside. I asked him is it already morning? He said no, it never gets dark here in summer. We both went to our beds again and after a couple of hours Andre got up and told me he was going to the smoking room for a smoke and ask me whether I smoked. I told him that I didn't. He seemed to be very surprised that I don’t drink or smoke. He came back after an hour and went back to sleep. After breakfast we sat next to a window and watched the fog covered Barents sea for a while. Then I went to my cabin and had a chat with Andre. After lunch I went to the Aft Salon to listen to Kara’s lecture on comparison of Northern Arctic with Antarctica. Kara is a Biologist from Alaska. She travelled extensively in both Antarctica and Northern Arctic.

Next day I woke up at 6:30. Looked outside through the window. The sky looked a lot clearer than yesterday. Barents sea is very calm compared to South Atlantic. Only few birds were flying overhead. Apart from that nothing significant was visible. Outside temperature was around – 4°C. I decided not to go out on the deck before breakfast. In the other corner of the room, Andre was still sleeping like a baby. All he does is drink and sleep. Around 8 a.m. I went to the dining room and had my breakfast. As I didn’t have dinner the night before, I was hungry. After breakfast, I saw Andre entering the dining room for his breakfast. Today at 4:15 p.m, we saw the Polar ice shelf for the first time. It was a spectacular sight. Our Icebreaker was steaming ahead at 16-17 knot per hour through the packed ice.


Kittiwake Flying overhead

All we could see was white packed ice all around us. I spent some time admiring the sea ice. Temperature was below zero and it started to drizzle. So I decided to return and rest in the cabin. Around 6:30 p.m. there was an announcement about polar bear sighting. I quickly got dressed, grabbed my camera and went to the upper deck. By the time I went there, bear had disappeared in the ice pack. So with a bit of disappointment I returned to my cabin.

Andre reminded me that I had an invitation to the Captain cabin for a cocktail drink. I said "really"? He said there was an invitation letter on my desk. I wasn’t sure where it was, so he showed me the invitation card on my desk, which I didn’t even bother to open earlier thinking it is another information sheet they constantly provided. I asked Andre whether he was going too. He said no, it is for invited guests only. He explained that during the trip the Captain invites 6 people for captain cocktail party and I was one of the lucky ones. It was already getting late. So I quickly changed into something comfortable and went to the captain’s Cocktail Party. After drinks he told me, through his interpreter that he never met anyone from Bangladesh in his ship before. I told him that I was honored to have a drink and meet the captain of the world's largest and most powerful nuclear powered Icebreaker. He smiled and said if I wanted I can take a picture with him. I was really happy to see how polite and gentleman he was. After saying good bye to the captain and his interpreter, we left captain’s cabin to the briefing room.


With Captain Valentin Davydyants

We had a helicopter briefing at 7:00 p.m. We were told our helicopter will start flying from next day, weather permitting of course. In the Arctic the weather changes every hour, same as I found in Antarctica last year. After dinner I went up to the upper deck to take some more pictures. The wind was too strong and the temperature was 0° degree, so I decided to come back to the cabin. I had a look at all the picture I had taken.

At 12:30 a.m. I woke up with the announcement from our team leader Jan that there was a polar bear close to our ship. So quickly I got up, put on some warm cloths again, grabbed my cameras and went to the upper deck. Wow, it was really a very exciting moment of my Arctic expedition. There was a single polar bear wondering around. The captain stopped the ship so that everyone can have a look at the majestic animal from close up. Such a huge ship stopped next to him or her, seemed it didn’t bother the polar bear at all. Our ship stayed motionless for almost 15 minutes. I must admit it was worth every minute. I am sure it will be the highlight of my trip to the Polar region.


Polar bear roaming in the arctic

Then the captain decided to leave the bear alone and resumed our course for 90° North. In the morning, I looked outside through my cabin window. Sea ice was all around. All white and our ship going through the pack ice at 17 – 18 knots. We could feel the vibrations and bumps when breaking ice with great speed. In the below deck the noise was unbearable. I really felt sorry for those passengers who were in deck below. With the excitement of Polar Bear sighting, Andre and I both had very little sleep so after lunch we both had an afternoon nap only to wake up with the announcement from our expedition leader, Jan, reminding us again that we will be having BBQ dinner and afterwards there will be an open deck party. The ship was already stopped so that catering crews could organize BBQ and sitting arrangement on the deck.
After the BBQ we had music and dance for an hour then at 9:30 ship started to move again for our final destination. I looked through the window, it was foggy and our ship was still crushing through the pack ice. I thought these pack ice must be much harder than the previous days, because noise was unbelievable and the ship was rolling like we are in the middle of a stormy sea. From time to time captain was stopping the ship and reversing some distance then forward again with a new course.


Midnight Sun

Later on I asked Jan why the captain is doing that. He said when the ice gets too thick, the captain changes the course so that ship can break through the ice easily. He reminded me that this is the only ship design to break through 10 - 12 feet thick ice. After lunch Jan announced that we will be reaching 89° North soon. That means after that we will have 60 more miles to go before we will reach 90° North.


To be continued . . . . . . . .


< Part 1 Part 3 >






Published on: 21-Aug-2014


90° North (Part 1)
My trip to the top of the World
Azam Chowdhury


Story of a Bangladeshi man who stood on the North Pole!


Published on: 10-Aug-2014


90° North
My trip to the top of the World

Azam Chowdhury



PART 1
Part 2 >


I always thought what it would be like to stand on the top of the world. But as the Geographic North Pole is on the thick ice shelf on Northern Arctic Ocean, the only way to get there is by powerful ice breakers. After doing some research, I decided to book through a Russian Expedition company that uses Russian Navy’s most powerful nuclear powered ice breaker called 50 Years of Victory, which is the most powerful ice breaker in the world. I thought it would



Ice breaker - 50 Years of Victory


be wonderful to see how it breaks through thousands of miles of thick ice, and also how it would feel to stand on top of the world at 90° north. Because of the limited number of seats available for the expedition, I made my booking 9 months ahead of the scheduled trip. I had already planned to visit Bangladesh so I decided to start my journey from there.

After some anxious months, I finally left Dhaka on the 16th of July 2012. For some reason, I wasn’t feeling very excited. I knew anything and everything can go wrong. Jet Airways Flight to London via New Delhi left Dhaka on time at 9:20 am. When I decided to start my North Pole trip from Bangladesh I knew I was taking a big risk. Once I took off, I was relieved that finally I am on my way to the North Pole.

Jet Airways flight from Dhaka to Delhi was fairly un-eventful; except the young man sitting on the other side of the aisle kept talking to me. He would be around 25, cleaned shaved, wearing brand new shirt, trousers and shoes. He was going to Doha and asked me where I was going. Then he started his complaints, at first he complained for not getting a refresher towel, then he complained about not having a printed menu in the seat pocket. I started reading the newspaper. Then he said in Bengali "Ashole ki janen? Eida ekta faltu airline".

After 2 hours layover in Delhi, our flight left for London. After less than 8 hours, we arrived at London Heathrow Airport at 6:30 PM local time. My next connecting flight to Helsinki was at 7:30 next morning. I went to the food court and had something to eat then went to terminal-3, found a long bench without handles and lied down. Couldn’t sleep for long because of the noise. Around midnight the terminal was totally empty and managed to get some sleep.


Finland:
Helsinki - Around 6:30 in the morning Finnair check in desk opened. I went and stood in the queue. We left London Heathrow Airport exactly at 7:30 am as scheduled and arrived Helsinki at 10:15 am local time. On my way to the hotel from the airport I asked the Taxi Driver why the roads were so empty and so few cars on the road. She replied, almost 50% of the Helsinki Population takes their holiday during summer. Usually they go to the countryside. Helsinki is a small city but very neat and clean. I checked into the Hotel and after lunch I was feeling restless and went down to the hotel lobby. I met Ajit who is a hotel employee from India. He was very friendly and suggested a few interesting places to see in and around Helsinki. I went for a walk around the lake at first, which was close to the Helsinki Crown Plaza where I was staying.

In the Northern Hemisphere the sun remains high in the sky until very late. It was after 10:35 pm. I could see the sun is still up and outside was very bright. During summer months, Helsinki gets about 18 hours daylight and it doesn’t get dark before 11 pm. After two days I left Helsinki with rest of the group for Murmansk. This was my second Finn Air flight. Finn Air is a relatively small Airlines and I was really surprised to see their efficiency and punctuality.


Russian Republic:
Murmansk - We arrived at Murmansk, located in the extreme northwest part of Russia. With an average yearly temperature of 0°C, Murmansk is the world’s largest city north of the Arctic Circle. Average temperatures exceed 0° degrees Celsius only from May through October. The average low during the coldest part of the year in Murmansk is approximately −14 °C. However, temperatures routinely plunge below −20 °C during winter. Murmansk was Soviet Union's most important nuclear fleet and submarine base.



Murmansk City


This is the first time I set foot on Russian territory and naturally was eager to see the Russian efficiency. As Murmansk is the homeport for Russian Navy’s Nuclear and submarine fleet, security in and around the airport was very tight. But there were only a few well-dressed woman police officers inside the small terminal building. There were only 3 custom booths with 3 custom officers checking our travel documents and arrival cards. They were working like 3 industrial robots. They didn’t talk and had no expression on their faces. After customs clearance, we were directed by a soldier towards our buses waiting outside to take us to Murmansk harbour. Once again there was no talking, just looking at us and pointing to the buses. We saw there were more Russian soldiers outside and around the terminal building. It was very cold and windy outside, and to make things worse, it started to rain. It took us 45 minutes to go to Murmansk harbour. The road to harbour was almost traffic free. Either side of the road was covered with natural pine forests and there were a few lakes, made our journey quiet scenic. When we reached the harbour we could see our giant nuclear powered icebreaker in front of us next to a Russian Navy’s nuclear powered Aircraft Carrier.

Although we were told not to take any pictures in or around Murmansk harbour, but few people couldn’t resist the temptation. They kept on talking pictures even though it was still raining outside.

I was really surprised to see such an important place is in such a mess. It looked like a ship wrecking yard. Rusty ship parts, old propeller, old lifeboat were scattered all over the place. Soldiers were standing with their guard dogs. We were told to remain in the bus until further notice. Then after about 15 minutes customs police came on board our buses to check our passports again. He was very polite and quietly checked all the passports and left without saying a word to anyone, not even to our Russian driver. After another 10 minutes our buses were allowed to pass through the double security gate.



Our buses had to negotiate through all sorts of obstacles to park next to the gangway to go on board our ship. It was a long climb and when we reached the top of the gangway for the very first time we saw a smiling face greeted us and said, "welcome on board". He was our German born expedition leader, Jan. Once we were in, we had to surrender our passport and we were showed our cabins. It was a very proud moment for me. I always wanted to see how a nuclear powered ship or submarine works, now I was in one of them, and it was going to be my home for next ten days. I was very excited. When I went into my cabin I saw my roommate’s luggage already in the room. But surprisingly my luggage did not arrive yet. I decided to go out and join rest of the group for briefing. After the briefing, I came back to my cabin and met my room mate Andre from Moscow.


To be continued . . . . . . . .

Part 2 >







Published on: 10-Aug-2014


Bangladesh Society Puja and Culture
New Executive Committee


Published on: 8-Aug-2014


Bangladesh Society Puja and Culture
Media Release


This is to inform the community members that ‘Bangladesh Society for Puja & Culture Inc.’ (BSPC) has held its Annual General Meeting 2014 on Sunday 20July 2014 at Marayong South Public School, 64 McClean Street, Blacktown. The following BSPC members are elected as new Executive Committee for the period of 2014-2015. New Executive Committee members are as follows:

TitleName
PresidentMr Subal Chowdhury
Vice PresidentDr Ranjana Sarker
General SecretaryMr Pradip Saha
Assistant General SecretaryMr Bipul Roy
TreasurerMr Nikhil Paul
Cultural SecretaryMrs Kalpana Majumder
Public Relations Secretary (PRS)Mr Nirmal Chakraborty
MembersMr Dhruba Bhowmik
Mr Debashis Dutta
Dr Santosh Roy
Mr Haridas Paul



New Executive Committee Members (standing in the back row) with the Election Commissioner Dr Renu Deb-Das


Published by-
Nirmal Chakraborty, Public Relations Secretary, BSPC 2014-15
Date: 02 August 2014




Published on: 8-Aug-2014


Bangladeshi-Australian boy wins gold medal in Informatics Olympiad 2014


Published on: 4-Aug-2014


Greek court acquits farmers who shot
28 Bangladeshi strawberry pickers


Published on: 31-Jul-2014



Seminar on controversial changes to Racial Discrimination Act


Anisur Rahman: Australian Federal government is thinking about making some controversial changes to the Racial Discrimination Act (1975). Proposed changes will affect sections 18C and 18D of the act. Section 18 C prevents a person from insulting, humiliating, offending or intimidating another person or group on the basis of their race. Section 18 D outlines exemptions to protect freedom of speech for artistic or cultural works. Many people feel that the changes to this act will increase racial vilification based on ethnicity, race, language and religion.

The Indian Telegraph, a community newspaper published from Sydney, held a seminar on the 24th of July 2014 at the Marayong Community Centre (Western Sydney) to discuss the proposed changes with parliamentarians, community leaders and legal experts. There was a five member panel to discuss the issue and answer the questions raised by the community.


From left: Pallavi Sinha (Lawyer), Michelle Rowland Federal MP (Labour), Geoffrey Lee NSW MP (Liberal), John Robertson (Opposition labour leader of NSW) and Aisha Amjad (Lawyer).

The seminar was attended by a sizeable number of Indian and Bangladeshi community members.



Liberal leader Geoffrey Lee asked the community to rest assured because this is only a proposal and it hasn't been submitted to the parliament as a bill. There is a considerable opposition from many quarters and it will never happen.

Opposition labour leader of NSW John Robertson insisted to remain vigilant and asked the community members to contact their local MPs through email to voice their concern until the issue is dead and buried.




Published on: 30-Jul-2014






Published on: 23-Jul-2014


FAREWELL SPEECH
Faruk Kader


Imran tried to imagine what his farewell speech would be, if he was made to walk out of his present job. He has already attended a couple of farewell morning teas rolled out for a number colleagues in his work-place. Only one colleague ended his career on his own term, while the others had to accept redundancy. He has been working as Senior Planning Engineer, Brisbane Water, a leading water retailer of Australia, for more than 3 years and was looking to continue few more before retiring. This has become uncertain with the current downturn in the job market which began when the Liberal Party came into power after their resounding victory in Queensland state parliament election. The ruling Liberal Party has already chopped off thousands job in a bid to return to surplus budget and was determined to do more. Who knew what more job-cut plans they have up in their sleeves!

Job-cuts in Imran’s organisation came in the guise of re-structuring – a common ploy in this country, perhaps anywhere in western world, to cut down the cost of running an organisation behind the smokescreen of drive for efficiency and productivity. Re-structuring or reform of Imran’s organisation began last year, which immediately spawned speculations of the impending job cut. The big bosses at the top started volleying their reform ideas to the hapless employees in a series of presentations. The net result: three posts of General Manager were created at the top hierarchy, while a number of managerial posts abolished and couple of sections merged to downsize the staff numbers, leaving the fate of incumbent position holders in balance. As the road to reform slowly demystified, the fates of the staff not making to this journey were sealed one by one.

The most recent farewell morning tea that Imran attended turned beyond everybody’s imagination something into a funeral ceremony, when the departing staff, a Manager, could not hold back his feeling of utter disappointment and shock, and broke down soon after he began his farewell speech. He hardly spoke few sentences when his swelling emotion spilled out - he started sobbing, his voice quivered and body twisted. He somehow pulled himself together - a virtuoso of these English speaking people, wholeheartedly agreed by Imran, and finished his speech. The uncertainty looming large in the minds of all present made the atmosphere gloomy. Imran met this guy many times in office corridors and exchanged Hi and Hallows – he was all smiles and easy going; now it looks like the heaven has come crashing down on him. His emotional outburst did overwhelm his group of female staff as well and they silently wept – sending out waves of compassion to this poor man’s tortured soul. Later on Imran found out that this guy’s section has been merged with another leaving him high and dry. It was like our Bangladeshi minister without portfolio, with the difference that our minister, although without power, can enjoy all the benefits of a ministerial position. The outgoing manager had served the organisation with distinction for long years, well-settled in life with his family. Now he has been put aside by his organisation and his bitterness about this treatment would be hard for him to swallow.

Since migrating to Australia about a decade back, Imran like many other migrants fell into the vicious cycle of job hunt. The cycle is something like that: You are hired by a rising company, the company enjoys a period of boom – lots of work, then something happens in international economy, contracts dry up for the company and it rings alarm bell for the midlevel personnel like Imran; managers and executives remain untouched because they have a job ahead to steer the company ship out of rough waters and to eke out a new survival strategy. Then one day you are shown the exit door and you start polishing your CV and armed with that start knocking at the recruiting agents and send out desperate calls to your professional network. In the last eight or nine years, Imran had a similar number of jobs, all contract ones – a few of them lasted for about couple of months. Permanent jobs eluded him all along till the one he is doing now. Permanency in job is a misnomer in Australia and elsewhere in western countries. This is the reality here, as one would understand, in stark contrast to Bangladesh, where one once employed in a government job can last till his retirement. Sometime, resignation from a government job in Bangladesh can take months, even years because of bureaucratic bungle.

For about three years after the global financial crisis, Imran has been enjoying a period of relative calm and economic prosperity, offered by the present job towards the end of his career. Even this period had few hiccups, you could say, small shake-ups before a major upheaval. Although he was able to avoid redundancy, he had to enter a new contract with his employer which stripped him of few previous incentives. But the fear of redundancy was not gone; every now and then speculations of redundancy would pop up and shatter the illusion of job security, when someone fed with tip-offs from head office spoke out his concern to his team members. Actually, Imran was very much conscious of this reality and he realized prevention of redundancy was not an option, if he was in the firing line. That’s why he has been preparing himself for this eventuality to make his exit with some dignity.

Since the beginning of this job-cut in Imran’s work-place, Imran regularly shared with Rehana, his wife of about 30 years, what’s happening in his office. Rehana has been by Imran’s side through his tumultuous career and shared both his jubilations of getting a new job and sense of despair when it came to an end. But this was never like before, being engaged in a psychological warfare against the adversity of life lurking in the dark. She didn’t show any visible signs of worry in the past. As Imran poured out today’s gloomy tale of the outgoing manager to Rehana, she was quite moved, while in the back of her mind she experienced a heightened awareness of life’s fragility. Unable to hide her inner turmoil, she almost broke down, “What we are going to do, if it happens to you?” “I have started looking for jobs elsewhere”, Imran replied vaguely, as his attention was drawn to the TV footage of hundreds protesting on the street against the impending job-cuts in public health sector.

The semi-paranoid about the job-cut was affecting Rehana. Almost everyday, when Imran reached home after the day’s work, Rehana would often ask him the question, “What’s latest happening in your office?” Imran tired from office, would work out a smile for her to assure that he was still at bay from redundancy. When they went to bed following the daily rituals of dinner and watching TV programs, a short bed-time conversation would ensue. Imran opened up, “You know, two girls of the customer service were given farewell today.”
“What happened to them?”
“Their contracts expired and not renewed; poor girls!, now they will have to queue at the Centrelink for the dole and look for jobs, which would not be easy given the dull job market.”
Imran felt the concern of Rehana. He knew, if job-cut strike him like a lightning from blue, they would be in the same boat as many others have already been made to be.
Imran drew Rehana close to him, “Don’t worry; so far I didn’t hear anything about our section. We are quite busy at the moment and my performance is well-regarded by my boss”.
Rehana moaned with sleepy eyes trying to remain awake, “I rather worry for you. You have to remain busy to keep you going and cheerful.” Imran understands what Rehana implied – when they first came to Australia they had a terrible time without job and with Centrelink’s meagre support. And Imran almost became depressed. Only a resurging job market buoyed by the mining boom brought about by the steeply rising Chinese economy came to their rescue. Imran kissed the sleepy eyes of Rehana, then whispered into her ear, “We have come a long way Rehana and we have seen times both good and bad. Even if we have to face bad time, we would see through it together. Let’s not worry now and go to sleep.”

Imran stopped talking about job-cuts in his office after realization of its toll on Rehana. It seemed the tide of first major job-cut in the office has ebbed. Imran didn’t hear any further job-cut in the office. For the time being the atmosphere of uncertainty took a back-seat giving the employees a respite to move on.

The year was drawing to an end and x-mass was knocking at the door. The atmosphere in Imran’s work-place turned pregnant with the staff’s expectation about x-mass celebration and the long holiday. All around the staff radiated happiness and joy and engaged in chatting about their holiday plans. Office work slowed down and plans for x-mass celebration in work place were rolled out well ahead of x-mass day. Plans included x-mass lunch, x-mass morning tea and competition for group-wise x-mass decoration, Secret Santa and Raffle Draw. The Sri Lankan female colleague of Imran’s team put on a decoration with all her team members reaching out for help. The whole office floor decorated with x-mass outfits exuded all around happiness and joy: the uncertainty about job cut all but was erased from the staff’s minds.

On the x-mass eve, Imran and Rehana went to Brisbane city centre to watch x-mass celebration. At the city centre, they merged with the crowd lined in wait for the X-mass party to parade through the city centre. This x-mass parade has been happening for the last two years, sponsored by the fashion retailer giant Myer. First the kids came along dancing and singing x-mass carols and waving to the cheering crowds, followed by teen age boys and girls beating drums - the marching kids and teen age boys and girls put on red and white dress. Then marched the artists, who performed a ballet piece from Nut Cracker Suite, the world famous x-mass ballet. Some of them leaped into the air, some somersaulted in sheer ecstasy. A few paused on their march to offer a selphie snapshot to the more flamboyant members from the watching crowd. In this festive mood, everybody was happy and no distinction could be made about the degree of happiness writ on the faces of crowd. Among the crowd, who knew, there could be jobless ones or people coping through tight budget or even had terminal patients back at home to care about. The joy and sprit of x-mass permeated the hearts of Imran and Rehana. Finally, the carriage of Santa Clouse driven by two deer came hopping along. The Santa waved his hands to the cheering crowd and as it passed by Imran, he was greeted by the Santa by his smiling face with a blinking eye. Imran thought: Did he know this guy masquerading as Santa, being aware that the guy performing as Santa could be a hired one. Many casually work as Santa during x-mass at shopping malls to entertain kids, in the process earning some bucks to feed themselves.

The day before x-mass holiday, Imran received a letter neatly tucked into an official envelope marked, “Confidential” left on his desk. Seeing the letter in Imran’s hand, his team leader Richard joked,“ Your termination letter; may be we are here for another farewell morning tea.” Imran laughed but with a fleeting shade of gloom on his face. Richard came to his cheerful self instantly and patted on Imran’s back saying,” You have in the envelope something to cheer about.” Imran regained his composure and returned his compliment, “I could guess”.

Imran took the letter home and gave it to Rehana, pretending to be sad. Rehana was not sure what to do but she was fooled into believing in something ominous about the envelope after watching Imran’s carefully crafted disappointment on his face. She cried out, “Don’t tell me you have lost your ….!” Imran couldn’t pretend for long – it was against his nature. Finally, he broke into a smile that assured Rehana that it was nothing that sort. Rehana took a long breathe, then without bothering to look at the letter, gingerly put down the envelope on the tea table. Her face brightened up for the moment and then she spoke to Imran almost in a hushed voice, “You know, I have applied for a casual job with Coles and they have invited me to an interview tomorrow. It’s only fair that I give you a hand… “




Published on: 16-Jul-2014


টাঙ্গাইলে চিরনিদ্রায় খ ম ফারুক
bdnews24.com এর সৌজন্যে


Published on: 6-Jul-2014


New CEO for Ntv Australia

Mr MD Rashedul Islam has been appointed Chief Executive Officer (CEO) of Ntv Australia Inc. Prior to this, Mr Islam served as the head of editorial and associate editor of updatebdnews.com. He is also member ff Bangladesh Online Journalist Forum, Australia Press Club, President of Bangladesh Student Association Australia Inc, Managing Director Dexus Corporate media Ltd, Member of Financial Services Australia, Associate Member of CPA Australia, NSW Youth Labor Delegate, Secretary of The Association of Bangladesh Voice Australia, Executive Director of GNWSA and member of United Nation Youth Association (UNYA) Australia.





Published on: 29-Jun-2014


Ramadan Mubarak
Mostafa Abdullah


1

Anas ibn Malik reported: A man said, “O Messenger of Allah, should I tie my camel and trust in Allah, or should I untie her and trust in Allah?” The Messenger of Allah, peace and blessings be upon him, said, “Tie her and trust in Allah.”

After my last article ‘The Divine Intervention’ was published in bangla-sydney.com, I came across this hadith of our prophet. I felt that it completely summarized what I intended to say in that article. I passed the hadith on to some of my friends and received some very interesting feedbacks, including some requests for further elaboration on it. This was a tough call for me. Nevertheless, I inferred that I must have had some insights of my own to attempt to write the article in the first place. So I set on to write this elaboration of my own.

May Allah forgive me for my ignorance and whatever I may say which may not be correct.

2

Among others, one rhetorical question that I faced; ‘If I do my work to the best of my abilities, does it really matter whether I trust in God or not?’ I would think that a straightforward, simple answer would be; if one believes in Allah, it does matter. But if one doesn’t, it would really be up to them. However, I have doubts that such a simple answer would suffice.

Let us consider the situation of a street beggar in the Dhaka city. A beggar must hope or believe that his/her effort is likely to yield something. And with that belief, he reaches out to you when you pass by in your car. He makes his case to everyone he can. Sometimes you grant him his wish, sometimes you don’t. When you do, do you give to everyone that stretches out his or her hand? Most often it is no. Your choice of person to give depends on who appeals to you most; in other words, the one who presents himself as the most deserving.

If the beggar relies solely on his belief but makes no effort, he would most likely die of starvation. By the same token, we must trust Allah while we go about our business to the best of our abilities. We must strive to do our best to present ourselves to be the most deserving. The outcome, however, is not in our hands just as the outcome of the beggar’s efforts is not in his or her hands.

Allah in His infinite magnanimity decides what is best for us, while we see only in the context of what is perceivable by us. We only see what is present before us, Allah sees in totality and decides and acts accordingly. (Ref: Surah Al-Kahf, verses 65 to 82 of the Holy Qur’an).

The truth of these verses hit me hard when the liberation movement for Bangladesh started on the night of 25th March, 1971. Most Bengalese that lived in a neighborhood of Mirpur, where our newly built house once stood, were massacred by the Biharis. We were spared the annihilation as at that time we lived elsewhere. Our house of thin walls and tin roof at Mirpur was completely destroyed in a tornado ten years earlier in 1963.

After our house was destroyed I often heard my father say ‘Nothing happens without a reason. The One above knows it all and He must have had a good reason’. He would say that we human beings can only see what is in front of us and what we can perceive. But Allah sees it in totality and decides accordingly. I believe that Allah in His enormity, for reasons best known to Him, may have had decided long before to save this family of three and hence caused us to leave the property by destroying it.


3

At the grey old age of 68, most often I am the oldest in Bangladeshi social gatherings (dawaats). This brings upon me a strange responsibility at times. Sometimes, the host requests me to lead a Du’a for some reason or other. First, I have rarely performed such acts in the past and I am hardly ever prepared for it. Most often it turns out to be, on my part, an insincere act.

By terming it ‘insincere’ on my part, I am in no way suggesting that we should not be performing Du’a as often as we do. In fact, one should ideally be in a state of Du’a at all times. Du’a is a privilege that Allah, in his overwhelming kindness has bestowed on us. One ought to be prepared at all times to ask for Allah’s forgiveness with the due fervor and humility that it commands; by appreciating its presence and indispensability in our lives and not as a passing social gesture.

I consider Du’a to be an appeal, an application for mercy and for salvation to Almighty Allah. When we make an application for anything; be it a job, a promotion, a raise or a grant, we put on our best face, best attire, best write up and generally make the best effort we can. We do it in order to earn the pleasure and favor of the one to whom we apply.

Do I contemplate if I am worthy of making an application to Allah? Have I prepared myself at all for standing in front of Him, for Him to find me deserving? I find myself saying no.

What must one do to make himself/herself presentable for application to Allah? Same as one would do for all earthly business matters – only in this case, it is about our salvation and it is the pleasure of Allah that is being sought. There may be a thousand and one opinions among the Ulemas as to the ways in which Allah’s pleasure may be earned. Any number of them could be right or wrong and Allah is the best judge. However, I suppose all the learned scholars may agree on one common denominator; that one has to be a believing Muslim.


4

But that again poses some serious questions as to the definition of a Muslim.

Following the anti-Ahmadi riots in Lahore, Pakistan in 1953, a public court of inquiry was appointed with Justice Muhammad Munir as President and Justice M.R. Kayani a Member to investigate the cause of disturbance.

The report published in April 1954, stated on page 215: ‘The question, therefore, whether a person is or is not a Muslim will be of fundamental importance, and it was for this reason that we asked most of the leading Ulema to give their definition of a Muslim,……’.

It follows on page 218: ‘Keeping in view the several definitions given by the Ulema, need we make any comment except that no two learned divines are agreed on the fundamental. If we attempt our own definition as each learned divine has done and that definition differs from that given by all others, we unanimously go out of the fold Islam. And if we adopt the definition given by any of the Ulema, we remain Muslim according to the view of that alim but kafir according to the definition of everyone else’. (Source: The Clash of Fundamentalisms by Tariq Ali).

With this in view I again resorted to give myself an everyday worldview of the definition of a Muslim. In our everyday world, we join or become members of groups, clubs, unions, professional networks and so on. As one joins any such entity and declares him/herself to be a member, he/she is obliged and bound by the basic tenets of such an entity. To have the privilege of calling oneself a member one must observe certain minimum obligations of that organisation or the group.

Let us consider the situation of the Bangladesh Army. For that matter it could be the army of any country. To be able to claim to be a member of the regular Bangladesh Armed forces, amongst other things, one must take the oath of allegiance, train to be a soldier , continue to train to improve combatant skills, wear uniform as required and come to the defense of the nation when called for.

During the Liberation War of Bangladesh, a great many freedom fighters fought alongside our regular armed forces. Some of those freedom fighters even exceeded in their bravery, achievement and sacrifices in comparison to the others.

However gallant combatants they were, none of them can claim to be a member of Bangladesh Armed forces unless he or she observes and follows minimum tenets of regular armed forces. By the same token, could anyone who does not follow and observe the basic tenets of Islam claim to be a Muslim?


5

As we all know these are five basic tenants of Islam:
1. Shahadah: declaring there is no god except God, and Muhammad is God's Messenger
2. Salat: ritual prayer five times a day
3. Sawm: fasting and self-control during the blessed month of Ramadan
4. Zakat: giving 2.5% of one’s savings to the poor and needy
5. Hajj: pilgrimage to Mecca at least once in a lifetime if he/she is able to do

In my opinion, one must be prepared to observe and perform these five basic tenets to be able to claim to be a Muslim. And only then I feel reassured that I may be worthy of acceptance of my Du’as as a Muslim by the Almighty Allah.

Once one has attained these minimum requirements, one ought to improve on it further through studies, devotion and practice in order to be a better Muslim. This is almost similar to the situation of the defense personnel in our analogy. A soldier, after attaining basic requirements, is required to improve on it throughout his life through training and exercises. He is committed to becoming a better soldier.

One may mistake that I am questioning the right of prayer for non-Muslims or of the ones that do not fit my notion of a Muslim. That would be the least of my intentions. On the contrary, I am willing to defend, to the best of my abilities, anyone’s right to prayer as long as it does not interfere with someone else’s.

My premise is: as in any other situation in our everyday life, to be eligible to claim the membership to Islam, one ought to observe and adhere to its basic rules and requirements. I suppose it would be equally true for any other organized religion.

Allah knows best if I am right. May Allah forgive us for our ignorance, mistakes and sins. May He give us the courage to seek the Truth. May the month of Ramadan bring the best out of us. May we refresh our souls by placing limits on ourselves as a way to gain greater personal insights.

Ramadan Mubarak.







Published on: 24-Jun-2014



Bangladesh community held their annual fund raising program - Good Morning Bangladesh in Blacktown, Glenfield, Lakemba and Mascot this year. This is part of Australia’s Biggest Morning Tea to raise funds for the Cancer Council of NSW. A total of $20240.00 was raised in four programs.

Money raised by year...
Published on: 19-Jun-2014


Matt Thistlethwaite MP speaks about
Good Morning Bangladesh
at the Australian Federal Parliament


Published on: 3-Jun-2014


Matt Thistlethwaite MP speaks about Good Morning Bangladesh at the Australian Federal Parliament


May 28, 2014

Matt Thistlethwaite was referring to this event:





Published on: 3-Jun-2014



Lakemba

Breaking News
Published on: 30-Apr-2014


শত হাজারের মাইলফলক অতিক্রম করলো
GOOD MORNING BANGLADESH


Published on: 29-May-2014


সুন্দর ফন্টের জন্য SolaimanLipi ডাউনলোড করে নিন...

শত হাজারের মাইলফলক অতিক্রম করলো
GOOD MORNING BANGLADESH


গত ২৫ শে মে ছিল “গুড মর্নিং বাংলাদেশ - বিগেস্ট মর্নিং টি” ক্যান্সার কাউন্সিল ফান্ড রেইজিং আয়োজকদের জন্য একটি বিশেষ স্মরণীয় দিন। ইস্টার্ন সিডনির ম্যাসকট পাবলিক স্কুলের প্রাঙ্গণে “গুড মর্নিং বাংলাদেশ” ১০০,০০০ ডলার সংগ্রহের মাইলফলক অতিক্রম করল। ২০০১ সালে যে প্রোগ্রামটি ব্লাকটাউনে মাত্র ৮০০ ডলারের নিচে সংগ্রহ করে সেই একই প্রোগ্রাম আজ ২০১৪ সালে শত হাজার সংগ্রহের মুখ দেখল। দশে মিলে কাজ করার এ একটি জ্বলজ্বলে সাফল্য।

সকাল নয়টা থেকেই আসতে শুরু করে আশে পাশের লোকজনেরা। চা এবং পেঁয়াজু / পুরি ততক্ষণে রেডি প্রায়। সকাল ৯ টা থেকেই অনুষ্ঠান প্রাঙ্গণ অংশগ্রহণকারী আর ক্রেতা দর্শকদের কোলাহলে মুখরিত হয়ে ওঠে। স্টলগুলোতে নানা ধরনের মুখরোচক আর সুস্বাদু পিঠাসহ পরাটা,মাংস, ভাজি লাবরা, কাবাব ও বিভিন্ন পদের মিষ্টির ছিল বিশাল সমাহার। সদ্য ভাজা পরোটা, সদ্য হারি থেকে নামানো ভাজি, মাংস আর গরম গরম ভাপা পিঠা আর বিফ পেস্ট্রির গন্ধে ভরপুর ছিল রৌদ্র ঝলমলে ইস্টার্ন সিডনিতে অবস্থিত ম্যাসকট পাবলিক স্কুলের বিশাল আঙ্গিনা।

সকাল দশটায়” গুড মর্নিং বাংলাদেশ” ম্যাসকট প্রোগ্রামের প্রধান আয়োজক আজাদ আলম সবাইকে স্বাগত জানান। এরপর অনুষ্ঠানের গ্রন্থনা-কারি আমাদের নতুন প্রজন্মের মুখ লুতফুন হোসেন অত্যন্ত সাবলীল ভাবে প্রাতঃকালীন এই অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করে। শুরুতেই ক্যান্সার কাউন্সিল অস্ট্রেলিয়ার কিভাবে পদযাত্রা আরম্ভ হয় এর সংক্ষিপ্ত বিবরণ দেয়। অনুষ্ঠানের প্রথম বক্তা ছিলেন বাংলাদেশ কমিউনিটির বর্ষীয়ান এবং সবার শ্রদ্ধেয় ব্যারিস্টার সালাহ উদ্দিন আহমেদ । বাংলাদেশি কমিউনিটি কিভাবে এদেশের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে বিশেষ করে চ্যারিটেবল কাজে জড়িত আছে তার জরিপ তুলে ধরেন।

এর পরে বক্তব্য রাখেন প্রধান অতিথি এ এলাকার ফেডারেল এম পি ম্যাট থিসেলথওয়েট। তিনি তাঁর বক্তব্যে অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন সেক্টরে বাংলাদেশিদের উল্লেখযোগ্য অবদানের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং এরূপ মানবিক কাজে তার ব্যক্তিগত আগ্রহের কথা প্রকাশ করে। স্টেট এম পি রন হনিগ এবং মাইকেল ডেলী তাদের স্ব স্ব ভাষণে বাংলাদেশি কমিউনিটির বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে নিজেদেরকে জড়াতে পারেন বলে সৌভাগ্যবান মনে করেন এবং যে কোন গঠনমূলক ব্যাপারে সাথে থাকার আশ্বাস দেন।
এই প্রোগ্রামের বিশেষ সারপ্রাইজ ছিল প্রাক্তন প্রেমিয়ার অফ নিউ সাউথ ওয়েলস ক্রিস্টিনা কেনেলি। যিনি বর্তমানে বোটানি কাউন্সিলের বেন কেনেলির স্ত্রী। বেন কেনেলি নিজেও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। তিনি সকলকে ধন্যবাদ জানান এবং বাংলাদেশিদের স্বতঃস্ফূর্ত সেবা মূলক কাজের প্রশংসা করেন।

পরবর্তীতে বক্তব্য রাখেন ড শহিদুর রহমান। তিনি তুলে ধরেন ইস্টার্ন সিডনি ইসলামিক ওয়েলফেয়ারের কিছু কর্মকাণ্ড। ম্যাট্রাভিলের ইসলামিক কমিউনিটি সেন্টারের রিফার্বিসমেন্ট অতি সিগ গির সমাপ্ত হবে বলে আশা প্রকাশ করেন এবং স্টেট সরকারের ফান্ড এলোকেশনের ব্যাপারে এম পি মাইকেল ডেলির ব্যক্তিগত প্রচেষ্টার প্রশংসা করেন।

ডা আয়াজ চৌধুরী যিনি বলতে গেলে এই প্রজেক্টের গোড়া থেকেই সক্রিয়ভাবে ভাবে জড়িত, তিনি তুলে ধরেন গুড মর্নিং বাংলাদেশ আয়োজকদের আর একটি বড় প্রজেক্টের কথা। আহসানিয়া মিশন ক্যান্সার হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে এই গ্রুপের ওতপ্রোতভাবে অংশগ্রহণের কথা, প্রবাসী বাংলাদেশিদের শিকরের প্রতি নিঃস্বার্থ মায়া মমতার কথা। এ বছরের গোড়ার দিকে হাসপাতালের উদ্বোধন করেন মাননীয়া প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা । হাসপাতালটি নির্মাণের বেশিরভাগ অনুদান আসছে চ্যারিটেবল ফান্ড থেকে। ইতিমধ্যে কয়েকটি ব্রাঞ্চে যেমন রেডিও থেরাপি এবং কেমোথেরাপি সেবা প্রদানের কার্যক্রম চালু হয়েছ। গরিব মানুষদের স্বল্পমূল্যে সেবা প্রদানই এই হাসপাতালটির মুল লক্ষ্য।

এ প্রসঙ্গে জনাব আয়াজ অস্ট্রেলিয়ায় বসবাসকারী বাংলাদেশিদের প্রতিশ্রুতি হিসেবে আহসানিয়া মিশনের পরিচালনা বোর্ডকে ২৫০০০০ ডলার প্রদানের কথা ব্যক্ত করেন ।এর কিয়দংশ ৭৫০০০ ডলার ইতিমধ্যে সংগ্রহ করা হয়েছে বাকি অর্থ সংগ্রহের প্রচেষ্টা স্বরূপ আগামী ২২ জুন লিডকমের সাবার্বের ওস্টেলা হলে ফান্ড রেইজিং ডিনারের ব্যবস্থা করেছেন। উপস্থিত সবাইকে এ প্রোগ্রাম আসার জন্য তিনি অনুরোধ করেন।।

ড আব্দুল হক যিনি এই মুভমেন্টের সফল বাহক, সবাইকে মুক্ত হস্তে দান করার জন্য আহবান জানান। তিনি বাংলাদেশিদের এই নিঃস্বার্থ প্রচেষ্টা বিভিন্ন কমিউনিটি থেকে শুরু করে ফেডারেল পার্লামেন্টে সেশনেও যে আলোচিত এবং প্রশংসিত হয়েছে সে খুশির খবর সবাইকে জানান। “গুড মর্নিং বাংলাদেশ” ৬ষ্ঠ বৃহত্তম(based on community effort) অর্থ সংগ্রহকারী হিসেবে ক্যান্সার কাউন্সিল নিউ সাউথ ওয়েলস পরিসংখ্যানে স্থান দখল করেছে।

সংক্ষিপ্ত ভাবে বক্তব্য রাখেন রকডেল এলাকার বিশিষ্ট সমাজ সেবক ড মুহাম্মদ হাবিব উল্লাহ রকডেল বাংলা / আরবি স্কুলের পক্ষ থেকে। তিনি কমিউনিটির বিভিন্ন সেবামুলক কাজে সবাইকে এগিয়ে আসতে অনুরোধ করেন এবং আজকের এই আয়োজনে সবার স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণের জন্য ধন্যবাদ জানান।

ড মাকসুদুল বারী অনেকদিন ধরেই বাংলাদেশ ডিজাস্টার রিলিফ কমিটির সাথে জড়িত। তিনি তাঁর বক্তব্যে আগামীতে আজকের এই ধরনের সঙ্ঘবদ্ধ স্পিরিট কিভাবে কাজে লাগানো যায় তার রূপরেখা তুলে ধরেন। তিনি প্রস্তাব করেন, সামারের কোন এক রবিবারের দুপুরে ওপেন এয়ার লাঞ্চের ব্যবস্থা করে সংগৃহীত অর্থ বাংলাদেশের কোন নির্দিষ্ট প্রজেক্টে দান করা যেতে পারে।

এই প্রস্তাবের সমর্থনে পরবর্তী বক্তা জাকির হোসেন তার সদ্য দেশ থেকে আসা ছোট্ট একটা ঘটনার কথা তুলে ধরেন। অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়ে তাদের আশাময় হাসি কার না দেখতে ভাল লাগে। এক রাজমিস্ত্রি কর্মঠ যুবক , যে ৬ তলা থেকে পরে গিয়ে পঙ্গু হয়ে বিছানায় কাতরাচ্ছিল তার জন্য একটা হুইল চেয়ার যে কি অভাবনীয় পাওয়া তা শুধু তার খুশি মুখ দেখলেই বোঝা যায়। জাকির হোসেন সিডনির নতুন সেবা সংগঠন “মা কেয়ার বাংলাদেশ” এর ফান্ড থেকে হুইল চেয়ার কেনা এবং চিকিৎসা বাবদ কিছু অর্থ প্রদান করেন।

ড বারি এবং জাকির হোসেন ভবিষ্যতের এই ওপেন এয়ার লাঞ্চ প্রোগ্রাম সফল করার ব্যাপারে গুড মর্নিং বাংলাদেশে এর মুল উদ্যোক্তাদের নিকট থেকে গঠন মূলক পরামর্শ পাওয়ার আশা প্রকাশ করেন এবং একটি ওপেন এয়ার লাঞ্চ প্রোগ্রাম যার সুফল শুধুমাত্র বাংলাদেশি জন কল্যানমুলক প্রজেক্ট ই প্রাপ্ত হবে এই আশ্বাস দিয়ে উপস্থিত সবার সহযোগিতা কামনা করেন।

বক্তৃতা পর্বের পর সারপ্রাইজ ছিল লাইভ মিউজিক উপস্থিত সবার জন্য। নাঈম হালিম আমাদের প্রতিশ্রুতিশীল ভায়োলিন বাদক। স্কুলের গণ্ডি পেরুতে তার এখনও তিন চার বছর বাকি। অথচ এরই মধ্যে নাঈম অপেরা হাউস, টাউন হলের মত বিখ্যাত স্টেজে ভায়োলিন বাজিয়ে অনেক প্রশংসা কুড়িয়েছে। প্রায় ১৫ মিনিট ধরে এক নাগারে বাজিয়ে বেশ মুনশিয়ানার পরিচয় দিল সে। অস্ট্রেলিয়ার ভাব মূর্তি উজ্জ্বল করার জন্য আমাদের নতুন জেনারেশন যে নিজস্ব গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে নাঈম তার প্রমাণ।

সবার শেষে, “গুড মর্নিং বাংলাদেশ” ক্যান্সার কাউন্সিল এর বিগেস্ট মর্নিং টি এর ব্রেকফাস্ট প্রোগ্রামের ইস্টার্ন সিডনির সমন্বয়কারী আজাদ আলম উপস্থিত সবাইকে প্রাণবন্ত অংশগ্রহণের জন্য এবং ক্যান্সার কাউন্সিলে অর্থ দানের জন্য ধন্যবাদ জানান। বিশেষ করে মহিলাদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশ গ্রহণ এই অনুষ্ঠান সফলতার সিংহভাগ দাবিদার বলে উল্লেখ করেন এবং উপস্থিত সবাই বিশেষ ভাবে করতালি দিয়ে তাঁদেরকে ধন্যবাদ জানান। আগামীতে সবাইকে সাথে থাকার আমন্ত্রণ জানিয়ে জনাব আজাদ আলম অনুষ্ঠানের সমাপ্তি টানেন।

এই মেলা থেকে বিক্রিত সমুদয় অর্থ ক্যান্সার কাউন্সিলে প্রদান করা হয়। এ দিনের সংগৃহীত অর্থের পরিমাণ ছিল ৬০০০ ডলার যা গত বছরের অঙ্ককে ছাড়িয়ে গেছে।





Published on: 29-May-2014


A Green Apple goes to the Big Apple
Mostafa Abdullah



1

On an August afternoon in 1975 a green apple like me who rarely ventured outside of Dhaka embarked on a plane bound for New York City, the Big Apple. It was on a Thai Airlines flight bound for Delhi, probably the first one out of Dhaka after the assassination of Sheikh Mujibur Rahman. There were only few of us who joined other passengers on board going to Delhi from Bangkok via the then Dacca. Today’s Dhaka used to be spelled as Dacca, the spelling given by the colonial English.

I landed at Delhi for an overnight connection on a Lufthansa flight for New York. Next morning as I was heading to board the New York bound flight from Delhi airport; I was stopped by uniformed personnel that took me into an adjacent room. I was queried for sometime about Sheikh Mujib’s assassination. I suppose when they realized that I was not a person of interest, they let me go minutes before the flight departed.

2

The flight landed at New York on a Sunday afternoon and my supposed receiving party wasn’t anywhere around. However, I had the taxi voucher and instructions as to how to get to the designated hotel. After clearing the Immigration and customs I needed quit a long time to figure out how to get out through a large glass door that opened and closed, it seemed, at its own whim. After observing the passengers going in and out through the door for some time, I cleverly followed someone to the door, and amazingly, the door opened and I slipped out cleverly, I thought. I checked into the hotel room in the evening; tired, hungry and terrified. Bolted the door from inside and spent the night half asleep in empty stomach.

Outgoing passengers from Bangladesh were allowed to carry only $20 worth of